শিরোনাম

নোট বই নিয়ে বিরোধে বিক্ষোভসহ প্রধান শিক্ষক লাঞ্ছিত

প্রিন্ট সংস্করণ॥ সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি  |  ০২:২৯, জানুয়ারি ২০, ২০১৮

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে নোট বই নিয়ে বিরোধ, বিক্ষোভ মিছিলসহ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা ঘটিয়েছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষাথীরা। খবর পেয়ে সরিষাবাড়ী থানার ওসি তদন্ত তাহেরুল ইসলাম এর নেত্বেত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গত বৃহ¯পতিবার উপজেলার চাঁপারকোনা মহেশচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। শিক্ষক ও শিক্ষার্থী সূত্রে জানা গেছে, সরিষাবাড়ী উপজেলার ডোয়াইল ইউনিয়নের চাঁপারকোনা মহেশচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর শিক্ষকদের এক সভায় ৯৫০ জন শিক্ষার্থীদের মানসম্মত প্রকাশনীর সাথে আলোচনা করে শিক্ষার্থীদের জন্য সহায়ক বই ক্রয়ের সিদ্ধান্ত হয়। ওই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২০১৮ সালের অধ্যায়নরত বিভিন্ন শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বছরের শুরুতেই প্রধান শিক্ষক ব্যতিত ১৪ জন শিক্ষক শিক্ষার্থীদেরকে সংসদ সৃজনশীল একের ভিতর সব (অনুশীলনমূলক বই) কেনার তালিকা দেন। সে অনুযায়ী শিক্ষার্থীরা সংসদ গাইড ক্রয় করে। হঠাৎ গত গত বৃহ¯পতিবার শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট সরিষাবাড়ী উপজেলা শাখার প্রতিনিধি প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম লেকচার পাবলিকেশন্স এর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে বিভিন্ন শ্রেণি কক্ষে গিয়ে শিক্ষকদেরকে পাঠ্যপুস্তক তালিকায় লেকচার পাবলিকেশন্স এর বই কেনার জন্য চাপ প্রয়োগসহ অসদাচরণ করেন। ফলে শিক্ষকরা ক্লাস বর্জন করার ঘোষণা দিয়ে ক্লাস থেকে বের হয়ে আসেন। এ ঘটনায় শিক্ষাথীরা শিক্ষকদের সাথে একাত্বতা ঘোষণা করে বিক্ষুব্ধ হয়ে প্রধান শিক্ষকের কক্ষে হামলা চালিয়ে ভাংচুর সহ ২ ঘন্টা প্রধান শিক্ষককে অবরোধ করে রাখে। এ ঘটনায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে চাঁপারকোনা মহেশচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ রফিকুল ইসলাম লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা স্বীকার করে বলেন, ছাত্রদের ভালোর জন্যই শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট সরিষাবাড়ী উপজেলা শাখার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী লেকচার গাইড কেনার জন্য বলা হয়েছে। এ ঘটনার জন্য শিক্ষকদের একটি অংশকে দায়ী করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত