শিরোনাম

গ্রমীণেফান ও রবিকে ‘অন্যরকম শাস্তি’

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১২:৩১, জুলাই ০৫, ২০১৯

বকেয়া পরিষোধ না করায় মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোন ও রবির ব্যান্ডইউথ কমিয়ে দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

তবে এই নির্দেশনা কার্যকর হলে কেবল কোম্পানি নয় বড় ধরনের সমস্যায় পড়বেন ইন্টারনেট ব্যবহারকীরাও।

বৃহস্পতিবার দেশের ৫টি আইআইজিকে (ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে) নির্দেশনা পাঠায় বিটিআরসি। এতে গ্রামীণফোনের প্রায় ১৪৪ জিবিপিএস (গিগাবিটস পার সেকেন্ড) এবং রবির ১২৫ জিবিপিএসে (গিগাবিটস পার সেকেন্ড) সীমিত রাখার নির্দেশ দেয়া হয়।

জানা গেছে, আইআইজিগুলো এরই মধ্যে ব্যান্ডউইথ কমানোর নির্দেশনা কার্যকর করতে শুরু করেছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত মোবাইল অপারেটর দুটির অনুকূলে নতুন করে ব্যান্ডউইথ ক্যাপাসিটি/ব্যান্ডউইথ বরাদ্দ ও বৃদ্ধি করা হতে বিরত থাকারও জন্যও আইআইজিগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

গ্রামীণফোনের কাছে সরকারের পাওনা সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা। একইভাবে রবির কাছে পাওনা ৮৬৭ কোটি টাকা। নিরীক্ষা প্রতিবেদনের ভিত্তিতে দাবি করা এই টাকা দীর্ঘদিন ধরে না দিয়ে তালবাহানা করে আসছিল কোম্পানি। টাকা উদ্ধারে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) এবার কড়া পদক্ষেপ নিল। সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিঠি দিয়ে ৩০ ভাগ ব্যান্ডউইথ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে গ্রামীণফোনের। আর রবিকে ১৫ ভাগ।

আরআর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত