শিরোনাম

বাংলাদেশ থেকে অভিবাসনে সাহায্য করবে ইউএই’র অনটাইম গভর্মেন্ট সার্ভিস

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ২০:০০, এপ্রিল ২৩, ২০১৯

দুর্নীতি ও মানবপাচার দূর করার উদ্দেশ্যে দুবাইভিত্তিক অনটাইম গভর্নমেন্ট সার্ভিসেস তাদের কার্যক্রম ও অভিজ্ঞতা বাংলাদেশেও প্রসারিত করছে। সবধরনের সেবা দিতে দেশের ৩টি জেলায়ও (ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট) শাখা খোলার পরিকল্পনা করেছে সংস্থাটি।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) রাজধানীর গুলশানে বাংলাদেশস্থ সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুতাবাসে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান কর্মকর্তারা। এসময় অনটাইম গভর্নমেন্ট সার্ভিসেসের পক্ষে চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার ওয়ালিদ বিন আবদেল কারিম ও বাংলাদেশে দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থার পক্ষে ইউনিক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহা. নূর আলী ও আর বি ইন্ডাষ্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান পৃথক পৃথক ভাবে সমঝোতা স্মারকে সাক্ষর করেন।

জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) মহাপরিচালক সেলিম রেজা, ঢাকায় নিযুক্ত সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত সাঈদ মোহাম্মদ আলী মেহেরী, প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অভিবাসী অনুকল্যাণ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীনসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা এমওইউ সাক্ষরকালে উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকায় নিযুক্ত ইউএইর রাষ্ট্রদূত সাঈদ মোহাম্মদ আলী মেহেরী জানান, দুই দেশের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। আগামীতে এ সম্পর্ক আরো জোরদার হবে। ইউএই সরকারের পক্ষ থেকে অনটাইম গভর্নমেন্ট সার্ভিসেস ও বাংলাদেশে দায়িত্বপ্রাপ্তদের সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হবে। আশাকরি এতে সবাই উপকৃত হবেন।

সংবাদ সম্মেলনে দুই দেশের সরকারের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে জানানো হয়, আগামী জুনেই অনটাইম ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটে কার্যক্রম শুরু করবে বলে আশা করছে। ঢাকায় বোরাক ট্রাভেলস (প্রাঃ) লিমিটেড, চট্টগ্রামে আর বি ইন্ডাষ্ট্রিজ লিঃ অনটাইম গভর্ণমেন্ট সার্ভিসেসের হয়ে কাজ করবে।

এসব সংস্থা সম্পূর্ণ মানসম্মত এবং অনুমোদিত পরিবেশে সবধরনের ভিসা, মেডিক্যাল, লাইসেন্সিং, কোম্পানিনিবন্ধন, প্রাক-অরিয়েন্টেশন এবং টিকেটিং সেবা প্রদান করবে। অনটাইম থেকে সার্ভিসপ্রাপ্ত কর্মীর মেডিকেল মাত্র একবারই সম্পন্ন করা হবে। এ ছাড়াও সবধরনের ভিসা, অভিবাসী, গ্রাহক, ব্যবসায়ীরাও তাদের ইপ্সিত সেবা পাবেন অনটাইম সার্ভিসেস থেকে।

সংবাদ সম্মেলনে দুই দেশের সরকারের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে জানানো হয় ইউএই সরকারের বিজনেস লাইসেন্সিং ডিপার্টমেন্টের পরিচালক ওয়ালিদ আব্দুল মালিক মোহাম্মদ জানান, অভিবাসনে সহযোগিতা করার লক্ষ্যে অনটাইম বাংলাদেশের জন্য সরকারি এবং ওয়ান স্টপ সেবা দেবে, যেখানে ভিসা খরচ এবং বিদেশে অভিবাসন আগের চেয়ে স্বচ্ছতার সঙ্গে সম্পন্ন করা হবে। মেডিক্যাল হবে শুধু একবার এবং এটি করা হবে অনটাইম সেন্টারগুলোতে যা কর্মীদের জন্য প্রসেসিং সময় কমিয়ে দেবে।

তিনি আরো জানান, গত দুই দশক ধরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সরকারি ও করপোরেট খাতে শীর্ষ সরকারি চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে তারা কাজ করছে। প্রতিবছর প্রতিষ্ঠানটি বিশ লাখের বেশি মানুষকে সেবা দিয়ে আসছে। ভালো মানের সেবার স্বীকৃতি হিসেবে এরইমধ্যে অনটাইম গভর্মেন্ট সার্ভিস বেশকটি পুরস্কারও জিতেছে।

এর মধ্যে রয়েছে মোহাম্মদ বিন রশিদ এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড, এসএমই ফাস্টেস্ট গ্রোয়িং কোম্পানি অ্যাওয়ার্ড, বেস্ট প্রফেশনাল সার্ভিস সেন্টার অ্যাওয়ার্ড, অল ওয়ার্ল্ড নেটওয়ার্ক অ্যারাবিয়া ৫০০ কোম্পানি অ্যাওয়ার্ড, মিডল ইস্ট ফাস্ট গ্রোথ ৫০০ কোম্পানি এবং জিসিসি ফাস্টেট গ্রোথ ১০০ কোম্পানি অ্যাওয়ার্ড।

তিনি জানান, পুরো আরব আমিরাতে অনটাইম গভর্মেন্ট সার্ভিস ২৭টির বেশি সার্ভিস সেন্টার পরিচালনা করে, যাতে ওয়ান স্টপ লোকেশনে বন্ধুত্বপূর্ণ, দক্ষ ও নিয়মিতদের সরকারি চাকরি প্রদান করা যায়। বিশেষ করে আরব আমিরাত ও বিদেশে সরকারি চাকরি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালুতে আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী ও দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতোউমের যে ভিশন রয়েছে, সে অনুযায়ী অনটাইম গভর্মেন্ট সার্ভিস সর্বোচ্চ সেবা দিয়ে যাচ্ছে। দুর্নীতি ও মানবপাচারের অবসান ঘটাতে অনটাইম গভর্মেন্ট সার্ভিস এখন বাংলাদেশেও তাদের কার্যক্রম সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ইতোমধ্যে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠানটি তিনটি শাখা খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যেখান থেকে অভিবাসী, ব্যবসায়ী, গ্রাহক এবং নিয়োগপ্রাপ্ত এজেন্টরা সুন্দর অনুমোদিত পরিবেশে ভিসা, চিকিৎসা, লাইসেন্সিং, প্রাক-অভিযোজন এবং টিকিট পরিসেবা পেতে পারেন।

জানা গেছে, অনটাইম গভর্ণমেন্ট সার্ভিসেস বাংলাদেশ সরকারকে যেমন সাহায্য করবে, তেমনি এখানকার অভিবাসন প্রত্যাশীদের সাহায্য করার লক্ষ্যে যেন ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করা হবে, যেখানে ভিসার খরচ মেটানো থেকে শুরু করে বিদেশে অর্থ স্থানান্তর এবং জনবল নিয়োগসংক্রান্ত বিজ্ঞাপনও দেওয়া হবে। যাতে কোনো অভিবাসী শোষণের শিকার না হন। অনটাইম সেন্টার অভিবাসনপ্রত্যাশীদের প্রয়োজনীয় কাজ সম্পাদনে সময় কমিয়ে আনবে।

এ জন্য বাংলাদেশ সরকার, দূতাবাস, বায়রা, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো, প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং নিয়োগকারী এজেন্সিগুলোর সঙ্গে কাজ করবে। এ ছাড়া শ্রমিকদের বিদেশ যাওয়ার আগে অভিযোজন, সনদপ্রাপ্তি ও নিরাপত্তার বিষয়েও অনটাইম কাজ করবে।

এজন্য প্রতিষ্ঠানটি যে দেশে শ্রমিক যাবে সেখানকার আইন, ধর্ম, সংস্কৃতি, কাজ ও বেতন প্রাপ্তি সম্পর্কে অভিবাসীদের সচেতন করবে। সংস্থাটি একইসঙ্গে ব্যবসায়ীদের বিজনেস লাইসেন্স প্রদান ও প্রক্রিয়াকরণের সময় বাঁচিয়ে সরসরি ভিসা আবেদন এবং হোটেল, ফ্লাইটসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে খরচ কমাবে।

আগামী ছয় মাসে তারা সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়াসহ ৭টি দেশে কার্যক্রম সম্প্রসারণ করে সরকারি অনুমোদনেই ওয়ান স্টপ সেবা দিতে পারবে। মূলত অনটাইমের লক্ষ্য নিরাপদ, স্বচ্ছ ও মানসম্পন্ন সেবা দেওয়া যেন মানুষ এখান থেকে কাঙ্খিত সেবা পায়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত