শিরোনাম

নাজুক অবস্থা জামান কমিউনিটি সেন্টারের

প্রিন্ট সংস্করণ॥ ফারুক আলম  |  ০২:১৫, এপ্রিল ২৪, ২০১৮

পুরান ঢাকার ১৮১ ওয়াটার ওয়ার্ক রোডের চুরিহাট্টা মসজিদের পাশেই জামান কমিউনিটি সেন্টার। ৫ বছর আগেও সেন্টারটিতে বিয়ে, জন্মদিন ও বিভিন্ন সমাজিক অনুষ্ঠান আয়োজনে জমজমাট ছিল। প্রতিমাসে প্রায় ১ লাখ টাকার বেশি এ সেন্টার থেকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের রাজস্ব আসত। বর্তমানে অব্যবস্থাপনায় মাসে ২-৩টি অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। যা দিয়ে সেন্টারের দেখাভালের কর্মকর্তাদের মাসিক বেতন দেওয়াও সম্ভব নয়। ডিএসসিসি বছরের পর বছর ভর্তুকি দিয়ে কমিউনিটি সেন্টারটি পরিচালনা করছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাকর্মীরা নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে কমিউনিটি সেন্টার ভাড়া নিয়ে সারা রাত অনুষ্ঠান করায় এলাকাবাসীর ঘুমানোর সমস্যা হয়। প্রায়ই এ নিয়ে বাকবিত-ার সৃষ্টি হয়। বেসরকারি কমিউনিটি সেন্টারের মতো যদি ডিএসসিসির কমিউনিটি সেন্টার রাত ১২টায় অনুষ্ঠান বন্ধের ব্যবস্থা করে তাহলে জামান কমিউনিটি সেন্টার পুরোদমে ভাড়া চলবে।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, ডিএসসিসির জামান কমিউনিটি সেন্টারটি ৫ তলা। নিচে রান্নার ব্যবস্থা থাকলেও সেখানে মোটরসাইকেলের গ্যারেজ বানানো হয়েছে। দ্বিতীয়-তৃতীয় তলায় কমিউনিটি সেন্টার, চতুর্থ তলায় ডাক্তারের চেম্বার ও পঞ্চম তলায় পুলিশের থাকার রুম। কমিউনিটি সেন্টারে টয়লেট, বেসিনের ব্যবস্থা নেই। দীর্ঘদিন গ্যাসের বিল পরিশোধ না করায় সংযোগ বিচ্ছিন্ন। কেউ বিয়ে অনুষ্ঠান করতে চাইলে বাইরে থেকে কাঠ ও সিলিন্ডার গ্যাস কিনে রান্না করতে হয়।
স্থানীয়রা জানান, পুরান ঢাকার জামান কমিউনিটির নাজুক অবস্থা। সময়ের আবর্তনে জঞ্জালের ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে। বিয়ে অনুষ্ঠান আয়োজনের ক্ষেত্রে চরম ভোগান্তিতে রয়েছে নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষ। সেন্টারগুলোর সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্টরা যেন মনোযোগী হোন।
জামান কমিউনটি সেন্টার পরিচ্ছন্নের দায়িত্বে থাকা সারোয়ার হোসেন আমার সংবাদকে বলেন, নিচ তলায় স্থানীয় লোকজন মোটরসাইকেল রাখেন। যারা মোটরসাইকেল রেখে যান তাদের বিরুদ্ধে ভয়ে কথা বলার সাহস পাই না। গ্যাসের বিল পরিশোধ করতে না পারায় ৫ মাস আগে গ্যাসের লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এছাড়াও একই ভবনে পুলিশ ও কমিউনিটি সেন্টার থাকায় সহজে কেউ ভাড়া নিতে চান না। ২০০৮ সালে চকবাজার থানার ভবন ভাঙার তিনমাস আগে অস্থায়ীভাবে পুলিশ কমিউনিটি সেন্টারে আশ্রয় নেয় কিন্তু গত ১০ বছরেও পুলিশ এখান থেকে চলে যায়নি। তিনি আরো বলেন, গ্যাসের লাইন থাকাবস্থায় স্থানীয় লোকজন কমিউনিটি সেন্টারে এসে রান্না করে নিয়ে যেত।
গ্যাসের প্রচুর বিল হয়েছে। সেজন্য গ্যাসের লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়।
জামান কমিউনিটি সেন্টারের বিষয়ে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ২৯নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলম বাবুল আমার সংবাদকে বলেন, এই সেন্টারের জরাজীর্ণ অবস্থায় দূর করতে ডিএসসিসির সমাজকল্যাণ বিভাগকে কয়েকবার জানিয়েছি। কমিউনিটি সেন্টারের অসুবিধাগুলো সমাধানে সংশ্লিষ্টদের ইতিবাচক মনোভাব নেই।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত