পায়ে হেঁটেই অফিসে গেলেন আইভী

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি | ১৮:৪৭, জানুয়ারি ০৯, ২০১৭

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর দায়িত্ব নিয়ে ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ। কারণ নারায়ণগঞ্জের মানুষের প্রতি আস্থা বিশ্বাস রেখে তিনি আমার হাতে নৌকা প্রতীক তুলে দিয়েছিলেন। নারায়ণগঞ্জ মান সম্মান ইজ্জত রক্ষা করে সেই নৌকায় জনতার রায় ভোট দিয়ে আমাকে এবার নির্বাচিত করেছেন। আমি নারায়ণগঞ্জবাসীর কাছে কৃতজ্ঞ। আপনারা যে সম্মান দিয়েছেন আমি ও আমার পরিবার আপনাদের ঋণ কোনদিনই শোধ করতে পারবো না। তাই জীবনের শেষ বিন্দু পর্যন্ত আমি নারায়ণগঞ্জবাসীর সেবা করতে চাই সবার পাশে থাকতে চাই। আমার বাবা আওয়ামী লীগের হলেও তিনি দল মতের ঊর্ধ্বে উঠে সকলের সেবা করেছেন। আমিও আমার বাবার পথেই কাজ করতে চাই। আমার বাবা কখনো দল ও জনগণের সঙ্গে বেঈমানী করে নাই। আমিও শেখ হাসিনার কর্মী আওয়ামী লীগের কর্মী আমিও কখনো বেঈমানী করবো না এ নারায়ণগঞ্জবাসীর সঙ্গে।

সোমবার ( ০৯ জানুয়ারি) মেয়র হিসেবে দ্বিতীয়বারের মতো দায়িত্ব গ্রহণ করেন সেলিনা হায়াৎ আইভী। গত ২২ ডিসেম্বর সিটি নির্বাচনে জয়ী হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হন তিনি। গত ৫ জানুয়ারি গণভবনে আইভীকে শপথবাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ তিনি সিটি করপোরেশনে নিজ কার্যালয়ে কাজ শুরু করেন।

এ নিয়ে সকাল থেকেই নারায়ণগঞ্জে ছিল উৎসবমুখর পরিবেশ। দেওভোগে আইভীর বাসার সামনে ছিল শত শত মানুষের ভিড়। সবাই অপেক্ষা করতে থাকে আইভীর জন্য।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আইভী নেমে আসেন। উদ্দেশ্য নগর ভবন। পথে এসেই দেখেন কেবল মানুষ আর মানুষ। সবার হাতে ফুল। আর মুহুর্মুহু স্লোগান। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে ‘আইভী’ ‘আইভী’ বলে স্লোগান দিচ্ছে। শত শত মানুষ ততক্ষণে পরিণত হয়েছে হাজার হাজার মানুষে।

পায়ে হেঁটেই নগর ভবনের দিকে রওনা দেন মেয়র। আর এ সময় তাঁর সঙ্গে চলতে থাকেন শত শত মানুষ। এমনকি রাস্তার দুইপাশেও ছিল অগণিত মানুষ। বৃষ্টির মতো ফুল আর ফুলের পাপড়ি ঝরতে থাকে আইভীর ওপর। সোয়া ১১টার দিকে নগর ভবনে পৌঁছান আইভী।

নগর ভবনের বারান্দায় উঠে সবাইকে হাত নেড়ে স্বাগত জানান আইভী। তখনো চলছে স্লোগান। আর বারান্দায় দাঁড়িয়েই আইভীকে ভাষণ দিতে হলো। নারায়ণগঞ্জবাসীর প্রতি আবারও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। অঙ্গীকার করেন, উন্নয়ন অব্যাহত রাখবেন। সন্ত্রাসমুক্ত নগর ভবন ও শীতলক্ষ্যা সেতু নির্মাণ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন মেয়র আইভী।

বক্তব্য শেষে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আইভী। আইভী বলেন, ‘আমি রক্তচক্ষুর পরোয়া না করে পাঁচ বছর জনগণের জন্য শুধু কাজ করে যাব। বোট খাল উন্মুক্ত করে শীতলক্ষ্যা ও বুড়িগঙ্গার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করে দেব। পার্ক ও খেলার মাঠ নির্মাণ করব।’ এ ছাড়া ২৭টি ওয়ার্ড সরেজমিনে দেখে নাগরিক সমস্যা দূর করার কথাও বলেন মেয়র আইভী।

এর আগে, সকাল সাড়ে ১০টায় শহরের দেওভোগের বাসা থেকে বের হয়ে পদযাত্রা করে ২নং রেল গেট হয়ে বঙ্গবন্ধু সড়ক দিয়ে নগরভবনে পৌঁছান আইভী। ওই সময়ে পুরো রাস্তার দুপাশে কয়েক হাজার লোকজন ফুল ছিটিয়ে তাকে শুভেচ্ছা জানান।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৫ মে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন গঠনের পর ওই বছরের ১১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয় প্রথম নির্বাচন। নির্বাচন পর্যন্ত প্রশাসক নিয়োগ ছিল। নির্বাচনে প্রায় লক্ষাধিক ভোটে প্রভাবশালী শামীম ওসমানকে হারিয়ে প্রথম নারী মেয়র নির্বাচিত হন আইভী। ওই বছরের ১ ডিসেম্বর আইভী আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব গ্রহণ করেন। নানা নাটকীয়তার পর এবার গত বছর ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান সেলিনা হায়াৎ আইভী। গত ২৩ নভেম্বর আইভী সিটি করপোরেশন থেকে পদত্যাগ করেন। ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনটি হয় দলীয় প্রতীকে। নৌকা প্রতীক নিয়ে আইভী ৭৯ হাজার ভোটে পরাজিত করেন বিএনপির প্রার্থীকে। গত ৫ জানুয়ারি আইভী ও ৩৬ জন কাউন্সিলর শপথ গ্রহণ করেন।



 

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
close-icon