এই ভুলের দায় কার ?

মো:মেহেদী হাসান (রুবেল) | ২২:০১, জানুয়ারি ০২, ২০১৭

“কুসুমকুমারী দাশ” একজন বাঙালি মহিলা কবি। তার রচিত “আদর্শ ছেলে”, যার প্রথম চরণ “আমাদের দেশে হবে সেই ছেলে কবে”, বিভিন্ন পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য সর্বাধিক পরিচিত। কবির জ্যেষ্ঠ পুত্র জীবনানন্দ দাশ বিংশ শতাব্দীর বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান এবং জনপ্রিয় কবি।

অথচ তারই কবিতার মৃত্যু হচ্ছে আজ এই বাংলায়। তিনি আজ অবধি যদি বেঁচে থাকবেন তাহলে আমি নিশ্চিত তিনি এই দুঃখ -কষ্টে আত্মহত্যা করতেন। কেন বলছি জানেন (?)

আমরা আজ আমাদের শিশুদের জন্য সঠিক গাইডলাইন কিংবা শিক্ষার সুষ্ঠ কাঠমো গড়ে তুলতে পুরোপুরি ব্যর্থ ।একদিকে জিপিএ এর আনন্দের সাগরে ভেসে যাচ্ছে দেশ।লাভবান হচ্ছে মিষ্টির দোকানীরা।আমরাও হচ্ছি সন্তুষ্ট ।

আবার অন্যদিকে মহা ধুমধামে চলছে শিক্ষামন্ত্রীর মেয়ের বিয়ে এমন একজনের সাথে যে সবার কাছেই কম বেশী প্রশ্নবিদ্ধ।আর অন্যদিকে কিছু সুবিধাভোগীরা বুক ফুলিয়ে গর্ব করে বলছে যে নতুন বছরে ফ্রি তে বই দিচ্ছি আবারও।আমরাও,আমাদের সাথে আদরের কোমলমতি শিশুরাও খুব খুশি বছরের শুরুতে নতুন বই পেয়ে
কিন্তু ভিতরে ভিতরে কত যে গলদ তা কয়জনই বা লক্ষ্য করছি (?)।

সবাই খুশি ।বাহবা নিচ্ছে।আমরাও তাল মিলিয়ে চলছি ।দিনশেষে ক্ষতি কিন্তু সেই সব আমলা , সুবিধা ভোগীদের হচ্ছে না।হচ্ছে আমার ,আপনার ছেলে ,ভাই বা বোনদের।

তাই বলে এমন ভুল। কি ভাবে ? কে করবে এ সংশোধন? এসব বাচ্চারের ভুলের দায়িত্ব কে নিবে ?

আজ যে বাচ্চাটি তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ে আট- দশ বছর পর সেও তো বড় হবে ।কিন্তু প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত কি হবে ? সাত আট- বছর পর আজকের মত একই জিপিএ তত্বে তারাও আটকে পড়বে।

যেটা কিনা কয়েকমাস (এসএসসির পর)আগেও ছিল টক অব দ্যা কান্ট্রি ।(আমি জিপিএ পাঁচ পেয়েছি -I am a Gpa 5 .).এখনি ভাবার সময়।তা না হলে এই গর্তে তারাও যে পরবেনা তার কি গ্যারান্টি ?

এই ভুল মানিনা। মানবো না ।
প্রথম লাইনেই বড় ভুল। "হবে " শব্দটাই অনুপস্হিত। আবার চতুর্থ লাইনেও গড়মিল ।

আচ্ছা তর্কের খাতিরে চতুর্থ লাইনটি মেনে নিলাম এই অর্থে যে -

(সাধু চলিত মিশ্রণ এর জন্য ৪র্থ লাইনে হইতে শব্দটা পরিবর্তন করা হয়েছে। আর যতি চিহ্ন ব্যবহারের ক্ষেত্রে পরপর ৩টি হাইফেন এর ব্যবহার অপ্রয়োজনীয় বিধায় হয়ত এমনটা করা হয়েছে।)

তবে প্রথম লাইনের ভুল সেটা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

আপনাদের বুঝানোর জন্য ভুল ও একটি সঠিক সব মিলিয়ে দুইটি কবিতায় দিলাম।তুলনা করুন।লাইন বুঝুন।সঠিক তত্ব পাবেন আর ভুলগুলো বুঝতে পারবেন।প্রথম ছবি যেটিতে একটি ছেলের ছবি আছে এটা নতুন বইয়ের ভুল।।
দ্বিতীয় ছবিটি সঠিক ।

পরিশেষে মহিলা কবির উদ্দেশ্য এটুকুই বলবো যে-

“ক্ষমা কর যে জননী ।জ্ঞানপাপীরে ক্ষমা কর। আমরা আজও তোমার প্রাপ্ত সম্মান টুকুও দিতে পারি অথচ তোমার চাওয়া ছিল অল্প।আর আমরা তোমাকে লাঞ্চিত করছি। জনসম্মুখে তোর সন্ভ্রম হানি করছি তোমার'ই লেখা কবিতাকে চরিত্রহরণের মাধ্যমে।”

 

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
close-icon