শিরোনাম

তিন মাসের মধ্যেই প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ

মৌখিক পরীক্ষা শুরু ২৯ জুলাই
প্রিন্ট সংস্করণ॥বেলাল হোসেন  |  ০১:১৭, জুলাই ১৭, ২০১৮

আগামী তিন মাসের মধ্যেই প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক নিয়োগ সম্পন্ন করতে যাচ্ছে সরকার। মামলা জটিলতায় দীর্ঘ প্রায় ৫ বছর পর এই শিক্ষক নিয়োগ দিতে যাচ্ছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিগত ২০১৪ সালের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির আলোকে প্রায় সাড়ে ২৯ হাজার প্রার্থী উত্তীর্ণ হয়েছেন। চলতি মাসের ৮ জুলাই সহকারি শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ করা হয়। সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় ৬ লাখ ১৬ হাজার ৬৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছিলেন। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই) সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৯ জুলাই থেকে ১০ আগস্ট পর্যন্ত মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হবে। এতে দেশের ৬১ জেলার মৌখিক পরীক্ষার জন্য জেলা প্রশাসকের সমন্বয়ে ৬১টি আলাদা ‘ভাইবা কমিটি’ গঠন করা হয়েছে। সূত্র আরও জানায়, আগামী ১০ আগস্টের মধ্যে মৌখিক পরীক্ষা শেষ হবে। পরবর্তী দুই মাসের মধ্যে চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করে অক্টোবরের মধ্যে নিয়োগ কার্যক্রম শেষ করা হবে। সব প্রার্থীর মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে মৌখিক পরীক্ষার সময় জানিয়ে দেয়া হবে। এ সময়ের মধ্যে বাকি তিন জেলাও (পার্বত্য তিন অঞ্চল) স্থানীয়ভাবে মৌখিক পরীক্ষা ও নিয়োগ কার্যক্রম পরিচালিত হবে। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের রোল নম্বরের তালিকা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে পাঠানো হয়েছে যা নোটিশ বোর্ডে প্রদর্শন করা হবে। এছাড়া প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের ওয়েবসাইটে (http://www.dpe.gov.bd/) পাওয়া যাবে। উত্তীর্ণ প্রার্থীরা অনলাইনে আবেদনের আপলোডকৃত ছবি, আবেদনের কপি, লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র, নাগরিকত্ব সনদসহ বিভিন্ন কোটায় অংশগ্রহণকারীদের সনদ ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের অনুলিপি আগামী ১৮ জুলাইয়ের মধ্যে নিজ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে জমা দিয়ে প্রাপ্তি স্বীকারপত্র সংগ্রহ করতে হবে। কাগজপত্র কমপক্ষে ৯ম গ্রেডের গেজেটেড কর্মকর্তার সত্যায়িত হতে হবে। এসব সনদ ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি জমা দেয়ার সময় মূল কপি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে দেখাতে হবে। মৌখিক পরীক্ষা বোর্ডে প্রদর্শনের জন্য সব মূল সনদ, প্রাপ্তি স্বীকারপত্র ও অন্যান্য কাগজপত্রের মূল কপি প্রার্থীকে সঙ্গে আনতে হবে। মৌখিক পরীক্ষার স্থান, তারিখ ও সময় যথাসময়ে প্রার্থীকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস থেকে জানানো হবে এবং প্রার্থীদের অনুকূলে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কার্ড ইস্যু করা হবে। তথ্য অনুযায়ী, দেশের বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শূন্য আসনে রাজস্ব খাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৪’ পরীক্ষার মাধ্যমে ১০ হাজার সহকারী শিক্ষক নেওয়ার সার্কুলার হয়। তার বিপরীতে সারাদেশ থেকে প্রায় ৯ লাখ আবেদন জমা পড়ে। মামলাজনিত কারণে বিগত চার বছর নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত হয়ে পড়ে। চলতি বছরের মার্চে আবারও এ কার্যক্রম শুরু হয়। গত ২০ এপ্রিল প্রথম ধাপের শিক্ষক নিয়োগ লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। সেখানে প্রায় দুই লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা গত ১১ মে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রায় তিন লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। তৃতীয় ধাপের ২৬ মে প্রায় দুই লাখ এবং শেষ ধাপে ১ জুন প্রায় দুই লাখ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত