শিরোনাম

২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা দখলের ঘোষণা আ.লীগ জোটের

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ২০:১২, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৮

আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর শনিবার থেকে রাজধানী ঢাকা দখলে রাখার ঘোষণা দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোট। রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে ২৯ সেপ্টেম্বর ১৪ দলীয় জোট সমাবেশ করার ঘোষণা দেওয়ার পর একই দিনে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিও সমাবেশ করার ঘোষণা দেওয়ায় এ মন্তব্য করেন মোহাম্মদ নাসিম।

মঙ্গলবার (২৫সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে মহানগর ১৪ দলের সমাবেশ প্রস্তুতি সভায় এই হুঁশিয়ারি দেন ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেন, জোটের পক্ষ থেকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলা হয়েছে, চক্রান্তকারীরা মাঠে নামবে। আর আমরা দেখবো- জোটের কারা মাঠে নামবে আর কারা নামবে না? ‘আগে থেকেই ঢাকা দখলে ছিল আমাদের। ইনশা আল্লাহ, আগামীতেও ঢাকা আমাদের দখলে থাকবে। শুধু ঢাকা নয়, সারা বাংলাদেশ শেখ হাসিনার দখলে থাকবে।’

জোটের নেতাকর্মীদের যেকোনো চক্রান্তের বিরুদ্ধে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে নাসিম বলেন, ‘আপনারা এলাকায় প্রস্তুত থাকবেন, যেন ওই অপশক্তি (বিএনপি) মাঠে নামতে না পারে। ওদের মাঠে প্রতিহত করবেন, রাস্তায় প্রতিহত করবেন। চক্রান্তকারীরা মাঠে নামবে।’

‘আমরা দেখবো- কারা মাঠে নামবে আর কে নামবে না। আগামী এক মাস আপনাদের কোনো কাজ নেই। ১৪ দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে পাড়া-মহল্লায় আপনারা সজাগ থাকবেন। কোনো চক্রান্ত নৈরাজ্য হলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ইনশা আল্লাহ আমরা প্রতিহত করবো’ যোগ করেন।

আওয়ামী লীগ ও ১৪ দল নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছে জানিয়ে জোটের মুখপাত্র বলেন, ‘নির্বাচনের প্রচার এর কাজ শুরু হয়ে গেছে। আমাদের সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে ইতোমধ্যে জেলা-উপজেলায় নির্বাচনী প্রচারের কাজ শুরু হয়েছে। ১৪ দলের শরিক দলগুলো দেশের বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচনের প্রচারের কাজ শুরু করে দিয়েছে। নির্বাচনের কাজ করে যাচ্ছে।’

আগামী ২৯ সেপ্টেম্বরের সমাবেশ সফল করার আহ্বান জানিয়ে ১৪ দলের সমন্বয়ক বলেন, ‘আপনারা ১৪ দলের প্রোগ্রামে আসবেন। সেখানে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখবেন। ঢাকার প্রতিটি ঘরে ঘরে এ বার্তা পৌঁছে দিতে হবে। ২৯ তারিখ ১৪ দলের সমাবেশ। আপনারা আপনাদের এমপিকে নিয়ে ঘরে ঘরে পৌঁছে যান।’

আওয়ামী লীগ ও ১৪ দল নির্বাচনি প্রচার শুরু করেছে জানিয়ে নাসিম বলেন, ‘নির্বাচনের প্রচারের কাজ শুরু হয়ে গেছে। আমাদের সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে ইতোমধ্যে জেলা-উপজেলায় নির্বাচনি প্রচারের কাজ শুরু হয়েছে। ১৪ দলের শরিক দলগুলোও দেশের বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচনের প্রচারের কাজ শুরু করে দিয়েছে। আমরা চাই এবার প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন হোক। কিন্তু যখন কোনও উত্তপ্ত রাজনীতিবিদরা, দলছুট রাজনীতিবিদরা, যাদের আদর্শের কোনও ঠিকানা নেই, দলের কোনও স্থায়ী ঠিকানা নেই, তারা গণতন্ত্রের কথা বলেন; তখন আমাদের সন্দেহ হয় যে, আবারো সেই অসৎ চক্রান্ত শুরু হয়ে গেছে।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত