শিরোনাম

হাতছাড়া করতে চায় না আ.লীগ পুনর্দখলের চেষ্টায় বিএনপি

মো. বেলাল হোসেন মিলন, বরগুনা ॥ প্রিন্ট সংস্করণ  |  ১৩:২৮, জুলাই ৩০, ২০১৭

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পাথরঘাটা-বামনা-বেতাগীতে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীরা। মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন তারা। (১১০) বরগুনা-২ (পাথরঘাটা-বামনা-বেতাগী) আসন ছিল একসময় বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। ২০০৮ সালের নির্বাচনে এটি দখলে নেয় আওয়ামী লীগ। এখন পুনরায় দখলে নেওয়ার চেষ্টা করছে বিএনপি। সারাদেশে যে উন্নয়ন হয়েছে বরগুনা-২ পাথরঘাটা-বামনা-বেতাগী সে উন্নয়ন থেকে পিছিয়ে নেই। এ আসনেও ব্যাপক উন্নয়ন করেছে আওয়ামী লীগ সরকার। তাই দল যাকে মনোনয়ন দেবে সে বিজয়ী হয়ে নেত্রীকে আসনটি উপহার দিতে পারবে বলে মনে করে অধিকাংশ আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী।

আওয়ামী লীগ সরকারের দমন-পীড়ন, গুম-খুন, মামলা-হামলা, জেল- জুলুম, মিছিল-সভা-সমাবেশে বাঁধাসহ বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)র নেতাকর্মীরা হাতছাড়া হওয়া আসনটি পুনরায় দখলে নেওয়ার আশায় বুকবেধে মাঠে নেমেছেন। বিএনপির নেতাকর্মীদের ধারণা এ আসনটি পুনরায় দখলে নিতে পারবেন তারা। বরগুনার তিনটি আসনকে একত্র করে ২০০৮ সালে দুটি আসন করা হয়। পাথরঘাটা-বামনা ও বেতাগী উপজেলা নিয়ে গঠিত (১১০) বরগুনা-২ আসন। এ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী দলীয় সংসদ সদস্য শওকত হাচানুর রহমান রিমন, বরগুনা পৌরসভা থেকে দুবার নির্বাচিত মেয়র শাহদাত হোসেন, কেন্দ্রীয় অর্থবিষয়ক সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র হাওলাদার, সাবেক এমপি গোলাম সবুর টুলুর কন্যা ফারজানা সবুর রুমকি, বামনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান সাইতুল ইসলাম লিটু মৃধার। এ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট আইনজ্ঞ অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও তিনবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য সংস্কারপন্থী বিএনপিনেতা নূরুল ইসলাম মনি, জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও বেতাগী উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান মিয়া। এ আসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম সরোয়ার হিরু। বরগুনা-২ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশা করছেন দলীয় সংসদ সদস্য শওকত হাচানুর রহমান রিমন। তিনি স্থানীয় রাজনীতিতে দলীয় নেতাকর্মীদের নিকট নানা কারণে বিরাগভাজন থাকলেও সাধারণ জনগণের আস্থাভাজন হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছেন। একজন সৎ ও আদর্শবান মানুষ হিসেবে পরিচিত তিনি। ২০০৩ থেকে ২০১৩–এ ১০ বছরে বিস্ময়করভাবে রাজনৈতিক ক্যারিয়ার গড়েন রিমন। ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে মেয়াদ শেষ না হতেই উপজেলা চেয়ারম্যান এবং উপজেলা চেয়ারম্যানের মেয়াদ শেষ না হতেই গোলাম সবুর টুলু এমপির মৃত্যুতে উপনির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে জয়ের হ্যাটট্রিক করেন তিনি। এবারও তিনি মনোনয়ন পাবেন বলে মনে করছেন অধিকাংশ আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী। মনোনয়নপ্রত্যাশী বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট আইনজ্ঞ অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন এবারও মনোনয়ন পাবেন বলে মনে করছেন অধিকাংশ বিএনপি নেতা-কর্মী। জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সংস্কারপন্থী বিএনপিনেতা হিসেবে আলোচিত নুরুল ইসলাম মনিও ‘ক্যারিশমেটিক’ নেতা হিসেবে পরিচিত। তিনবার নির্বাচিত এ এমপিকেই বিএনপি থেকে মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে মনে করছেন তার সমর্থক নেতা-কর্মীরা। বরগুনা পৌরসভা থেকে দুবার নির্বাচিত মেয়র শাহদাত হোসেন নিজ বাড়ি পাথরঘাটা হওয়ায় পাথরঘাটা-বামনা-বেতাগী এলাকায় পোস্টারিং করে আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে নিয়মিত গণসংযোগ করে আসছেন। বরগুনা-২ আসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সম্ভাব্য প্রার্থী গোলাম সরোয়ার হিরু। ইউপি চেয়ারম্যান থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান, এরপর ১৯৯৬ সালে ইসলামী আন্দেলন থেকে মনোনায়ন পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন গোলাম সরোয়ার হিরু।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত