শিরোনাম

সন্ধ্যায় বাংলাদেশে আঘাত হানবে ‘ফণী’ : আবহাওয়া অধিদফতর

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১৭:৩৬, মে ০৩, ২০১৯

১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার গতিতে ঘূর্ণিঝড় ফণী এগিয়ে আসছে। মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। শুক্রবার (৩ মে) সন্ধ্যা ৬টার দিকে ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশে আঘাত হানবে। সন্ধ্যা ৬টা থেকে সারারাত অবস্থান করে আগামীকাল শনিবার (৪ মে) পর্যন্ত এর প্রভাব থাকবে।

শুক্রবার (৩ মে) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে অবস্থিত আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘জনসাধারণ যারা ঝুঁকির মধ্যে আছে, তাদের অবশ্যেই দ্রুত সাইক্লোন সেন্টারে গিয়ে আশ্রয় গ্রহণ করা উচিত।’

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে এই ঘূর্ণিঝড়ের যেদিক দিয়ে প্রবেশ করবে সেদিকে গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৪০ থেকে ১৫০ কিলোমিটার। সারাদেশে সর্বনিম্ন গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৮০ থেকে ১০০ কিলোমিটার। ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার গতিতে ফণী এগ্রিয়ে আসছে। মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। এর আগে দুপুর ১২টায় আবহওয়া অধিদফতর জানিয়েছিল, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ফণী ৫৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিল।

শামছুদ্দিন আহমেদ বলেন, উপকূলীয় জেলা ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহ ৭ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। এছাড়া চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহ ৬ নম্বর সংকেতের আওতায় থাকবে।

ঘূর্ণিঝড় এবং অমাবস্যার প্রভাবে উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, বরগুনা, ভোলা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪-৫ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত