শিরোনাম

কঠোর আইন থাকলেও সামাজিক মাধ্যমে অপরাধ থামছেই না

প্রিন্ট সংস্করণ॥আব্দুল লতিফ রানা  |  ০০:৫৬, জানুয়ারি ১০, ২০১৯

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশের মানুষ যেমন তাদের জীবনকে বিভিন্নভাবে সহজ করে তুলছে, তেমনি অস্বাভাবিকভাবে এবং দ্রুতগতিতে নানা অপরাধের ঘটনাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এই অপরাধ রোধে সরকার নানাভাবে চেষ্টা করলেও রোধ করা যাচ্ছে না। এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, এমপি শামীম ওসমান, এমপি তারানা হালিম, এমপি মমতাজ, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদা, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আব্দুল আজিজ, র‌্যাব মহাপরিচালক (ডিজি) এডিশনাল আইজিপি বেনজীর আহমেদ, ডিএমপি কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান মিয়াসহ দেশের খ্যাতিমান ব্যক্তিদের ছবি বিকৃত করে সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করছে। শুধু তাই নয়, মানহানিকর, অপপ্রচারমূলক, আক্রমণাত্মক মিথ্যা পোস্টের মাধ্যমে রাষ্ট্রপ্রধান তথা বিভিন্ন বাহিনীর ভাবমূর্তি, সুনাম ক্ষুণ্নসহ বিভ্রান্তি ছড়ানো ও আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটানোর জন্য পোস্ট করার মতো অপরাধ করা হচ্ছে। বিভিন্ন অপরাধমূলক, নাশকতামূলক, প্রতারণামূলক, সরকারের বিরুদ্ধাচারণ, সরকার প্রধানের প্রতি কটূক্তিমূলক, সাম্প্রদায়িক উস্কানি, প্রশ্নফাঁস এবং পরীক্ষার রেজাল্ট পরিবর্তনের প্রলোভন প্রভৃতি অপরাধ বেড়েই চলছে। আবার এসব অপরাধীরা নামে-বেনামে ভুয়া আইডি খুলে সমাজের স্বনামধন্য ব্যক্তিদের ব্ল্যাকমেইলও করা হচ্ছে। এসব অপরাধীদের বিরুদ্ধে পুলিশ, র‌্যাব, ডিবিসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করছে। তারই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৫, রাজশাহীর সিপিএসসি, মোল্লাপাড়া ক্যাম্পের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন যে, রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানাধীন হেতেম খাঁ কলাবাগান বাইপাস রাজিব চত্বরগামী সড়ক এলাকায় ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আব্বাছ সরদারের বাড়ির দক্ষিণ পাশে জনৈক মোছা. শামীমা আক্তারের বাড়ির ৩য় তলায় জনৈক ব্যক্তি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোনের মাধ্যমে দেশের সরকার এবং রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের ছবি বিকৃত করে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে অপপ্রচার করেন। এ সংবাদের ভিত্তিতেই র‌্যাব-৫ এর দলটি গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে উক্ত বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মো. আখলাকুজ্জামান আনসারী (৪৩) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে। তার বাবার নাম মৃত কাজী মোহাম্মদ আবু সাইদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ কৃষ্ণচন্দ্রপুর গ্রামে তাদের বাড়ি। তার ব্যবহৃত অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে ব্যবহৃত ফেসবুক প্রোফাইল হতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, এমপি শামীম ওসমান, এমপি তারানা হালিম, এমপি মমতাজ, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদা, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আব্দুল আজিজ, র‌্যাব মহাপরিচালক (ডিজি) এডিশনাল আইজিপি বেনজীর আহমেদ, ডিএমপি কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান মিয়া, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সদস্যদের এবং মিয়ানমার নেত্রী অং সান সু চির বিরুদ্ধে বিভিন্ন বিষয়ে মানহানিকর, অপপ্রচারমূলক, আক্রমণাত্মক মিথ্যা পোস্টের মাধ্যমে রাষ্ট্র প্রধান তথা বিভিন্ন বাহিনীর ভাবমূর্তি, সুনাম ক্ষুণœসহ বিভ্রান্তি ছড়ানো ও আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটানোর জন্য পোস্ট করার অপরাধে তাকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। আবার হ্যাকাররা বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের আইডি হ্যাক করে নগদ অর্থ দাবি করে না পেয়ে অ্যাকাউন্ট থেকে আপত্তিকর ছবি এবং পর্নোগ্রাফি ছড়িয়ে দিচ্ছে। এমনকি অনলাইনে হ্যাক করার পদ্ধতিও শেখানো হচ্ছে। দেশের সাইবার ট্রাইব্যুনালে গত ২০১৪ সালে মামলা ছিল ৩২টি, আর ২০১৫ সালে দাঁড়ায় ১৫২টি। এরপর ২০১৬ সালে তা বেড়ে ২৩৩টি হয়েছিল বলে জানা গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, সামাজিক মাধ্যমে ভুয়া আইডি বানিয়ে বিভিন্ন ধরনের অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। সামাজিক মাধ্যমে ছবি বা ভিডিও ছড়িয়ে দিয়ে ধর্ষণ ও খুনের ঘটনাও নতুন না।
শুধু ফেসবুকই নয়, টুইটার, ইমো, হোয়াটস অ্যাপ, ভাইবার, গুগল প্লাস, ইনস্টাগ্রাম, স্কাইপিসহ বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যমের সাহায্যে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছে। এমনকি যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্ষণ, খুন, অপহরণ এবং অর্থ আত্মসাতের ঘটনাও ঘটছে। কিন্তু কোনোভাবেই কার্যকরী ব্যবস্থা নিতে পারছেন না কর্তৃপক্ষ। দেশের বিপুলসংখ্যক মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয়। ওই মাধ্যমকেই কাজে লাগাচ্ছে প্রতারকরা। উল্লেখ্য, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি), ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এবং এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সাইবার অপরাধ তদন্তবিষয়ক সেল রয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত