শিরোনাম

রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ড সকল অপরাধীর শাস্তি হোক

প্রিন্ট সংস্করণ  |  ০৮:২০, জুলাই ১৯, ২০১৯

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডে তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জড়িত থাকার বিষয়টি প্রকাশ পেয়েছে। হয়তো মেয়েটা দোষী অথবা কিছুটা দায়ী! মিন্নি অবশ্যই সন্দেহের ঊর্ধ্বে নয়। তবে নিরপেক্ষ তদন্তই বিষয়টির সুরাহা হওয়ার একমাত্র উপায়।

কিন্তু যেভাবে স্থানীয় সাংসদ ও সাংসদ পুত্রের সাঙ্গ-পাঙ্গরা পেছন থেকে কলকাঠি নাড়ছেন তাতে নিরপেক্ষ তদন্ত আশা যেন ভেস্তে না যায়। মামলার ১ নম্বর স্বাক্ষীকে যেভাবে সরাসরি আসামি বানানো হলো ও গ্রেপ্তার করা হলো, তাতে ক্ষমতার বলয়ই ঘনীভূত হচ্ছে নাতো?

যাদের প্রশ্রয়ে নয়ন বন্ডরা তৈরি হলো এবং যাদের পালিত সন্ত্রাসীরা খুন করলো, তাদের সাথেই রিফাতের পিতা অভিযোগ আনলেন পুত্রবধূর বিষয়ে! তাহলে কী পেছনের ক্ষমতাবান রাঘব বোয়ালদের চাপে পড়েই শ্বশুর পুত্রবধূর বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ করলেন?

বড় প্রশ্ন, সাক্ষীকে মানববন্ধনে করা অভিযোগের ভিত্তিতে ত্বরিতগতিতে গ্রেপ্তারের বিষয়টি তদন্তকে প্রশ্নসাপেক্ষ করবে নাতো? নিরপেক্ষ তদন্ত ও জড়িত খুনীদের পৃথক জবানিতে যদি মিন্নির সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি একই মার্জিনে আসতো, তাহলে তার গ্রেপ্তারের বিষয়টি যৌক্তিক হতো।

১৩ ঘণ্টার জিজ্ঞাসাবাদের উছিলায় সাংসদ পুত্রের সাজানো নাটকের ক্ষমতায় বাধ্য হয়ে পুলিশ মিন্নিকে গ্রেপ্তার করেছে কিনা, এটা ঊর্ধ্বতন মহলের ভাবতে হবে। দীর্ঘ ১৩ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে আবার রিমাণ্ড, মানে জোড় করে একটা সূত্র বের করতেই হবে, এমনটি যেন না হয়।

এর আগে রিফাতের বাবা বরগুনা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে মিন্নির গ্রেপ্তার দাবি করেন। তিনি অভিযোগ করেন, এ হত্যার সঙ্গে মিন্নি জড়িত। রিফাতের বাবার এই অভিযোগের ফলে ঘটনা নাটকীয় মোড় নেয় ও মিন্নিকে গ্রেপ্তারের দাবিতে বরগুনা প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করেন, রিফাত হত্যায় তার স্ত্রী মিন্নি জড়িত। ‘বরগুনার সর্বস্তরের জনগণ’-এর ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধনে রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ ও বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ও স্থানীয় সাংসদের ছেলে সুনাম দেবনাথ বক্তব্য দেন।

রিফাত শরীফকে দল বেঁধে কোপানো নয়ন বন্ড ও ফরাজিরা যে কতটা প্রভাবশালী, অপ্রতিরোধ্য, তা বরগুনাবাসীর মুখে মুখে।

জানা যায়, যারা বরগুনায় ‘বন্ড ০০৭’ নামে সন্ত্রাসী গ্রুপ সৃষ্টি করেছেন, তারা খুবই ক্ষমতাবান এবং অর্থবিত্তশালী। ‘বরগুনার সর্বস্তরের জনগণ’-এর ব্যানারে ‘বন্ড ০০৭’ গ্রুপের আশ্রয়দানকারীরাই ছিলো কিনা দেখতে হবে। বন্ড ০০৭ সন্ত্রাসী গ্রুপ।

তাদের মদদদাতারা আরো বড় সন্ত্রাসী। তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি আশা দেশবাসীর। তাই বলে মিন্নি অপরাধী হলে তাকেও ছাড় দেয়া যাবে না। কিন্তু মিন্নিকে ‘বলির পাঠা’ বানিয়ে, ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার কোনো অপচেষ্টা যেনো না হয়।

অবশ্য বরগুনার সর্বস্তরের জনগণের ব্যানারে মানববন্ধনের পর দুপুরে মিন্নি তার বাড়িতে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, ‘যারা বরগুনায় ‘বন্ড ০০৭’ নামে সন্ত্রাসী গ্রুপ সৃষ্টি করিয়েছিলেন, তারা খুবই ক্ষমতাবান এবং অর্থবিত্তশালী।

নেপথ্যের এই ক্ষমতাবানরা বিচারের আওতা থেকে দূরে থাকা ও এই হত্যা মামলাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য তার শ্বশুরকে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করে মানববন্ধন করিয়েছেন।’ প্রভাবশালী বন্ড ০০৭-এর বিরুদ্ধে আঙুল তুলে সংবাদ সম্মেলন করাই মিন্নির কাল হয়েছে কিনা দেখতে হবে।

একটা সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন, এরপরই প্রমাণ পাওয়া, অথচ এর আগের ২০/২২ দিনে মিন্নির বিরুদ্ধে কিছুই পাওয়া গেলো না কেন? এছাড়া ইতোপূর্বে এ মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় অনেক কিছুই অজানা থেকে যায়।

বরগুনার সর্বস্তরের জনগণের ব্যানারে, ঘটনার মোড় ঘুরাতে, স্থানীয় ক্ষমতাসীনদের ছায়ায় এখন যে, কর্মজজ্ঞ শুরু হয়েছে, তাতে খেলার একাদশের পরিবর্তনের মতো ‘বন্ড-ফরাজি গ্রুপ আউট’ মিন্নিকে ফাঁসাতে ‘মিন্নি ইন’ এমনটা যেন না হয়।

ইতোমধ্যে রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ১ নম্বর সাক্ষী ও নিহতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

একথা ঠিক, শুধু মিন্নির রিমান্ডেই সবকিছু বের হবে এমনটা নিশ্চিত বলা যায়না। (অবশ্য গতকাল পুলিশ রিমান্ডে মিন্নি স্বামীকে হত্যা ষড়যন্ত্রে জড়িত বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছে) এখন বড় প্রয়োজন পুলিশের নিরপেক্ষ তদন্ত। সেটি কতদিনে, কতোটা আগাবে বলা মুশকিল।

কাউকে হত্যার পর ন্যায় বিচারও নিহতের কোন উপকারে আসে না। তারপরও যেকোনো নিহতের পরিবার ন্যায় বিচার পেলে, একটু হলেও শান্তনা খুঁজে পান।

আদালত ও প্রশাসন মামলাটির সুষ্ঠু ও ন্যায় বিচার যত দ্রুত করবে, সরকার ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর প্রতি জনগণের শ্রদ্ধাবোধ ততই বাড়বে।

অপরাধীরা অত্যন্ত শক্তিশালী তাও মাথায় রাখতে হবে। পুলিশকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দিলে ও কোনো অযাচিত হস্তক্ষেপ না করলে তারা ঠিকই সব বের করতে পারবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত