শিরোনাম

মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ হাউজে ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

শেখ সেকেন্দার আলী, মালয়েশিয়া থেকে  |  ১১:০৯, সেপ্টেম্বর ০৯, ২০১৮

দল মত নির্বিশেষে বিশ্বের প্রতিটি দেশে বাংলাদেশিদের পরিচয় শুধুই বাংলাদেশি। এখানে নেই কোন ভেদাভেদ নেই কোন দল মত। সবাইকে এক হয়ে বাংলাদেশের সম্মান অর্জন এ আমাদের একযোগে কাজ করতে হবে। আর সেই কাজের মাধ্যমে আমরা খুঁজে পাবো আমাদের সোনার বাংলাদেশ।

প্রবাসে দেশের ভাবমূর্তি তৈরি করতে হলে সকল দ্বিধা-দ্বন্দ ভুলে একযোগে কাজ করতে হবে। কারন আমাদের বাংলাদেশ সারা বিশ্বে এখন সম্মানের চলে এসেছে। এ সম্মানকে দৃঢ়তার সাথে আমাদের ধরে রাখেতে হবে। আর ধরে রাখেতে হলে সকল দ্বিধা-দ্বন্দ ভূলে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন হাইকমিশনার মুহ.শহীদুল ইসলাম।

গতকাল শনিবার (৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে কুয়ালালামপুরস্থ জালান ইউটান্ট হাইকমিশনারের বাসভবন বাংলাদেশ হাউজে অনুষ্টিত ওপেন হাউজডেতে এ আহবান জানান তিনি। বিকেল সাড়ে ৪ টা থেকে শুরু হওয়া ওপেন হাউজডে চলে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত।ওপেন হাউজডেতে বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক, রাজনীতিক, সাংবাদিক, সুশীল সমাজ ও প্রবাসীরা রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে জড়ো হন।

আগত অতিথিদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় এবং সবার খোঁজ খবর নেন হাইকমিশনার ও তার সহধর্মিনী শাহনাজ ইসলাম। প্রবাসীরাও নিজেদের সুখ-দুঃখের কথা রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে ভাগাভাগি করেন। ওপেন হাউজডেতে বিভিন্ন বাঙালি খাবার দিয়ে অতিথিদের আপ্যায়ন করান হাইকমিশনার।

হাইকমিশনার মুহ. শহীদুল ইসলাম বলেন, ঈদের আনন্দ ভাগ করতে মূলত এ আয়োজন। দেরিতে হলেও প্রবাসী সবাইকে একসঙ্গে পেয়ে অনেক ভালো লাগছে। আপনাদের উপস্থিতিতে আমি অত্যন্ত খুশি হয়েছি। প্রবাসীদের নিয়েই আমার কাজ। দূতাবাস সবসময় প্রবাসীদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি আপনাদের সহযোগিতা ছাড়া কোনো কাজ করা সম্ভব নয়।

সারাবিশ্বে পরিশ্রমী জাতি হিসেবে বাংলাদেশিদের বিশেষ মর্যাদা রয়েছে। সাধারণ শ্রমিকদের প্রতি মায়ের জায়গা থেকে সম্মান জানিয়ে প্রবাসীদের উদ্দেশ্য হাই কমিশনার শহীদুল ইসলাম বলেন, শ্রমিকরা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে বিষয়টি লক্ষ্য রাখার দায়িত্ব যেমন সরকারের, তেমনি সবার ওপরই কিছু না কিছু দায়িত্ব বর্তায়। বাংলাদেশের শ্রমিকরা অত্যন্ত পরিশ্রমী। আর মালয়েশিয়ায় কর্মরত অন্যান্য দেশের নাগরিকদের তুলনায় এ দেশের আইন কানুন, নিয়ম, শৃঙ্খলা মেনে চলার ব্যাপারে আলাদা অবস্থান তৈরি করেছে। এটি এই দেশের কর্তৃপক্ষ থেকে শুরু করে সরকার সবাই বিশ্বাস করে। সুদূর প্রবাসে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি তৈরি করতে হলে দ্বিধা-দ্বন্দ ভুলে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহবান জানান হাইকমিশনার।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত