শিরোনাম

নরসিংদীতে জব কর্নারের মাধ্যমে চাকরি পেলেন ৩১৯ জন

সালমা সুলতানা, নরসিংদী  |  ০৬:১৮, মে ১৭, ২০১৯

নরসিংদী জেলা প্রশাসন আয়োজিত চতুর্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলায় স্থাপিত ‘জব কর্নার’-এর মাধ্যমে চাকরিপ্রাপ্ত আরও ৫০ জনের মাঝে আনুষ্ঠানিক নিয়োগপত্র বিতরণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নরসিংদী জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন প্রধান অতিথি থেকে চাকরিপ্রাপ্ত ৫০ জনের মাঝে নিয়োগপত্র তুলে দেন।

এ নিয়ে জব কর্নারের মাধ্যমে চাকরিপ্রাপ্ত হলেন ৩১৯ জন। জেলা প্রশাসন ও চাকরিপ্রাপ্তরা জানান, চতুর্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা-২০১৮ সালে জেলা প্রশাসন নরসিংদীর একটি অন্যতম প্রয়াস ছিল ‘জব কর্নার’ স্থাপন।

জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইনের স্বীয় চিন্তাপ্রসূত এইজব কর্নারের মূল লক্ষ্য ছিল শিল্প অধ্যুষিত নরসিংদী জেলায় বেকারত্বের হার কমানো। উন্নয়ন মেলার সমাপনী দিনেই জেলা প্রশাসক চেম্বার অব কমার্স, নরসিংদীর সহযোগিতায় ১২ জন চাকরি প্রত্যাশীকে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের নিয়োগপত্র হস্তান্তর করেন।

এরই ধারাবাহিকতায় উন্নয়ন মেলায় জব কর্নার হতে সংগৃহীত সিভির মধ্য থেকে যোগ্যতা অনুযায়ী যাচাই-বাছাই পূর্বক ২১১ জনকে প্রাণ আরএফএল গ্রুপ প্রাথমিকভাবে নিয়োগ দেয়।

প্রায় তিনমাস পর নিয়োগপ্রাপ্ত প্রার্থীরা চাকরির প্রাথমিক ধাপ (শিক্ষানবীশকাল) সফলভাবে সম্পন্ন করায় ২১১ জন প্রার্থীকেই গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ প্রাণ আরএফএল পাবলিক স্কুলে এক অনাড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নিয়োগপত্র তুলে দেন নরসিংদীর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন।

পরবর্তীতে আরও ১১টি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের কর্নধারদের সাথে আলোচনাপ্রসূত ফলাফল হিসেবে আরও ৯৬ জনসহ এ পর্যন্ত মোট ৩১৯ জনকে চাকরি দেয়া হয়েছে। এই জব কর্নারের মাধ্যমে ঘোড়াশালস্থ প্রাণ কোম্পানিতে চাকরি পাওয়া রাকিব চৌধুরী ও ফাহমিদা ইয়াসমিন অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, নরসিংদী জেলা প্রশাসকের উন্নয়ন মেলায় জব কর্নারের মাধ্যমে কাগজ জমা নিয়ে চাকরি পেয়ে আমরা খুবই খুশি হয়েছি। এটা আমাদের জীবনের প্রথম চাকরি।

মহতি এ উদ্যোগের জন্য জেলা প্রশাসককে ধন্যবাদ জানিয়ে তারা এই উদ্যোগটি অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানান। পাশাপাশি চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান প্রাণ আরএফএল কোম্পানিকেও ধন্যবাদ জানান তারা।

নরসিংদীর জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, জেলা প্রশাসনের এই মহতি উদ্যোগ ও সংশ্লিষ্ট শিল্পপ্রতিষ্ঠানসমূহের এই সহযোগিতা অনেক পরিবারের মুখে হাসি ফুটিয়েছে। প্রতি বছর আয়োজিত উন্নয়ন মেলা তথা এ সংক্রান্ত জাতীয় আয়োজনে এই ‘জব কর্নার’ স্থাপিত হবে এবং নরসিংদীতে যারা যোগপ্রার্থী আছেন তাদেরকে চাকরি প্রদান করা হবে।

তিনি আরও বলেন, উন্নয়ন মেলার পাশাপাশি প্রয়োজনে আলাদাভাবে ‘জব ফেয়ার’ আয়োজনের মাধ্যমেও প্রত্যাশী ও যোগ্য প্রার্থীদের চাকরি দেয়া হবে। উদ্যোগটিকে টেকসই করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যেই একটি মোবাইল অ্যাপ তৈরি করা হয়েছে।

যার মাধ্যমে চাকরি প্রার্থীরা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবে। উল্লেখ্য, ইতোমধ্যেই এই উদ্যোগটি সমগ্র দেশের জেলা প্রশাসনে সমাদৃত হয়েছে এবং এই উদ্যোগ গ্রহণে কক্সবাজার এবং যশোর জেলা প্রশাসনকে উদ্বুদ্ধ করেছে এবং তারা সেই লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত