শিরোনাম

মালয়েশিয়া এয়ারপোর্টে টুরিস্ট ও প্রবাসীদের সঙ্গে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ৮

শেখ সেকেন্দার আলী, মালয়েশিয়া থেকে  |  ১১:২০, মার্চ ০৩, ২০১৯

 

আমি কাস্টমস অফিসার, আমি সিভিল অফিসার, আমি ইমিগ্রেশনের অফিসার, আমি ডিবি পুলিশ, আমি স্পেশাল ব্রাঞ্চে চাকরি করি, এমন সব পদের নাম ব্যবহার করে বিদেশ ফেরত ও ঘুরতে আসা বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের সঙ্গে প্রতারণা চক্রকের ৮ সদস্যকে গ্রেপ্তার করল মালয়েশিয়া পুলিশ।

কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভুয়া অভিবাসন অফিসার সেজে প্রতারণা করার অভিযোগে আট মালয়েশিয়ানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৷ সন্দেহভাজন অভিযুক্ত এই আট মালয়েশিয়ান বিদেশ থেকে আসা পর্যটক ও প্রবাসীদের ব্ল্যাকমেইল করতো ৷

বিমানবন্দর পুলিশ প্রধান এসিপি জুলকিফলি আদমসাহা বলেন, গত বছরে পুলিশ রিপোর্ট দাখিলের পর এই বছরের গত দুই মাসে সন্দেহভাজনদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৷ তাদের বয়স ২৫ থেকে ৫৭ বছরের মধ্যে এবং সবাই পুরুষ ৷

এসিপি জানান, তারা অর্থ হাতিয়ে নেয়ার আগে বিদেশী পর্যটকদের নথিপত্র পরীক্ষা করার অভিনয় করতো ৷ বিশেষ করে তাদের প্রধান লক্ষ্য ছিলো পাকিস্তান, ভারত ও বাংলাদেশ থেকে আসা পর্যটক এবং মালয়েশিয়া থেকে ছুটিতে যাওয়া প্রবাসীদের৷

গত শুক্রবার (১ মার্চ) মালয়েশিয়ার বিমানবন্দরের অপারেশন জেনারেল ম্যানেজার মোহাম্মদ আরিফ জাফর এবং কেএলআইএ রোড ট্রান্সপোর্ট ডিপার্টমেন্ট (জেপিজে) পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের প্রধানের সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে জুলকিফলি বলেছেন, "তারা বিভিন্ন ভাষায় কথা বলতে পারদর্শী ৷ প্রধান উদ্বেগ ছিল যে সন্দেহভাজনরা তাদের অপরাধের বিচারের জন্য অপেক্ষায় আছে এবং তাদের দুই বছরেরও বেশি কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা যেতে পারে ৷''

তিনি আরও জানান, বিমান বন্দর কেন্দ্রিক অন্য আপরাধের সাথে জড়িত সন্দেহে গত বছরে ১৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়ে ছিলো সাথে পাঁচ জনকে বিচারের আওতায় আনা হয়েছে ৷

মোহাম্মদ আরিফ জাফর বলেছেন, অবৈধ কার্যক্রম বিমানবন্দরের ভাবমূর্তিকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ৷ কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা নিয়ে এই সমস্যাগুলির অবসান ঘটাতে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে ৷ এ ছাড়াও তিনি বিমানবন্দরে চাঁদাবাজির শিকার হওয়া যাত্রীদের তথ্য কাউন্টারে অভিযোগ করার পরামর্শ দিয়েছেন ৷

উল্লেখ্য গত বছরের অক্টোবরের শেষে দেশে যাওয়ার সময় এই প্রতিবেদক ঐ প্রতারকদের খপ্পরে পড়ে, প্রথমে আমাকে কিছু প্রশ্ন করার ফর আমি সেগুলোর উত্তর দিই। এক পর্যায়ে একজন পুলিশ এসে তার পরিচয় জিজ্ঞাসা করে এবং তার ন্যাশনাল আইডি কার্ড দেখে পরবর্তীতে পুলিশ তাকে ওখান থেকে নিয়ে চলে যায়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত