শিরোনাম
ঈদ-নির্বাচন সামনে রেখে মাঠে সহযোগীরা

পালিয়ে থাকা শীর্ষ সন্ত্রাসীরা মেতেছে খুনের নেশায়

প্রিন্ট সংস্করণ॥আব্দুল লতিফ রানা  |  ০০:৫২, মে ১৬, ২০১৮

রাজধানীসহ দেশব্যাপী বেপরোয়া হয়ে উঠেছে দাগী শীর্ষ সন্ত্রাসীরা। চিহ্নিত এসব সন্ত্রাসীরা আদালত থেকে জামিনে প্রকাশ্যে এসে আবার বিদেশ থেকে তাদের সহযোগীদের দিয়ে মহড়া দিচ্ছেন। শুধু তাই নয়, পালিয়ে থাকা এসব শীর্ষ সন্ত্রাসীরা তাদের পালিত সহযোগী সন্ত্রাসীদের দিয়ে খুনের নেশায় মেতে উঠেছে। সম্প্রতি মালয়েশিয়ায় পালিয়ে থাকা এক শীর্ষ সন্ত্রাসীর নির্দেশে রাজধানীর বাড্ডায় গুলি করে এক ডিস ব্যবসায়ীকে খুনের ঘটনা ঘটেছে। আর এদের কারণেই আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় চরম অস্বস্তি বিরাজ করছে সাধারণ মানুষের মাঝে। শুধু সাধারণ মানুষই নয়, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরাও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির কারণে উদ্বিগ্ন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রোজার মাস শুরু হওয়ার আগেই ঈদকে সামনে রেখে রাজধানীর ফুটপাতকে পুঁজি করে চাঁদাবাজির মহোৎসবে মেতেছে সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজচক্র। এসব সন্ত্রাসীদের দৌরাত্ম্যের কাছে সাধারণ মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছেন। আবার পার্বত্য অঞ্চলে অপহরণ, মানুষ হত্যা এবং চাঁদাবাজির ঘটনা থামছেই না। শুধু তাই নয়, দেশের বিভিন্ন এলাকায় নারী নির্যাতন আগের তুলনায় বেড়েছে। এছাড়া, সরকার সমর্থকদের টেন্ডারবাজির কারণে প্রকৃত ঠিকাদারগণ টেন্ডারে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না। টেন্ডার নিয়ে সরকার সমর্থকদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সহিংস ঘটনাও ঘটছে। ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকার দাবি করলেও বাস্তব চিত্র ভিন্ন বলে অনেক ব্যবসায়ীই মনে করছেন। সূত্র জানায়, আগামী ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় দাগী সন্ত্রাসী, অপহরণকারী, চাঁদাবাজ ও ছিনতাইকারীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। রাজধানীতে অহরহ ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করলেও ফাক-ফোঁকর দিয়েই অসংখ্য ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। শুধু তাই নয়, গভীর রাতে এই চক্রটি নগরীর বিভিন্ন এলাকার বাসা-বাড়ির সিকিউরিটি গার্ডদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মোটরসাইকেল চুরি ও ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। আর এসব ছিনতাইকারীদের হাতে কয়েকজন সিকিউরিটি গার্ড গুরুতর আহত, নিহতও হয়েছেন। নগরীর অভিজাত এলাকা থেকে শুরু করে নিম্নবিত্ত এলাকায়ও ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। একই সাথে চাঁদাবাজিও চলছে বেপরোয়াভাবে। চাঁদাবাজদের হাতেও প্রাণ হারাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। রাজধানীতে শীর্ষ সন্ত্রাসীদের পাশাপাশি পাড়া-মহল্লার মাস্তানরাও চাঁদাবাজিতে নেমেছে। অপরদিকে ঈদকে সামনে রেখে কারাবন্দি সন্ত্রাসীদের নামেও রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় চাঁদাবাজি করার পরিকল্পনা নিয়ে এসব সন্ত্রাসীরা মাঠে নেমেছে। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ফুটপাত দখল করে চাঁদাবাজ, মাস্তান ও স্থানীয় প্রভাবশালীরা ইজারা দিচ্ছে। অনেক এলাকায় ফুটপাত ইজারা শেষে এখন রাস্তা ইজারা দেওয়া শুরু হয়েছে। নগরীর গুলিস্তান এলাকার প্রতিটি রাস্তায় কিছু অংশ দখল করে রেখেছে হকাররা। পয়সার বিনিময়ে হকাররা এসব জায়গার বরাদ্দ পেয়েছেন বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক হকার জানিয়েছেন। রাজধানীর দক্ষিণ বাড্ডায় ডিশ ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক ওরফে বাবুকে (৩০) গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এহত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের করেছে তার পরিবার। গত শনিবার দুপুরে বাড্ডা থানায় বাবুর বাবা মো. ফজলুর রহমান বাদি হয়ে হত্যামামলা দায়ের করেন। বাড্ডা থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী জানিয়েছেন, নিহত বাবুর বাবার দায়ের করা মামলায় (নম্বর-১৩) রবিন, সাফায়াত তানভীর ওরফে রনি, ডালিম, রমজান, হেলাল, শুভ, অভির নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা বেশ কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। এদের মধ্যে তানভীর ডিবি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। আর অন্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি। গত ৯ মে রাত ৯টার দিকে রাজধানীর দক্ষিণ বাড্ডায় ডিশ ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক ওরফে বাবুকে (৩০) প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এরপর মোটরসাইকেলে পালিয়ে যাওয়ার সময় তারা রাস্তার ওপর পড়ে যায়। তখন স্থানীয়দের ধাওয়ার মুখে দুর্বৃত্তরা মধ্য বাড্ডার একটি ভবনে ঢুকে পড়ে। পুলিশ ঘণ্টাব্যাপী অভিযান চালিয়ে সেখান থেকে তিনজনকে আটক করে। এই তিনজনের মধ্যে তানভীর ডিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। ডিশব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক ওরফে বাবু হত্যার পরিকল্পনা হয়েছে মালয়েশিয়ায়। ঢাকায় থাকা সন্ত্রাসীরা পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে। ডিশ ব্যবসা ও এলাকার আধিপত্যের নিয়ন্ত্রণ নিতে বাবুকে দুই দফায় হত্যার চেষ্টা করে সন্ত্রাসীরা। দ্বিতীয়বার সফল হয় তারা। গত বুধবার চুয়াডাঙায় অস্ত্র ও ডাকাতিসহ নয়টি মামলার আসামি ও এলাকার চিহ্নিত জামু-কামরুল বাহিনীর সদস্য মিরাজুল ইসলামকে দামুড়হুদা মডেল থানার পুলিশ গ্রেপ্তার করে। এসময় তার কাছ থেকে রাইফেলের দুটি কার্তুজ উদ্ধার করা হয়। তাকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অস্ত্রের কথা স্বীকার করেন। এরপর এসআই আব্বাস উদ্দিন ও কয়েকজন পুলিশ মিরাজুলকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে যায়। তার গ্রামের বাড়ি হাতিভাঙ্গায় যাওয়ার সময় গোবিন্দহুদা ঈদগাহ মাঠের কাছে পৌঁছালে অস্ত্রধারী দুর্বৃত্তরা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ককটেল ছোড়ে। পুলিশ এসময় আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোড়ে। দুর্বৃত্তরা পাল্টা গুলি ছোড়ে। টানা ২৫ মিনিট ‘বন্দুকযুদ্ধ’ চলে। এতে পুলিশের সঙ্গে থাকা মিরাজুল দুর্বৃত্তের গুলিতে গুরুতর আহত হন। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আউলিয়ার রহমান মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, রাইফেলের দুটি কার্তুজ, দুটি হাতবোমা, একটি রামদা উদ্ধার করা হয়। অপরদিকে ঝালকাঠিতে শিল্পমন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে মেঘনা পেট্রোলিয়াম কোম্পানির ডিপো ব্যবস্থাপকের কাছে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবির মামলায় মো. ইয়াসিন ভূঁইয়া নামে এক চাঁদাবাজ গ্রেপ্তার হয়েছে। গত ৩ মে রাত ৯টার দিকে শহরের পূর্ব-চাঁদকাঠি এলাকার একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। স্থানীয় সূত্র জানায়, সাবেক ছাত্রদল নেতা ইয়াসিন ভূঁইয়া গত ২২ এপ্রিল দুপুরে শহরের ফায়ার সার্ভিস মোড়ের টাউন পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (উপ-পরিদর্শক) মো. বশির উদ্দিন এবং আরও এক পুলিশ সদস্যকে নিয়ে একটি কালো রঙের প্রাইভেটকারে করে মেঘনা ডিপোতে যান। সেখানে ডিপো ব্যবস্থাপকের কক্ষে ঢোকেন তারা। ডিপো ব্যবস্থাপককে একটি শপিং ব্যাগে উপহারসামগ্রী তুলে দিয়ে ইয়াসিন জানান, এ উপহার শিল্পমন্ত্রী পাঠিয়েছেন। এরপর ইয়াসিন মুঠোফোনে একজনের কাছে কল দিয়ে ডিপো ব্যবস্থাপককে শিল্পমন্ত্রী কথা বলবেন বলে ফোন ধরিয়ে দেন। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে ডিপো ব্যবস্থাপককে বলা হয়, ‘ওরা আমার লোক, যা বলে সেই অনুযায়ী কাজ করুন। এরপর ফোন কেটে দিলে ইয়াসিন শিল্পমন্ত্রীর কথা বলে ব্যবস্থাপকের কাছে দুই লাখ টাকা দাবি করেন। বিষয়টি ডিপোতে লাগানো সিসি ক্যামেরায় রেকর্ড হয়। এ ঘটনায় পরের দিন ডিপো ব্যবস্থাপক বাদি হয়ে ঝালকাঠি থানায় মামলা করেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, সামনে জাতীয় নির্বাচন। এই নির্বাচনকে ঘিরে হত্যা, খুনসহ নানা ধরনের অপরাধের ঘটনা সন্ত্রাসীরা ঘটাতে পারে। আর এজন্য দেশের বাইরে পালিয়ে থাকা সন্ত্রাসীরা নানা বেশে দেশে এসে তাদের সহযোগী সন্ত্রাসীদের দিয়ে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটানোর চেষ্টা করছে বলে জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত