শিরোনাম

ইয়াবাব্যবসায়ীর সঙ্গে তুলনা করে খালেদাকে অপমান করেছে বিএনপি : হানিফ

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১৭:২৫, মার্চ ১৩, ২০১৯

বিএনপির রাজনৈতিক জনপ্রিয়তা তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে তুলনা করতে গিয়ে ইয়াবাব্যবসায়ীর সঙ্গে তুলনা করে উল্টো খালেদা জিয়াকেই অপমান করেছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। বিএনপির নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারাই প্রমাণ করেছেন আপনাদের নেত্রীর অবস্থান কোথায়?

ইয়াবা ব্যবসায়ীরা চিকিৎসা পায়, খালেদা জিয়া পায় না- সম্প্রতি বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর এমন বক্তব্যের বিপরীতে বুধবার (১৩ মার্চ) বেলা ১১টার দিকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম হলে স্বপ্ন ফাউন্ডেশন আয়োজিত বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা ও অগ্নিঝরা মার্চ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

স্বপ্ন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজের সভাপতিত্বে সভায় অন্যানদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, স্বপ্ন ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. আবু ইউসুফ ফকির, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী।

২৮ বছরের প্রাণের দাবি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে যারা নির্বাচিত হয়েছে তাদের স্বাগত জানিয়ে মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কিছু ভুল বোঝাবুঝি ছিল। তবে জনগণের আস্থা অর্জনে ব্যর্থ বিএনপির এক আবাসিক নেতা এ নিয়ে বিভিন্ন বিব্রতকর বিফ্রিং দিচ্ছেন এবং অপপ্রচার চালাচ্ছেন।

ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক শোভনকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, শোভন নবনির্বাচিত ভিপিকে বুকে টেনে নিয়ে প্রমাণ করে দিয়েছে ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সংগঠন। ডাকসু নির্বাচনে নির্বাচিতদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কল্যাণে কার্যকরী ভুমিকা রাখার আহ্বান করে তিনি স্বপ্ন ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ, স্বাধীনতাসহ অগ্নিঝরা মার্চের বিষয়ে বিষধ বক্তব্য রাখেন।

স্বাধীনতা সংগ্রামে আত্মদানকারীদের বিদেহী আত্মার মাঘফেরাত কামনা করে সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ ২৩ বছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা সংগ্রাম করে আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। স্বাধীনতা সংগ্রামের সে ইতিহাসকেই জিয়াউর রহমান ও তার দল বিকৃত করেছে। যেখানে জাতির জনক ভাষণ দিয়েছেন সেখানেই তারা শিশুপার্ক গড়ে তুলেছেন। ইতিহাসকে মুছে ফেলতেই সেখানে শিশুপার্ক গড়েছিলেন। আমাদের সন্তানদের ইতিহাস জানতে দেওয়া হয়নি।

তবে দীর্ঘদিন হলেও আমাদের সন্তানরা এখন অন্ধকার ছেড়ে আলোতে আসছে। অন্যদিকে বিএনপি ও স্বাধীনতা বিরোধীর শক্তি গণতন্ত্রের চর্চাকে নষ্ট করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা গোটা দেশটাকে সাম্প্রদায়িক বানানোর চেষ্টা করছে। বিএনপি জিয়াউর রহমানের আমল থেকেই পাকিস্তানের এজেন্ট এবং আইএসআইয়ের সঙ্গেও এদের আঁতাত রয়েছে। এরা বাংলাদেশের স্বার্থের বিরুদ্ধে কাজ করছে।

ডাকসু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, শান্তিপূর্ণ ও সুষ্টু পরিবেশে সংগঠিত ডাকসু নির্বাচন নিয়েও তারা অপপ্রচার চালাচ্ছে যাতে করে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের পরিবেশ নষ্ট করতে পারে।

যেখানে বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নয়নের রোল মডেল হতে চলেছে সেখানে তারা পিছনে নিয়ে যেতে চায় দাবি করে তিনি আরও বলেন, সুলতান মনসুর জনগনের ভোটে সংসদে আসছেন বাকিরাও আসবেন। তবে পানি ঘোলাটে করার চেষ্টা করছেন। কিš‘ ৭১ এর মতোই আমরা ঐক্যবদ্ধ আছি থাকবো। বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে সকল অপশক্তিকে নির্বাসিত করে বিতাড়িত না করা গেলে রাজনীতিতে স্ব”ছতা আসবে না।

আবু সাঈদ এমপি তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের সেই ভাষণ ইউনেস্কো প্রায় অর্ধ শতাব্দী পর স্বীকৃতি দিয়েছিল। কিš‘ আমাদের রাষ্ট্রীয় যন্ত্র সেটি চালাতে দেয়নি এমনকি বিটিভি ও বাংলাদেশ বেতারে দীর্ঘ ২১ বছর বঙ্গবন্ধুর নামও উ”চারণ হয়নি। তবু ৭ মার্চের সে ভাষণ-উত্তাপ ছাই চাপা দিয়ে রাখা যায়নি। আর ধাবায়ে রাখা যাবে না এই মূলমন্ত্র নিয়েই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এগিয়ে চলছে। আজ নিজের পায়ে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত