শিরোনাম

হুমায়ুন সাঈদীর আরো ২টি জানাজা হবে বুধবার

আমার সংবাদ ডেস্ক  |  ০০:১৭, জুন ২০, ২০১৮

জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছোট ভাই আলহাজ্জ্ব হুমায়ুন কবির সাঈদীর (৫৬) দ্বিতীয় জানাজা বুধবার (২০জুন) সকাল ৯ টায় তার নিজ গ্রাম পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলারএস. ডি মদিনাতুল উলুম দাখিল মাদরাসা ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে।

পরে জোহর নামাজ বাদ মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী প্রতিষ্ঠিত পিরোজপুর শহরের সাঈদী ফাউন্ডেশন মাঠে ৩য় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। ঐ জানাজা শেষে সাঈদী ফাউন্ডেশনের বায়তুল হামদ জামে মসজিদের দক্ষিণ পাশে তার ভাতিজা (কবির সাঈদীর) কবরের পাশে তাকে দাফন করা হবে।

ইন্দুরকানীর এস. ডি মদিনাতুল উলুম দাখিল মাদরাসা মাঠের জানাজায় (দ্বিতীয় জানাজা) ইমামতি করবেন বালিপাড়া ইউনিয়ন আলিম মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল বারী এবং পিরোজপুর সাঈদী ফাউন্ডেশনের মাঠের জানাজায় (তৃতীয় জানাজা) ইমামতি করবেন সদর উপজেলার খানাখুনিয়ারী মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল হালিম।

এর আগে মঙ্গলবার বিকালে ঢাকার মতিঝিল বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মরহুমের ১ম জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। সাঈদীর মেঝ পুত্র শামীম সাঈদী সেই জানাজার নামাজে ইমামতি করেন।

হুমায়ুন কবির সাঈদীর অছিয়তঃমৃত্যুর আগে হুমায়ুন কবির সাঈদী অছিহত করে গিয়েছিলেন তার জানাজার নামাজ যেন তার বড় ভাই মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ইমামতিতে অনুষ্ঠিত হয়। সে কারনে সোমবার মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর পুত্র ইন্দুরকানী উপজেলা চেয়ারম্যান মাসুদ সাঈদী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে সাঈদীকে প্যারোলে মুক্তির জন্য আবেদন করেছিলেন।

কিন্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় তাদের আবেদন গ্রহন করে বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন আছে বলে জানায়। এই আশায় দুপুর দেড়টায় মতিঝিল সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হবার কথা থাকলেও পরে জানাজার সময় পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত বিকাল চার ঘটিকা পর্যন্ত মুক্তির কোন সুরাহা না হওয়ায় ছোট ভাইয়ের জানাজায় অংশগ্রহন করতে পারেন নাই মাওলানা সাঈদী।

সাঈদীর পুত্র মাসুদ সাঈদী জানান, ‘মাওলানা সাঈদীর প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে সরকার আমাদেরকে আশস্থ করলেও একদিন পর মঙ্গলবার বিকাল চার ঘটিকা পর্যন্ত কোন সুরাহা করেনি। সরকার আমাদের সাথে অমানবিক আচরণ করেছে। এ সরকারের কাছ থেকে কোন মানবিক আচরণ আশা করা যায় না।

এর আগে ২০১১ সালের ২৭ অক্টোবর সাঈদীর মাতা গুলনাহার ইউসুফের মৃত্যুর পর এবং তার বড় ছেলে মাওলানা রাফিক বিন সাঈদী’র ২০১২ সালের ১৩ জুন মৃত্যুর পর তিনি প্যারোলে মুক্তি পেয়ে তিনি ২৮ অক্টোবর মায়ের এবং ১৪ জুন ছেলের জানাজার নামাজ পড়ান।

উল্লেখ্য, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছোট ভাই আলহাজ্জ্ব হুমায়ুন কবির সাঈদী (৫৬) সোমবার সকালে ঢাকার ইব্রাহীম কার্ডিয়াক (বারডেম) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত