শিরোনাম
আমার সংবাদকে আব্দুর রহমান

ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রলীগের জয় নিশ্চিত

প্রিন্ট সংস্করণ॥মো. রফিকুল ইসলাম  |  ০০:৪৬, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৯

আগামী ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন। এ নির্বাচনে ছাত্রলীগের প্রার্থীর জয় নিশ্চিত বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে গত ১০ বছরের বাংলাদেশের যে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা শুরু হয়েছে, সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতেই ডাকসু নির্বাচনে সাধারণ ভোটাররা ছাত্রলীগের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে বিজয় নিশ্চিত করবে। গত শনিবার আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে ‘দৈনিক আমার সংবাদ’-এর সাথে একান্ত আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।আব্দুর রহমান বলেন, ডাকসু নির্বাচনকে সামনে রেখে বঙ্গবন্ধু কন্যা আমাদের যে বিশেষ দায়িত্ব দিয়েছেন, সেই দায়িত্ব পালন এবং নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য ছাত্রলীগের সকল নেতাকর্মীদের নিয়ে আমরা একাধিকবার বৈঠক করেছি। এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সকল নেতামর্কীকে দিকনির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারা সবাই প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছেন। আশা করি জাতীয় নির্বাচনের মতোই ডাকসু নির্বাচনে আমাদের বিজয় নিশ্চিত। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ডাকসু নির্বাচনের ঘোষণা দেয়ার পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়টির ছাত্রছাত্রীসহ সারা দেশের মানুষের মাঝে একটি আলাদা আগ্রহ তৈরি হয়েছে। এ জন্য সকল রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনকে এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানান তিনি। পাশাপাশি সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন নিদিষ্ট সময়ের মধ্যে শেষ জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ার কারণে ডাকসু নির্বাচনে কোনো ধরনের প্রভাব পড়বে কি-না জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন। এই সংগঠনের সাথে যুক্ত হয়ে যারা ছাত্র রাজনীতি করে তারা সবাই দলের স্বার্থে একতাবদ্ধ। তাই কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকলেও ডাকসু নির্বাচন নিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মাঝে কোনো মতবিরোধ নেই।তিনি বলেন, গত কমিটিতে ছাত্রলীগে কিছু ভিন্ন পন্থি নেতা অনুপ্রবেশ করেছিল। যারা সবাই নিজেদের ফায়দা হাসিলের জন্য সংগঠনে যোগ দিয়েছিল। কিন্তু এই কমিটিতে যাতে এ ধরনের কোনো নেতা আসতে না পারে, সেই দিকে লক্ষ রেখেই কাজ করছে দলটির শীর্ষ দুই নেতা। এই কমিটির দিকে নেত্রীর নজর আছে জানিয়ে তিনি বলেন, নেত্রী কেন্দ্রীয় সভাপতি-সম্পাদককে নির্দেশ দিয়েছে হয়তো অল্প কিছুদিনের মধ্যেই পড়বে না। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের জয়ের বিষয় জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বড় দল। এই দলের সকল নেতাকর্মীদের চেয়ারম্যান হওয়ার যোগ্যতা আছে। কিন্তু দলীয় মনোনয়ন পাবে একজন। তাই নেত্রী যাকে দিয়েছে, দলের নেতাকর্মীরা তাকেই নিয়ে নৌকার বিজয় উপহার দেবে। যেভাবে জাতীয় নির্বাচনে সবাই কাজ করে বিজয় নিশ্চিত করেছিল। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে নিরষ্কুশ বিজয় অর্জনের পর ১৪ দলীয় জোটের সাথে আওয়ামী লীগের কোনো বৈঠক হয়নি এবং জোটের কোনো নেতাকে নতুন মন্ত্রিসভায় রাখা হয়নি। এ নিয়ে জোট ও আওয়ামী লীগের মাঝে দূরত্ব তৈরি হয়েছে কি-না জানতে চাইলে আব্দুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট একটি আদর্শিক জোট। এই জোটে আমরা যারা রাজনীতি করি তারা সবাই দেশের মানুষের উন্নয়নের জন্যই রাজনীতি করি। জোটের স্বার্থে আমাদের কে মন্ত্রী হবেন আর কে মন্ত্রী হবেন না এটা শুধু বঙ্গবন্ধু কন্যা সিদ্ধান্ত নেবেন। তিনি বলেন, জোটের সাথে কোনো বৈঠক করতে চাইলে নির্দিষ্ট একটি ইস্যু নিয়ে বৈঠক করতে হয়। তবে জোটের সাথে আওয়ামী লীগ আনুষ্ঠানিক কোনো বৈঠক না হলেও প্রতিদিন তাদের সাথে যোগাযোগ হচ্ছে। এতে হত্যাশ হওয়ার কিছু নেই। এ নিয়ে আমাদের আগেও সমস্যা ছিল না। আগামীতেও হবে।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত