শিরোনাম

গাসিক নির্বাচনঃ জয় চায় দুই দলই

প্রিন্ট সংস্করণ॥আসাদুজ্জামান আযম  |  ০০:২৯, মে ২৬, ২০১৮

গাজীপুর সিটি করপোরেশন (গাসিক) নির্বাচনের ফল ঘরে তুলতে চায় প্রধান দু’ দল আওয়ামী লীগ-বিএনপি। জয়ের পথের সম্ভাব্য প্রতিবন্ধিকতা কাটাতে কাজ করছে উভয় দলই। খুলনা সিটি নির্বাচন থেকে শিক্ষা নিয়ে গাসিক নির্বাচনের জয় পেতে কৌশল চূড়ান্ত করছে বিএনপি। অন্যদিকে, খুলনার মতো গাসিকের মেয়র পদটিও পুনরুদ্ধার করতে চায় আওয়ামী লীগ। ইসির সূচি অনুযায়ী, আগামী ২৬ জুন গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। প্রচারণা শুরু হবে ১৮ জুন, চালানো যাবে ২৪ জুন রাত ১২টা পর্যন্ত। তথ্য মতে, আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু না হলেও থেমে নেই প্রার্থীরা। ভিন্ন কৌশলে প্রচারণা চলছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অনুষ্ঠান, ইফতার পার্টিসহ অফিসে বসে ভোটপ্রার্থনা করছেন। গত ২১ মে নগরীর ৫৪ নং ওয়ার্ডে টঙ্গী পাইলট স্কুল অ্যান্ড গার্লস কলেজে ‘অভিভাবক সমাবেশ’ করেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর। এরপর তিনি টঙ্গী এলাকার আরও দুটি স্কুলের শিক্ষক, অভিভাবক এবং শ্রমিকদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে ইফতার মাহফিলে যোগ দেন। পরে এই ধরনের কর্মসূচি নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন বলে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করেছেন বিএনপির প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার। অন্যদিকে, হাসান সরকারও বিভিন্ন স্থানে প্রচারণা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ আওয়ামী লীগ নেতাদের। বিএনপি সূত্র মতে, গত ২১ মে গাজীপুর সিটি নির্বাচনের করণীয় নিয়ে দলের সবোর্চ্চ ফোরামের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে গাসিক নির্বাচনে সরকারকে কোন ধরণের ছাড় না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। একই সঙ্গে খুলনা নির্বাচনের ভূল এবং গাজীপুরের মাট রাজনীতি মাথায় রেখে বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের অভ্যন্তরীন কোন্দলের সুযোগ কাজে লাগানো হবে। গাসিক নির্বাচনের প্রতিটি কেন্দ্র পাহারা বসানো হবে। ভোটকেন্দ্র ভিত্তিক নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হবে। পুরো নির্বাচন কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা মাঠে অবস্থান নিবে। কোন ভাবেই সরকার দলীয় লোকজনকে প্রভাব বিস্তার করতে দেওয়া হবে। প্রতিটি কেন্দ্রে ধানের শীষ প্রতীকের এজেন্ট নিশ্চিত করা হবে। যেটা নিশ্চিত করতে না পরায় খুলনায় সরকার দলীয়রা কারচুপি সুযোগ পেয়েছিল। খুলনায় দলের নেতাকর্মীরা ভোট দিলেও মাঠে ছিল না, গাজীপুরে প্রতিটি নেতাকর্মীকে মাঠে নামানো হবে এবং কেন্দ্রীয় ও মহানগরের নেতারাও মাঠে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন বৈঠকে। কেন্দ্রীয় নেতা ও গাজীপুর বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন বলেন খুলনা নির্বাচন থেকে শিক্ষা নিয়ে আমরা গাজীপুরের ব্যাপারে করণীয় চিন্তা করছি। নেতাকর্মীরা ভোটের দিন শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকা নিশ্চিত করা হবে। ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিত করে ঘরে ফিরব। কোন ধরণের কারচুপি হতে দেব না। গাজীপুর নির্বাচনে বিএনপির কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, গাজীপুর সিটি নির্বাচনের কৌশল অবলম্বণ করা হবে। খুলনায় সরকার বাইরে শান্তিপূর্ন দেখালেও ভেতরে কারচুপির কৌশল নিয়েছিল। এবার আমরাও গাজীপুরের মাঠ পর্যলোচনা করে রাজনৈতিক কৌশল নেব। তিনি বলেন, গাজীপুরের মানুষ ধানের শীষে ভোট দিতে মুখিয়ে আছেন। শুধু তাদের ভোটদানের পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।এদিকে, খুলনা সিটির জয়ে খোশ মেজাজে রয়েছে আওয়ামী লীগ। খুলনার ইমেজ কাজে লাগিয়ে গাজীপুরে জয় ছিনিয়ে আনা সহজ হবে বলে মনে করছে দলটির নেতারা। গাজীপুর সিটি নির্বাচন ঘিরে যে দলীয় বিভেট সৃষ্টি হয়েছিল, তা কমিয়ে আনা হচ্ছে। যে কোন মূল্য অভ্যন্তরীন কোন্দল নিরসন করা হবে। ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকার জয় বিজয় নিশ্চিত করবে গাজীপুর আওয়ামী লীগ। ইতোমধ্যে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।এছাড়া গাসিক নির্বাচনে প্রচারণায় অংশ নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে সংসদ সদস্যরা। এটাকে বাড়তি সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাবে আওয়ামী লীগ। গাসিক নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করতে গাজীপুরের দলীয় সাংসদদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি ভোট কেন্দ্র ঘিরে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাকর্মীর সমন্বয়ে কাজ করবে নির্বাচনী টিম। তুলে ধরা হবে-বিএনপি জামায়াতের জ¦ালাও পোড়াও রাজনীতি তথ্য। কেন্দ্রীয় নেতারা দলীয় বিভেদ নিরসনে মাঠে থাকবে। কোথাও সমস্যা হলে সঙ্গে সঙ্গে সমাধাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে। স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা একাট্টা হয়ে গাজীপুরে নৌকার জয় নিশ্চিত করতে কাজ করবে। খুলনার ভোটে বিএনপির বিগত সময়ে জ্বালাও পোড়াও ও মিথ্যাচারের রাজনীতির জবাব মিলেছে, গাজীপুরেও তার প্রতিফলন ঘটবে বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেলন হক এমপি আমার সংবাদ’কে বলেন, গাজীপুরে এখন কোন দলীয় কোন্দল নেই। গাজীপুরে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধভাবে আওয়ামী লীগের সকল স্তরের নেতাকর্মী মাঠে নামবে। খুলনার জনগন উন্নয়নের পক্ষে নৌকায় ভোট দিয়েছে। গাজীপুরেও তা অব্যাহত থাকবে।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত