শিরোনাম

নির্বাচনের পর সারাদেশে অমানুষিক নির্যাতন চালানো হচ্ছে : রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১৫:৩৬, জানুয়ারি ০৯, ২০১৯

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর সারাদেশে অমানুষিক নির্যাতন চালানো হচ্ছে। দেশে গণতন্ত্রের ভিত সম্পূর্ণভাবে ভেঙে গেছে, নিষ্ঠুর দমনে গণতন্ত্র এখন পীড়িত।

বুধবার (০৯জানুয়ারি) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, আহমেদ আজম খান, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মুনির হোসেন, রবিউল ইসলাম রবি, আমিনুল ইসলাম, শাহজাহান মিয়া সম্রাট প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রিজভী বলেন, একাদশ নির্বাচনে ভোট ডাকাতির নির্বাচনের পর এখন সারা দেশে ব্যাপক নির্বাচনী সহিংসতা চালাচ্ছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। এ দেশে গণতন্ত্রের ভিত সম্পূর্ণভাবে ভেঙে গেছে, নিষ্ঠুর দমনে গণতন্ত্র এখন পীড়িত।

রিজভী বলেন, ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দেওয়ার অপরাধে গ্রামের মানুষজনকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। নিরঙ্কুশ কর্তৃত্ব নিশ্চিত করতে একতরফা নির্বাচনের জন্য প্রচারমাধ্যমগুলোকে সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে, যাতে সত্য ঘটনা প্রকাশ হতে না পারে।

দুদকের মাধ্যমে বিএনপির নেতাদের হয়রানির অভিযোগ তুলে রিজভী বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) দিয়ে বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের বিরুদ্ধে আবারও মামলা দায়ের করেছে দুদক।

গত ১০ বছরে সরকারদলীয় নেতা-কর্মীরা লাখ লাখ কোটি টাকা লুট করে নিলেও, সমস্ত ব্যাংক লুট হয়ে গেলেও দুদক চোখ বন্ধ করে বসে আছে। গণমাধ্যমে মন্ত্রী-এমপিদের বিরুদ্ধে সাগরচুরির খবর প্রকাশ করলেও খোদ সংসদে দাঁড়িয়ে সরকারের মন্ত্রীরা সাগরচুরির কথা বললেও দুদক কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

তিনি বলেন, কুমিল্লার মিথ্যা নাশকতার মামলায় বার বার তারিখ পিছিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। ন্যায়বিচার পেলে কুমিল্লায় দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় বিচারিক আদালতে বেগম খালেদা জিয়া জামিন পেতেন। নিম্ন আদালত জামিনও দিচ্ছেন না আবার জামিন নামঞ্জুরও করছেন না। ফলে দেশনেত্রীর উচ্চ আদালতে যাওয়ার পথও রুদ্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। সরকারের নির্দেশেই নিম্ন আদালত বেগম জিয়ার জামিন নিয়ে টালবাহানা করা হচ্ছে বলে দেশবাসী মনে করে।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত