শিরোনাম

ফেসবুকের ব্যর্থতা স্বীকার করলেন জাকারবার্গ

ডিডাব্লিউ  |  ১৭:৪২, এপ্রিল ১০, ২০১৮

মার্ক জাকারবার্গ স্বীকার করলেন, গ্রাহকদের তথ্য সংরক্ষণে ব্যর্থ হয়েছে ফেসবুক এবং সে তথ্য অপব্যবহৃতও হয়েছে৷ ফেসবুক ব্যবহারকারীকে না জানিয়ে তাঁদের ব্যক্তিগত তথ্য রাজনৈতিক কাজে ব্যবহার করেছে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা৷

ফেসবুকের তথ্য ফাঁসের জন্য নিজের দায়িত্ব স্বীকার করলেন মার্ক জাকারবার্গ৷ মার্কিন কংগ্রেসের মুখোমুখি হওয়ার আগে তিনি বললেন, ফেসবুকের মতো সামাজিক মাধ্যমগুলি ব্যবহারকারীদের তথ্য সংরক্ষণে যথেষ্ট ব্যবস্থা নেয় না৷

ফেসবুক প্ল্যাটফর্মের অনৈতিক ব্যবহার তারা রুখতে পারেননি৷ ব্রিটেনের তথ্য বিশ্লেষক সংস্থা কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ফেসবুকের ৮ কোটি ৭০ লক্ষ ব্যবহারকারীর তথ্য ব্যবহার করেছে নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে৷ এজন্য মার্কিন কংগ্রেস তলব করেছে ফেসবুক সিইও সাকারবার্গকে৷

সেই তলবে হাজিরা দেওয়ার আগে মার্কিন হাউজ এনার্জি অ্যান্ড কমার্স কমিটি জাকারবার্গের বক্তব্য প্রকাশ করেছে৷ সেখানে ফেসবুক প্রধান স্বীকার করেছেন, ‘‘এ ধরনের জিনিস খারাপ কাজেও লাগানো যায়, সেই ক্ষতিকর দিকটা ভেবে আমরা কখনোই যথেষ্ট ব্যবস্থা নিইনি৷ ফলে ভুয়া ­খবর, ভোটে বিদেশের নাক গলানো, ঘৃণা ছড়ানো ইত্যাদি নানা কাজে ফেসবুক জড়িয়েছে৷’’

আজ ও আগামীকাল জাকারবার্গ কংগ্রেসের দুটো কমিটির প্রশ্নের মুখে পড়বেন৷ ফেসবুকের ১৪ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম ব্যাক্তিগত তথ্য ফাঁসের অভিযোগ৷ মূলত যুক্তরাষ্ট্রের লক্ষ লক্ষ ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য বেহাত হয়ে যাওয়ার পরে সেই অভিযোগ আরও তীব্র হয়েছে৷ ফেসবুক নিজেও স্বীকার করেছে যে, ৮ কোটি ৭০ লক্ষ মানুষের তথ্যই বেহাত হয়েছে৷ লন্ডনের কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের হস্তক্ষেপ রয়েছে৷

জাকারবার্গ বলেছেন, ‘‘আমি দুঃখিত৷ আমাদের দায়িত্ব সম্পর্কে আমরা যথেষ্ট ওয়াকিবহাল ছিলাম না৷ সেটা একটা মস্ত বড় ভুল৷ এটা আমারই ভুল৷ আমিই এই সংগঠন চালিয়েছি৷ কাজেই এখানে যা কিছু হয়েছে তার জন্য আমিই দায়ী৷’’

জাকারবার্গ আশ্বাস দিয়েছেন যে, পরবর্তী সময়ে ব্যবহারকারীদের তথ্য আর পাচার হবে না৷ তৃতীয় কেউ এসে যাতে সেই তথ্য হাতিয়ে নিতে না পারে সে দিকে সতর্ক নজর রাখবে ফেসবুক৷

জাকারবার্গ জানালেন, সন্দেহজনক কাজকর্ম দেখলেই ফেসবুক এবার ফরেনসিক অডিট করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ বিভিন্ন অ্যাপের ক্ষেত্রেও নেওয়া হচ্ছে বাড়তি সতর্কতা৷ কেউ তথ্য সংক্রান্ত ব্যাপারে কোনও গরমিল করলেই সঙ্গে সঙ্গে তা বন্ধ করে দেওয়া হবে৷

৩৩ বছর বয়সি জাকারবার্গ জানিয়েছেন, তাঁরা অনলাইনে তথ্য ঘিরে লড়াই আর হতে দিতে চান না৷ সোশ্যাল মিডিয়ার তরফে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে ফেসবুক স্বাধীন গবেষণাধর্মী কমিটি গঠন করতে চলেছে৷ ভোট এবং গণতন্ত্রে সামাজিক মাধ্যমের ব্যবহার নিয়ে গবেষণা করাই এর মূল লক্ষ্য হবে৷

এই কমিটি যুক্তরাষ্ট্রের সংস্থা এবং প্রাতিষ্ঠানিক গবেষকদের সঙ্গে কথা বলবে৷ সে জন্য গবেষকও খুঁজে নেবে ফেসবুক৷ এঁরাই ঠিক করবেন, কোন কোন বিষয়ের উপর নজর রাখা হবে তথ্য ফাঁস রুখতে৷

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত