শিরোনাম

হোয়াইটওয়াশ এড়াতে চান মাশরাফি

প্রিন্ট সংস্করণ॥ক্রীড়া প্রতিবেদক  |  ০৩:৫২, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৯

সদ্য সমাপ্ত বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে (বিপিএল) বাংলাদেশি বোলার এবং ব্যাটসম্যানরা নজরকাড়া বোলিং ও ব্যাটিং করে মুগ্ধ করেছিল টাইগার সমর্থকদের। এর ফলোশ্রুতিতে বিপিএল শেষে মাশরাফি-মুশফিক সহ অনেকেই সামনে পেছনে বলেছিলেন আসন্ন নিউজিল্যান্ড ট্যুরে বাংলাদেশ বিশেষ করে ওয়ানডেতে প্রত্যাশিত ফলাফল, এমনকি দু একটি ম্যাচে জয়ও পেতে পারে। কিন্তু সেখানে জয় তো দুরের কথা লড়াইটাও করতে পারেনি। ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুটো ম্যাচে বিশাল ব্যবধানে (৮ উইকেটে) হার মানে স্বাগতিকদের কাছে মাশরাফিরা। তাদের একটাই দোহাই কন্ডিশন! এখন দেখা যাচ্ছে, বাংলাদেশের জন্য ‘অপয়া’ এখন নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন (আবহাওয়া)। তার ওপর এখানে এলেই একের পর এক ইনজুরিতে পড়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। সাকিব-মিঠুনকে হারিয়ে এমনিতেই একাদশ সাজানো নিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে দলকে। আজ ডানেডিনে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়িয়ে হোয়াইটওয়াশ এড়াতে চায় মাশরাফির দল। ডানেডিনের ইউনিভার্সিটি ওভালে প্রথম আন্তর্জাতিক ওয়ানডেতে কিউইদের প্রতিপক্ষ ছিল টা্িগাররা। ৯ বছর আগের ওই ম্যাচে ৫ উইকেটে পরাজিত হয়েছিল বাংলাদেশ । মুশফিকের ৮৬ রানের উপর ভর করে বাংলাদেশ করেছিল ১৮৩ রান। স্বাগতিকরা শফিউল-রুবেলের বোলিং তোপে পড়লেও কিউইদের ম্যাচ জিততে তা বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি। ওয়ানডের পর এই মাঠের প্রথম টেস্টেও বাংলাদেশকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। ২০০৮ সালে ওই টেস্টেও ৯ উইকেটে হার সঙ্গী হয়েছে বাংলাদেশের। তামিম (৫৩ ও ৮৪) ও জুনায়েদের (১ ও ৭৪) লড়াকু ব্যাটিংয়ে সফরকারীরা হারের ব্যবধান কমায় মাত্র। পরিসংখ্যান বলছে, ডানেডিনে দারুণ ব্যাটিং উইকেটই থাকার কথা। গত বছরের মার্চে ইংল্যান্ডের ৩৩৬ রান তাড়া করতে গিয়ে ৫ উইকেটে ম্যাচ জিতেছে নিউজিল্যান্ড। শেষ ম্যাচের আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফিও মনে করছেন পুরনো ঐতিহ্য অনুসরণ করবে এই উইকেট। তাই অতীত অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ভালো করতে মুখিয়ে তিনি। মাশরাফি বলেন, ওখানকার উইকেট সম্পর্কে আমরা যতটা জানি ব্যাটিং নির্ভর উইকেট হয়। ওখানে আমরা টেস্ট ও ওয়ানডে খেলেছি, ভালো ব্যাটিংও করেছি। এখানে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৩৬ রান তাড়া করে জিতেছে নিউজিল্যান্ড। আমরা খুব ভালো একটা ব্যাটিং উইকেট আশা করছি। আশা করি, এখানে আমরা ভালো করতে পারব। জয়ের প্রত্যাশা করলেও বাংলাদেশের শঙ্কার কারণ পরিসংখ্যান। এই মাঠে স্বাগতিকরা একটি ম্যাচেও হারেনি! বিশ্বকাপের আগে আরও কিছু ওয়ানডে খেলার সুযোগ পেলেও বিশ্বকাপের দল ঘোষণার আগে এটাই বাংলাদেশের শেষ ওয়ানডে। আজকের ম্যাচটা জিতলে কিছুটা আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবে টাইগাররা। মাশরাফি তাই আশাবাদী, দলের ব্যাটিং ব্যর্থতা এবার ঘুচবে। এদিকে, আজ শেষ ম্যাচটি হতে পারে আনুষ্ঠানিকতার। তবে টাইগারদের জন্য আজকের ম্যাচটি অন্যরকম গুরুত্ব বহন করবে। হারলেই তিন ম্যাচ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ। আর কিউইদের হারাতে পারলে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ব্ল্যাক ক্যাপসের বিপক্ষে ঘুচবে কখনও না পারার আক্ষেপ। সে জয় হবে অনেক মধুর। তাতে সান্ত¡নার পাশাপাশি হোয়াইটওয়াশও এড়ানো যাবে। সেইসঙ্গে একটি নতুন অনুপ্রেরণাও জাগবে-আমরা সিরিজ হারলেও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কিউইদের প্রথমবার হারিয়েছি। বাংলাদেশ সময় রাত ভোর চারটায় ডানেডিনে সে প্রত্যাশায় মাঠে নামবে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত