শিরোনাম

১৯শ লাশের দাফন-কাফন হয়েছে যার হাতে

প্রিন্ট সংস্করণ॥সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি  |  ০১:১৯, জানুয়ারি ১৮, ২০১৯

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর এলাকার পাঠানপাড়া মহল্লার মৃত নাজিম খাঁর ছেলে পাশা খাঁ। বর্তমানে তার বয়স ৬০। শাহজাদপুর পৌরসভায় মাস্টাররোলে চাকরি করেন। প্রতিবেশীদের কেউ মারা গেলেই স্বেচ্ছায় লাশ গোসল করানো, কাফনের কাপড় পরানো, কবর খোঁড়া ও কবর দেয়ার কাজের জন্য ছুটে যান তিনি। ১২ বছর বয়স থেকে এভাবে মানুষের শেষ বিদায়ে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে চলেছেন পাশা। এ পর্যন্ত তিনি বিনা পয়সায় এক হাজার নয়শটির বেশি লাশের গোসল ও দাফন সংশ্লিষ্ট কাজে অংশ নিয়েছেন। তার প্রতিবেশীরা বলেন, কেউ মারা গেলে খবর পেয়েই লাশের দাফন-দাফনের কাজ করতে চলে আসেন পাশা। শাহজাদপুর পৌরসভায় কাজ করার পাশাপাশি চুনিয়াখালীপাড়া কবরস্থানে কেয়ারটেকার হিসেবে কাজ করা পাশা জানান, ৪৮ বছর আগের কথা। তার বয়স তখন ১২ বছর। একদিন এক প্রতিবেশীর মৃত্যুর খবর পেয়ে গিয়ে দেখতে পান, লোকের অভাবে মৃত ব্যক্তির লাশের দাফন নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন স্বজনরা। তখন তিনি নিজেই ওই লাশের গোসল করানো, কাফনের কাপড় পরানোসহ দাফনের কাজে লেগে যান। এরপর থেকেই তিনি স্বেচ্ছাশ্রমে লাশ দাফন-কাফনের কাজ করে আসছেন। এতে কেউ তাকে খুশি হয়ে টাকা-পয়সা দিলেও তিনি সেটা নেন না। তিনি আরও জানান, অনেকেই তাকে এ কাজে নিরুৎসাহিত করেছেন। কিন্তু তিনি মানবিক দায় থেকেই এ কাজ করে চলেছেন। এভাবে ১৯০৮টি লাশের দাফন-কাফনে অংশ নিয়েছেন। পাশা খাঁ বলেন, আল্লাহ আমাকে যতদিন বাঁচিয়ে রাখবে ততদিন মানবিক এ কাজটি করে যাবো।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত