শিরোনাম

বরিশাল সিটির ১৬ কেন্দ্রের অনিয়মের তদন্ত শুরু

প্রিন্ট সংস্করণ॥নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ০০:০৮, আগস্ট ১২, ২০১৮

বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ফল স্থগিত থাকা ১৫টি কেন্দ্র এবং ভোটগ্রহণ স্থগিত থাকা একটি কেন্দ্রসহ মোট ১৬টি কেন্দ্রের অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে নির্বাচন কমিশনের তদন্ত দল। নির্বাচন কমিশনের ৪ সদস্যের তদন্ত দল গতকাল শনিবার তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন। তারা প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের দায়িত্ব পালনকারী প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য এবং সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও তাদের পোলিং এজেন্টদের লিখিত বক্তব্য গ্রহণ করছেন। আগামী ১৪ আগস্ট পর্যন্ত তদন্ত কার্যক্রম চলবে বলে জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে। জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, তদন্ত দলের সদস্যরা প্রতিটি কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য এবং সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও তাদের পোলিং এজেন্টদের পৃথকভাবে ডেকে নির্দিষ্ট প্রশ্নপত্রের ওপর লিখিত বক্তব্য গ্রহণ করেছেন। ভোটগ্রহণে দায়িত্বপালনকারী একাধিক কর্মকর্তা জানান, ১৩টি নির্দিষ্ট প্রশ্নের একটি পেপার সরবরাহ করেছেন তদন্ত দল। তারা সেখানে নৈব্যত্তিক প্রশ্নের মতো হ্যাঁ ও না এর ওপর টিক দিয়ে উত্তর দিয়েছেন। সব প্রশ্নই ষ এরপর  ছিল ভোটগ্রহণে অনিয়ম, প্রভাব বিস্তার , প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা বল প্রয়োগ করেছেন কি-না ইত্যাদি। সিটি নির্বাচনের রির্টানিং অফিসার ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুজিবুর রহমান বলেন, রিটার্নিং অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং কর্তকর্তাদেরও বক্তব্যও গ্রহণ করেছেন তদন্ত দল। তদন্ত দলের প্রধান নির্বাচন কমিশন সচিবলায় যুগ্ম সচিব (নির্বাচন ব্যবস্থাপনা-২) খোন্দকার মিজানুর রহমান বলেন, বরিশাল সিটি নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দিন বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা কেন্দ্রে ব্যালট ছিনতাই করে সিল মারা, ভোট প্রদানে বাঁধা, প্রতিপক্ষের পোলিং এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেয়াসহ অনিয়মের অভিযোগ দাখিল করেছেন। এছাড়া ৪ মেয়রপ্রার্থী ফল বাতিল পুনঃনির্বাচনের আবেদন করেছেন। এসব বিষয়ে তারা তদন্ত করছেন। তদন্ত শেষ হলে প্রতিবেদন দেয়ার পর নির্বাচন কমিশন পরবর্তী সিদ্ধান্ত দেবেন। প্রসঙ্গত, গত ৩০ জুলাই ভোটগ্রহণের দিন নির্বাচন কমিশনের একটি প্রতিনিধি দল ২৫টি কেন্দ্র পরিদর্শন করে ব্যাপক অনিয়ম দেখতে পান। তাদের দেয়া প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ১৫টি কেন্দ্রের ফল স্থগিত ও একটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ বাতিল করা হয়।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত