শিরোনাম

হুয়াওয়ের ৯৭,০০০ টাকার ফোন পাওয়া যাচ্ছে ১১ হাজারে!

আমার সংবাদ ডেস্ক  |  ১৫:৩০, মে ২৯, ২০১৯

চীনা স্মার্টফোন ব্র্যান্ড ও সংখ্যার হিসেবে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্মার্টফোন নির্মাতা হুয়াওয়ের মোবাইল ফোনে বেশ কিছু আপডেট বন্ধ করে দিয়েছে অ্যান্ড্রয়েড অপরেটিং সিস্টেম নির্মাতা গুগল। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা ও গুগলের কিছু সেবা বন্ধের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হুয়াওয়ে।

১১৫০ ডলারের (৯৭১৬৬.৯৫ টাকা) হুয়াওয়ের পি৩০ প্রো স্মার্টফোন এখন পাওয়া যাচ্ছে ১৩০ ডলারে (১০,৯৮৪ টাকা)। শতকরা হিসাবে যার দাম কমেছে ৯০ শতাংশ। আর এরই মধ্যে ট্রাম্প প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞার কারণে বড় ধরনের ব্যবসায়ীক ক্ষতির মুখে পড়েছে হুয়াওয়ে।

ফোর্বস ম্যাগাজিন জানিয়েছে, চীনা স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হুয়াওয়ের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা এবং গুগলের কিছু সেবা হুয়াওয়েতে বন্ধের ঘোষণা আসার পর যুক্তরাজ্যে স্মার্টফোন কেনাবেচার একটি সাইটে এমন দাম চাওয়া হচ্ছে।

ফোনটিতে ২৫৬ জিবি স্টোরেজ এবং ৮ জিবি র‌্যাম রয়েছে। স্যামসাং এর গ্যালাক্সি এস ১০+ এর সমান দাম ধরা হয়েছিল ফোনটির। দুটো ফোন প্রায় একই গুণগত মানের। দীর্ঘমেয়াদি ব্যাটারি ও লেইকা কোয়াড ক্যামেরার শক্তির বিশেষত্বের জন্য বেশ নজর কেড়েছিল হুয়াওয়ের এই স্মার্টফোনটি।

যারা ইতোমধ্যেই হুয়াওয়ে স্মার্টফোন ব্যবহার করছেন, তারা যথারীতি অ্যাপ ইনস্টল ও আপডেট তাদের ফোনে নিতে পারবেন। তবে, গুগল যখন এ বছরের শেষের দিকে নতুন সংস্করণের অ্যান্ড্রয়েড বাজারে ছাড়বে, সেটি হুয়াওয়ে ফোনে ব্যবহার করতে না পারার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। এমনকি ভবিষ্যতের হুয়াওয়ে ফোনগুলোতে গুগল ম্যাপস বা ইউটিউব অ্যাপ ব্যবহার না-ও করা যেতে পারে।

হুয়াওয়ে অবশ্য ওপেন সোর্স লাইসেন্সের মাধ্যমে পাওয়া অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণ ব্যবহার করতে পারবে। সে সংস্করণের সীমাবদ্ধতা হচ্ছে- হুয়াওয়ে ওই অপারেটিং সিস্টেমটি নিজেদের মতো করে ব্যাপকভাবে কাস্টমাইজ করতে পারবে না, যেমনটা তারা এতদিন করে আসছিল। সিএসএস কনসালটেন্সির বিশ্লেষক বেন উডের মতে, গুগলের এই সিদ্ধান্ত হুয়াওয়ের ভোক্তাপণ্য ব্যবসায় ব্যপক প্রভাব ফেলবে।

গত বুধবার মার্কিন প্রশাসনের এনটিটি লিস্টে হুয়াওয়ের নাম যোগ করার পরপরই প্রতিক্রিয়া জানায় হুয়াওয়ে। ওই তালিকায় নাম থাকার ফলে কোনো মার্কিন প্রতিষ্ঠানের প্রযুক্তি কিনতে হলে আগে মার্কিন সরকারের অনুমতি নিতে হবে। অ্যান্ড্রয়েট অপারেটিং সিস্টেমটির নির্মাতা মার্কিন প্রতিষ্ঠান গুগল। এর পাশাপাশি, হুয়াওয়ে প্রতি বছর প্রায় ৬৭ বিলিয়ন ডলারের যন্ত্রাংশ কিনে থাকে।

সাম্প্রতিক মার্কিন সিদ্ধান্তের পর হুয়াওয়ে প্রধান মন্তব্য করেন, তার প্রতিষ্ঠান এমন পরিস্থিতির জন্য ইতোমধ্যেই প্রস্তুতি নিচ্ছিল। তিনি আরও যোগ করেন, হুয়াওয়ে এখন থেকে নিজেদের যন্ত্রাংশ নিজেরাই তৈরি করার দিকে মনোযোগ দেবে।

হুয়াওয়ে কেবল স্মার্টফোন তৈরি করে না, প্রতিষ্ঠানটি স্মার্টফোনের নেটওয়ার্ক কাঠামোও তৈরি করে। ট্রাম্প প্রশাসন বরাবরই বলে এসেছে, হুয়াওয়ে তাদের নেওয়ার্ক প্রযুক্তিকে পশ্চিমা সারকারগুলোর ওপর নজরদারির কাজে ব্যবহার করে থাকতে পারে। হুয়াওয়ে বরবরই এমন অভিযোগ অস্বীকার করলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন পশ্চিমা দেশ হুয়াওয়ের নেটওয়ার্ক পণ্য ব্যবহার থেকে সরে এসেছে। অনেক দেশটি জানিয়ে দিয়েছে তারা ৫জি নেটওয়ার্কে হুয়াওয়ের প্রযুক্তি ব্যবহার করবে না। যুক্তরাজ্য অবশ্য এখনও কোনো অনুষ্ঠানিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেনি।

এমএআই

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত