শিরোনাম

গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে চকবাজারে আগুন : শিল্পমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ২৩:০৬, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০১৯

শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, পুরান ঢাকার চকবাজার এলাকা অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে ঘটেছে। এই ঘটনার সঙ্গে কেমিক্যালের গোডাউনের কোনো সম্পর্ক নেই।

বৃহস্পতিবার (২১ফেব্রুয়ারি) ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, গতরাতে সেখানে যা ঘটেছে তার সঙ্গে রাসায়নিক পদার্থের কোনো সম্পর্ক নেই। সেখানে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটেছিল।

ভয়াবহ এই আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে ধারণা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, আমি নিজে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এই এলাকায় গ্যাসের স্বল্পতা থাকায় সিলিন্ডারে করে এলপি গ্যাস দিয়ে রেস্টুরেন্ট ও বাসা বাড়িতে রান্নার চালানো হয়। ঘটনার সময় সেখানে গ্যাসের সিলিন্ডার নেওয়া হচ্ছিল।

ওই সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে দুর্ভাগ্যবশত একটি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমারে আগুন লাগে। এতে ট্রান্সফরমারটিও বিস্ফোরিত হয়ে পুরো এলাকা অন্ধাকার হয়ে যায়।

আগুনে পুড়ে যাওয়া ভবন সম্পর্কে শিল্পমন্ত্রী বলেন, সেখানে কেমিক্যালের কোনো গোডাউন নেই, পারফিউম ও কসমেটিক সামগ্রীর গোডাউন আছে। আমি নিজে এটা দেখলাম। কেমিক্যালের সঙ্গে এই ঘটনার সম্পর্ক নেই।

নিমতলি ট্রাজেডির প্রসঙ্গ টেনে মন্ত্রী বলেন, ২০১০ সালে কেমিক্যাল থেকে আগুনের ঘটনা ঘটেছিল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেটাকে সুন্দরভাবে মোকাবিলা করেছেন। ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের প্রক্রিয়াও চলছে।

সেই সঙ্গে তিনি বলেন, অবিলম্বে পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিক সামগ্রীর ব্যবসা কেরাণীগঞ্জে স্থানান্তর করা হবে।

উল্লেখ্য, বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১০টার দিকে চকবাজারের চুড়ি হাট্টায় আগুনের সূত্রপাত হয়। সারা রাত ছিল সেই আগুনের তাণ্ডব। আগুনের লেলিহান শিখা কাউকে রেহাই দেয়নি। না ঘুমন্ত, না পথে চলা মানুষকে। যেখানে যেভাবে পেয়েছে সেভাবেই আগুন গ্রাস করে পথচারী, দোকান কিংবা বাসায় বিশ্রামরত বা বিশ্রামের অপেক্ষায় থাকা মানুষগুলোকেও। দোকানপাটে অবস্থানরত দোকান মালিক, কর্মচারি, ক্রেতারাও রেহাই পাননি আগুনের লেলিহান শিখা থেকে। আহত হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন আরও অনেকে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত