শিরোনাম

ইসলামপুরে ছনের কুড়েঘরে দুই প্রতিবন্ধির বসবাস

ইসলামপুর (জামালপুর) প্রতিনিধি  |  ১২:৪৯, মার্চ ১৬, ২০১৯

ইসলামপুরে উপজেলার পাথর্শী ইউনিয়নের মুখশিমলা ফারাজী বাড়ী গ্রাম। ওই গ্রামের দিনজুর মোজাম্মেল হক ফারাজীর ৪ সদস্যের অভাবী পরিবারটি ছন ও আখ পাতার তৈরি পুরনো জরাজীর্ণ একটি কুড়ে ঘরে বসবাস করেন। তার স্ত্রী বুদ্ধি প্রতিবন্ধি এবং কন্যা বাকপ্রতিবন্ধি। তারা অত্যান্ত অভাবী হলেও কেউ তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেনি।

সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, উপজেলার পাথর্শী ইউনিয়নের মুখশিমলা ফারাজী বাড়ী গ্রামের প্রয়াত নবাব আলী ফারাজী আজ থেকে ত্রিশ বছর আগে ইহলোক ত্যাগ করেছেন। মৃত্যুকালে তিনি ৪ ছেলে এনজাদ আলী ফারাজী, নয়া ফারাজী, জিবর রহান ফারাজী এবং মোজাম্মেল হক ফারাজীসহ আরো ৪ মেয়েকে মাত্র ৪ শতাংশের একটি বসত ভিটায় রেখে গেছেন।

ওই বসত ভিটায় রয়েছে ছন ও আখ পাতার তৈরি পুরনো জরাজীর্ণ একটি কুড়ে ঘর, একটি টিনের ছাপরা ঘর এবং ছোট্ট একটি টিনের দোচালা ঘর। বর্তমানে ওই বসত ভিটায় প্রয়াত নবাব আলী ফারাজীর অতিদরিদ্র ৪ ছেলের ৪টি পরিবারের ১৭ জন অভাবী মানুষ বসবাস করছেন।

তন্মধ্যে প্রয়াত নবাব আলী ফারাজীর কনিষ্ঠ পুত্র দিনমজুর মোজাম্মেল হক ফারাজী সবচেয়ে অভাবী। তার ৪ সদস্যের অভাবী পরিবারটি তার পিতার রেখে যাওয়া ছন ও আখ পাতার তৈরি প্রায় ৫০ বছরের পুরনো জরাজীর্ণ একটি কুড়ে ঘরেই বসাবাস করেন। মোজাম্মেল হকের স্ত্রী বুদ্ধি প্রতিবন্ধি এবং কন্যা বাকপ্রতিবন্ধি হলেও আজও কেউ তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেনি।

ইসলাপুরের মুখশিমলা ফারাজী বাড়ী গ্রামের প্রয়াত নবাব আলীর জেষ্ঠ্যপুত্র এনজাদ আলী ফারাজী বলেন, মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে দরিদ্র মানুষের জন্য বহু ঘরবাড়ী নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে বাড়ীঘর বরাদ্দের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের ৪টি অসহায় পরিবারের প্রতি একটু সহানুভুতিশীল হলে তারা বসবাসের জন্য ৪টি বসতঘর পাবেন বলে আশাবাদী।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত