শিরোনাম

ঝিমিয়ে পড়ছে দুই সিটির মার্কেট নির্মাণ সেল

প্রিন্ট সংস্করণ॥নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১১:১৮, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৮

সিটি করপোরেশনের আওতাধীন ঝুঁকিপূর্ণ ও নতুন মার্কেট নির্মাণে ‘মার্কেট নির্মাণ সেল’ গঠন করা হলেও কাজের গতি নেই। মার্কেট সেলের কর্মকর্তারা অনেকটা ঝিমিয়ে ঝিমিয়ে সময় পার করছেন। সম্প্রতি ডিএসসিসি মার্কেট নির্মাণ সেল বিলুপ্তি ঘোষণা করে প্রত্যেকটি জোন ও বাজার শাখার আওতায় মার্কেট নির্মাণের দায়িত্ব দিলে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। ঝুঁকিপূর্ণ ও নতুন মার্কেট নির্মাণে বিশৃঙ্খলা দূর ও কাজের গতি ফিরিয়ে আনতে পুনরায় ডিএসসিসি মার্কেট নির্মাণ সেল গঠন করে। নতুন এই মার্কেট সেলের বয়স ১০ মাস হলেও উল্লেখযোগ্য কোনো কাজ হাতে পায়নি।

সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্টদের মতে, ডিএনসিসি ও ডিএসসিসিতে মার্কেট নির্মাণ সেল থাকলেও তাদের উল্লেখযোগ্য কাজ নেই। এমনকি ঝুঁকিপূর্ণ ও নতুন মার্কেট নির্মাণে মার্কেট নির্মাণ সেলের কর্মকর্তারা গুরুত্বপূর্ণ কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। সিটি করপোরেশনের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তারাই মার্কেট নির্মাণের সিদ্ধান্তগুলো নিয়ে থাকেন। নতুন মার্কেট নির্মাণে মার্কেট সেলের কর্মকর্তাদের ভূমিকা তেমন একটা নেই। নামে মাত্র মার্কেট নির্মাণ সেল কাজের ক্ষেত্রে কিছুই নয়।

ডিএসসিসির মার্কেট নির্মাণ সেলের দায়িত্বে থাকা এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শর্তে আমার সংবাদকে বলেন, নতুন মার্কেট নির্মাণের লক্ষ্যে ডিএসসিসিতে মার্কেট নির্মাণ সেল গঠন করা হয়েছে। এই সেলের আওতায় নতুন ৩২টি মার্কেট নির্মাণ করার কথা থাকলেও গত ১০ মাসে এ ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বর্তমানে জোনের মাধ্যমেই কিছু মার্কেটের কাজ চলছে। ফলে মার্কেট নির্মাণ সেলের কর্মকর্তারা অলস বসে আছেন।

এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ডিএসসিসির বিভিন্ন মার্কেট এখনো জোনের আওতায় নির্মাণকাজ চালানো হচ্ছে। এসব মার্কেট দেখভাল করছে নগর ভবনের বাজার শাখা। কিন্তু বাজার শাখা মার্কেট নিয়ন্ত্রণ করছে। এরই ফলে মেয়র মহোদয় পুনরায় মার্কেট নির্মাণ সেল গঠন করলেও কাজ নেই।

এদিকে ডিএনসিসির সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে মার্কেট নির্মাণ সেলের কোনো কার্যকারিতা নেই। বিশেষ করে প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক থাকাবস্থায় মার্কেট সেল কিছুটা তৎপর থাকলেও বর্তমানে এই সেলের কর্মকর্তারা ঝিমিয়ে দিন অতিক্রম করছেন। তিনি বলেন, ডিএনসিসির ৩৬টি মার্কেটের মধ্যে ১৪টি ঝুঁকিপূর্ণ। চিহ্নিত এই ১৪ মার্কেট পুনরায় নির্মাণের পরিকল্পনা থাকলেও মার্কেট নির্মাণ সেল তা করতে ব্যর্থ হয়েছে। কারণ এসব ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেটে যেসব ব্যবসায়ী ব্যবসা করছেন, তারা চলতি ব্যবসা বন্ধ করে নতুন করে মার্কেট নির্মাণে সময় দিতে রাজি নন।

ডিএসসিসির মার্কেট নির্মাণ সেলের দায়িত্বে থাকা নির্বাহী প্রকৌশলী মফিজুর রহমান খান আমার সংবাদকে বলেন, ডিএসসিসিতে গত ১০ মাস ধরে মার্কেট নির্মাণ সেল গঠন করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোনো কাজ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। তবে সিদ্দিক বাজার ও কাফরুলে দুটি মার্কেট নির্মাণের জন্য ডিজাইনের কাজ চলছে।

তিনি আরও বলেন, মার্কেট নির্মাণ সেল বিলুপ্তি ঘোষণা করে আবারও নতুন করে মার্কেট সেল গঠন করায় কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে বর্তমানে মার্কেট নির্মাণ সেলে মাত্র তিনজন কর্মকর্তা রয়েছেন। সেজন্য কনসালটেন্ট নিয়োগ দিতে হবে। কনসালটেন্ট নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে একসঙ্গে ৫-৭টি মার্র্কেট নির্মাণের কাজ শুরু করা যাবে। কারণ সিটি করপোরেশনের অধিকাংশ মার্কেটের অবস্থা জরাজীর্ণ। কিন্তু এসব মার্কেটের মধ্যে কিছু মার্কেটে মামলা চলছে। মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় পর্যন্ত মার্কেট নির্মাণ সেল কাজ শুরু করতে পারবে না বলে জানান এ কর্মকর্তা।

সূত্রমতে, দুই সিটি করপোরেশনের ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেটগুলো ভেঙে পুনরায় নির্মাণের জন্য কয়েকবার উদ্যোগ নিলেও ফলপ্রসূ হয়নি। ঝুঁকিপূর্ণ এসব মার্কেটের ব্যবসায়ীরা চলমান ব্যবসা বন্ধ রাখতে নারাজ। তথ্যমতে, দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতায় বর্তমানে ৮৬টি মার্কেট রয়েছে। এরমধ্যে ৩২টি মার্কেটের অবস্থা জরাজীর্ণ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত