শিরোনাম

মালেশিয়ায় বৈধ হচ্ছে ২ লাখ প্রবাসী

১৮:২৫, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৬

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ জানিয়েছেন, মালয়েশিয়ায় যেসব বাংলাদেশির বৈধ কাগজপত্র নেই, তাদের পর্যায়ক্রমে সেখানে স্থায়ী করে নেয়ার ব্যবস্থা করা হয়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এর ফলে অবৈধভাবে বসবাসকারী প্রায় ২ লাখ প্রবাসী শিগগিরই তারা বৈধ অভিবাসীতে পরিণত হবে।

বুধবার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঢাকায় নিযুক্ত ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত ওয়ানজা কাম্পোজ দা নব্রেগা’র সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে মালয়েশিয়া প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান তিনি। এ সময় সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুনসহ অতিরিক্ত সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট-২০১৬-এর উদ্বোধনে সে দেশে গিয়েছিলাম। সেখানে দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী ড. আহমেদ জাহিদ হামিদির সঙ্গে আমার বৈঠক হয়েছে। তিনি আমাদের মানবসম্পদ বেশি বেশি আমদানি করার বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন।
একইসঙ্গে সে দেশে প্রায় দুই লাখ অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসী রয়েছেন তাদের বৈধ করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে মালয়েশিয়ান সরকার।

তিনি বলেন, এবার সামিটে আমাদের বেশকিছু রফতানিযোগ্য পণ্য প্রদর্শন করেছি। সেখানে আমদের পণ্যের সাড়া বেশ ভালো। ওই সামিটে মালয়েশিয়ার বড় ২০০ কোম্পানি অংশগ্রহণ করেছিল। তাদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বানও করা হয়েছে।

অপর দিকে বৈঠকে ব্রাজিলের বাজারে রপ্তানি পণ্যের উপর শুল্কমুক্ত সুবিধা চেয়েছে বাংলাদেশ। শুল্ক কমানোর বিষয়ে এ বৈঠকে আলোচনা হয়। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দুই দেশের মধ্যে আমাদের প্রায় এক বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য রয়েছে। আমরা ব্রাজিল থেকে আমদানি করি ৯৬৫ মিলিয়ন ডলারের সামগ্রী।

অন্যদিকে রপ্তানি করি মাত্র ১৩৫ মিলিয়ন ডলারের দ্রব্যসামগ্রী। মন্ত্রী বলেন, ব্রাজিলের শুল্ক অনেক বেশি। শুল্ক কমানোর বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশের রপ্তানিকারকরা যাতে ব্রাজিলে রপ্তানির সুযোগ পান, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তোফায়েল আরও বলেন, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বর্তমান ডিজি রোবের্তো আজেবেদো ব্রাজিলের নাগরিক। ওনার মেয়াদ শীঘ্রই শেষ হবে। তিনি আবারও নির্বাচনে অংশ নিতে চান।

এ ক্ষেত্রে আমাদের সমর্থন চেয়েছেন। আমরা বলেছি, অতীতেও আমরা তাকে সমর্থন করেছি। এবারও করবো বলে আশা করছি। তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান নেব। ডিউটি ফ্রি সুবিধার বিষয়ে ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত বলেছেন, বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশ যে ডিউটি ফ্রি, কোটা ফ্রি সুবিধা চেয়েছে, বিষয়টি নিয়ে আমাদের সরকারের সঙ্গে আলোচনা করবো। তিনি আরও বলেন, আমরা বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে চাই।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত