শিরোনাম
রায় লিখুন বাংলায়, যাতে মানুষ বোঝে : বিচারকদের প্রধানমন্ত্রী ‘পুরান ঢাকায় আর দাহ্য পদার্থের গোডাউন রাখতে দেব না’ গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে চকবাজারে আগুন : শিল্পমন্ত্রী 'সরকারের দায়িত্বহীনতায় বহু মানুষ অকারণে জীবন হারাচ্ছে' অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের ঘটনায় রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন ‌'হতাহতদের পরিবারকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর' চকবাজারে অগ্নিকাণ্ড : উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত, ৭০ জনের মৃত্যু ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর গভীর শ্রদ্ধা ভুয়া প্রশ্নপত্র ফাঁস : থামছেই না বেপরোয়া চক্র

পাবনা-১ আসনে ঐক্যফ্রন্টের ৩, মহাজোটের প্রার্থী টুকু

মজিবুল হক লাজুক, পাবনা  |  ১৯:৫৮, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৮

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৬৮ পাবনা-১ সাঁথিয়া-বেড়া (আংশিক) আসনে ঐক্যফ্রন্ট থেকে তিনজন প্রার্থী মনোনয়নে টিকে আছেন। আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ড. অধ্যাপক আবু সাইয়িদ (গণফোরাম), জামায়াতের সাবেক মন্ত্রী ও জামায়াতের আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর ছেলে ব্যারিস্টার নাজিবুর রহমান মোমেন স্বতন্ত্র, বেড়া উপজেলা জামায়াতের আমির ডা. বাছেদ স্বতন্ত্র। তিন প্রার্থী নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীরা।

অপরদিকে, আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী দুবারের নির্বাচিত এমপি সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাড. শামসুল হক টুকু এমপি। দলীয় একক প্রার্থী হওয়ায় তিনি রয়েছেন ফুরফুরে মেজাজে। এ পর্যন্ত ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ঘোষণা না হওয়ায় ভোটের মাঠে ঐক্যফ্রন্টের হয়ে কাউকে দেখা যাচ্ছে না। স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক জামায়াতের আমির ও যুদ্ধাপরাধী মামলার মৃত্যুদ-প্রাপ্ত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর ছেলে ব্যারিস্টার নাজিবুর রহমান মোমেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও মোমেন দীর্ঘদিন ধরে দেশের বাইরে অবস্থান করছিলো। সর্বশেষ তিনি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশে আসছেন বলে সংবাদ পাওয়া গেলেও নির্বাচনি এলাকায় ভোটারদের মাঝে তাকে এখনো দেখা যায়নি ভোটের মাঠে। অপর জামায়াতের স্বতন্ত্র প্রার্থী বেড়া উপজেলা জামায়াতের আমির ডা. আব্দুল বাছেদ মনোনয়নপত্র জমা দিলেও ভোটের মাঠে তার কোনো প্রকার উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

তবে তিনি তার ফেসবুক পেজে ব্যারিস্টার নাজিবুর রহমানের পক্ষে সমর্থন দিয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। ডা. বাছেদ মনোনয়ন জমা দিলে সাঁথিয়া উপজেলা জামায়াতের নেতাকর্মীরা দলীয় অফিসে তালা দিয়ে প্রতিবাদ করে।

এ আসনটিকে তারা ব্যারিস্টার মোমেনকে চায়। ঐক্যফ্রন্ট হেভিওয়েট প্রার্থী সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ড. অধ্যাপক আবু সাঈয়িদ গণফোরামের হয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। নির্বাচন উপলক্ষে তিনি নির্বাচনি এলাকায় এলেও নির্বাচনের মাঠে এখনো দেখা যায়নি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেম ঢাকায় পাবনার বিএনপি নেতারা গিয়ে অধ্যাপক আবু সাইয়িদকে শুভেচ্ছা জানানোর ছবি দেখা গেলেও তার নির্বাচনি এলাকায় বিএনপি ও জামায়াতের নেতকর্মীদের সাথে তাকে দেখা যায়নি।

সব মিলিয়ে এদের মধ্যে কে হবেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী, তা নিয়ে এখনো দ্বিধা কাটেনি ভোটারদের। ভোট যতই ঘনিয়ে আসছে ততই দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগছেন বিএনপি জামায়াতের নেতাকর্মীরা।

সাঁথিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি কে এম মাহবুব মোর্শেদ জ্যোতি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়াকে মুক্ত করতে ড. কামাল ঐক্য করেছেন। সাঁথিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা মাওলানা মোখলেছুর রহমান বলেন, কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের বাইরে আমার কিছু করব না। কেন্দ্র থেকে যে আদেশ আসে আমরা তাই করবো।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত