শিরোনাম

আফ্রিকায় দোকানে অগ্নিকাণ্ড, ‍৪ বাংলাদেশির নিহত

ফেনী প্রতিনিধি  |  ১২:৫৭, অক্টোবর ২১, ২০১৮

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সাতগ্রাম ইউনিয়নের পাচঁরুখী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে চারটি গুলিবৃদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার (২১ অক্টোবর) ভোরে উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের পাচঁরুখী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে এই লাশ গুলো উদ্ধার করা হয়।উদ্ধারকৃত লাশ গুলো ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

স্থানীয় জানান, একজনের পড়নে ছিল নীল, বেগুনি, সাদা ডোরা ট্রি শার্ট ও ব্লু রংয়ের জিন্সি পেন্ট, গলায় মোটা চেইন। আর একজনের পড়নে কাল ট্রি শার্ট ও নীল জিন্স পেন্ট। আর একজনের পড়নে ছিল লাল হাতাকাটা ট্রি শার্ট ও নীল জিন্স পেন্ট। আর একজনের পড়নে বেগুনি-সাদা ডোরা ট্রি শার্ট ও লুঙ্গী ছিল। রাতে আমরা গুলাগুলির শব্দ শুনতে পেয়েছি। ইউপি চেয়ারম্যান ওয়াদুদ মাহমুদ জানান, ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি শত শত উৎসুক জনতা লাশ দেখতে ভিড় জামাচ্ছে। তবে নিহতের কেউ স্থানীয় না এটা নিশ্চিত।

আড়াইহাজার থানার ওসি এম এ হক জানান, ভোরে এলাকাবাসী মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে লাশ গুলো উদ্ধার করা হয়। প্রতিটি লাশ ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় রয়েছে। মাথায় আঘাত রয়েছে প্রতিটি লাশের। তবে মাথায় গুলি কিনা বলেতে পারেনি পুলিশ। লাশ গুলোর পরিচয় পাওয়া যায়নি। এদের প্রতিটির বয়স ৩০ থেকে ৩৫ এর ভিতরে হতে পারে।

তিনি আরও জানান, ধারণা করা হচ্ছে অন্য কোথায় থেকে মেরে এখানে ফেলে রাখা হয়েছে। লাশের নিকট থেকে ২ টি দেশীয় পিস্তল, ১ রাউন্ড তাজা গুলি ও ১টি প্রাইভেট কার (যার নম্বর ঢাকা মেট্রো চ ১৩-০৫০১) উদ্ধার করা হয়েছে। এরা আসলে ডাকাত কিনা তা নিয়েও তদন্ত চলছে। ইতি মধ্যে ঘটনা তদন্তে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, আমরা ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে থানা পুলিশকে অবগতি করি। পরে থানা পুলিশ গিয়ে লাশ গুলোর সুরত হাল করে মর্গে প্রেরণ করেন। কিভাবে এই ঘটনা ঘটেছে তা জানা যায়নি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ওই যুবকদের অন্যত্র হত্যা করে এখানে ফেলে গেছে কি না ও কখন হত্যা করা হয়েছে তা জানতে হলে ময়না তদন্ত রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত বলা যাচ্ছেনা

এদিকে সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, লাশ উদ্ধারের পর থেকে জনগনের মাঝে আতংক দেখা দিয়েছে। কেউ কোন কথা বলতে রাজি হয়নি। একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, নিহতের একই কায়দায় হত্যা করা হয়েছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি। তবে মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছিল বলে জানা গেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত