শিরোনাম

দারিদ্র্যবিমোচনে নিউ বসুন্ধরার প্রচেষ্টা অব্যাহত

প্রিন্ট সংস্করণ॥এস.এস. সোহান, বাগেরহাট  |  ০১:২৪, অক্টোবর ১৬, ২০১৮

শিক্ষা বিস্তার, দারিদ্র্য বিমোচন, বেকারত্ব দূরীকরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতকরণসহ ভিক্ষুকমুক্ত সমাজ গড়তে প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বাগেরহাটের প্রতিষ্ঠান নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট লিমিটেড। এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল মান্নান তালুকদার জানান, আমরা সততা, আমানতদারি, চরম পেশাদারিত্ব ও জনসেবায় অবদান রেখে ইতোমধ্যে এ অঞ্চলের মানুষের আস্থার কোম্পানিতে পরিণত করতে সক্ষম হয়েছি। এ কোম্পানির সাথে ব্যবসা করে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার মানুষ আর্থিকভাবে স্বাবলম্বি হচ্ছে। আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষে প্রায় ২০ হাজার ব্যবসায়িক অংশীদার রয়েছে, এ প্রতিষ্ঠানে জড়িত এবং সৃষ্টি করেছেন নতুন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট লি. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, ১৯৮৪ সালে সরকারি চাকরিতে প্রবেশ করার পর থেকে চাকরির পাশাপাশি অবসর সময়ে বিভিন্ন ধরণের ব্যবসা করাই। একটা সময় মনে হয় জমি ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যবসা সব থেকে লাভজনক এবং ঝুঁকিমুক্ত। অপ্রাতিষ্ঠানিকভাবে চলতে থাকে আমার ব্যবসা। পরে ২০১০ সালে সরকারি চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করে ব্যবসার প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ এ্যান্ড ফার্মস থেকে নিউ বসুন্ধরা রিয়েল এস্টেট লি. নামে একটি কোম্পানির নিবন্ধন গ্রহণ করি। বর্তমানে এ কোম্পানির অধীনে সাবিল মৎস্য খামার, বাগেরহাট আদর্শ ক্যাডেট একাডেমি, সাবিল ডেইরি ফার্ম, বাগেরহাট ট্রেডিং নামে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান চালু রয়েছে। বর্তমানে এসব প্রতিষ্ঠানের অধীনে শতাধিক লোক কর্মরত আছে। দেশের অন্যতম বৃহত্তম প্রাইভেট জুট মিল এজাক্স জুট মিলস্ লি.ও আমাদের মালিকানাধীন। অতিসত্ত্বর দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে পিরোজপুর শহরের প্রাণকেন্দ্র পুরাতন বাসস্টান্ড মোড়ে সাবিল আধুনিক জেনারেল হাসপাতাল চালু হতে যাচ্ছে। যার নির্মাণ কাজ চলছে। এছাড়া বাগেরহাটে সাবিল ড্রেজিং এ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লি. চালু হওয়ার অপেক্ষায় আছে। প্রকল্পটি চালু হলে এতদাঞ্চলের নদ-নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনাসহ নদী শাসনের ক্ষেত্রে কার্যকরী ভূমিকা রাখবে। অসহায় মানুষদের আশ্রয় ও পুনর্বাসনের লক্ষ্যে নিজস্ব সম্পত্তির উপর অতি শীঘ্রই একটি আদর্শ প্রবীণ নিবাস এর নির্মাণ কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। ব্যবসায়িক অংশীদার ফকিরহাটে মো. আলফাজ উদ্দিন বলেন, নিউ বসুন্ধরা কোম্পানির সাথে আমি ৬ বছর ব্যবসা করি। এখানে ব্যবসা করে আমি স্বচ্ছল জীবন যাপন করছি। এছাড়া আরেক ব্যবসায়িক অংশীদার মোরেলগঞ্জের মো. মাহবুব বলেন, আমি প্রায় ৪ বছর ব্যবসা করছি। প্রথমদিন থেকেই কোম্পানির লেন-দেন সন্তোষজনক। কোম্পানির সাথে ব্যবসা করে পরিবারের সকলকে নিয়ে আর্থিকভাবে ভাল আছি। এমডি নুরুল ইসলাম বলেন, ৮ বছর ধরে কোম্পানির সাথে ব্যবসা করছি। আমার স্ত্রী, ছেলে, মেয়ে সকলেই কোম্পানির সাথে যুক্ত। কোম্পানির সাথে ব্যবসা করার ফলে আমরা খুবই সুখে আছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত