শিরোনাম

দৈহিকশক্তি বাড়ায় যেসব খাবার

আমার সংবাদ ডেস্ক  |  ১৬:২১, জুন ০৫, ২০১৮

আমাদের আশপাশে এমন অনেকেই আছেন, যাঁরা শাকসবজি, মাছ, তরকারি, ডিম, দুধ খাওয়ার চেয়ে ওষুধ খেতে বেশি পছন্দ করেন। আর এই ওষুধ খাওয়ার মূল আগ্রহ হচ্ছে, রাতারাতি দৈহিকশক্তি বাড়ানো। শক্তি বাড়ানোর প্রবল মোহে কিছু লোকজন সালসা, টনিক নামের যেকোনো ধরনের উপকরণই নির্দ্বিধায় গলাধঃকরণ করেন। আর এ অবস্থার সুযোগ নেয় একশ্রেণির লেকচারবাজ ওষুধ বিক্রেতা।

এরা শক্তিমত্তার মনোমুগ্ধকর ও কাঙ্ক্ষিত বিভিন্ন উপমা তুলে ধরে ওষুধ সম্পর্কে ক্রেতাদের মনে দুর্বার আকর্ষণের জন্ম দিতে সমর্থ হয়। এতে দেখা যায়, অনেকেই রাস্তাঘাট থেকে বিভিন্ন টনিক কিনে খাচ্ছেন।

আজকাল অনেক ফার্মেসিতে বলবর্ধক, শক্তিবর্ধক, রক্তবর্ধক বিভিন্ন ধরনের টনিক বিক্রি হয়। এসব ওষুধের তেমন কোনো কার্যকারিতা নেই। মজার ব্যাপার হলো, অনেকেই এসব ওষুধ খাওয়ার পর শক্তি বেড়েছে বলে অনুভব করেন। আসলে পুরো ব্যাপারটাই ভ্রান্ত মানসিক নির্ভরতা প্রসূত।

গবেষণায় দেখা গেছে, খাবার মেনুতে নিয়মিত দুধ, ডিম এবং মধু রাখলে এবং নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপন করলে দৈহিক দুর্বলতা দূর হয়। এছাড়া দৈহিক শক্তি বাড়াতে যেসব খাদ্যের প্রয়োজন তা হলো:

*রসুন : দৈহিক সমস্যা থাকলে এখনই নিয়মিত রসুন খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। স্মরণাতীতকাল থেকেই নারী পুরুষ উভয়েরই দৈহিকশক্তি বাড়াতে রসুনের পুষ্টিগুণের কার্যকারিতা সর্বজনস্বীকৃত। রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা দৈহিক ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়।

*ডিম : দৈহিক দুর্বলতা দূর করতে এক অসাধারণ খাবার ডিম। প্রতিদিন সকালে, না পারেন সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ১টি করে ডিম সিদ্ধ করে খান। এতে আপনার দুর্বলতার সমাধান হবে।

*চকলেট : চকলেটে রয়েছে ফেনিলেথিলামিন (পিইএ) ও সেরোটোনিন। এ দুটি পদার্থ আমাদের মস্তিষ্কেও রয়েছে। এগুলো দেহে শক্তির মাত্রা বাড়াতে সহায়ক। পিইএ’র সঙ্গে অ্যানান্ডামাইড মিলে অরগাজমে পৌঁছাতে সহায়তা করে।

*ভিটামিন সি জাতীয় ফল : দৈহিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চাইলে প্রতিদিন খাবার তালিকায় রঙিন ফলমূল রাখুন। আঙ্গুর, কমলা লেবু, তরমুজ, পিচ ইত্যাদি ফল দৈহিক ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী। গবেষণায় দেখা গেছে, একজন পুরুষের প্রতিদিনের খাবার তালিকায় অন্তত ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকলে তার স্পার্মের কোয়ালিটি উন্নত হয়।

*দুধ : যেসব খাবারে বেশি পরিমাণ প্রাণিজ-ফ্যাট আছে এমন প্রাকৃতিক খাদ্য দৈহিক শক্তির উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চান। কিন্তু যদি দৈহিক শক্তির হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সবগুলোকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

*জয়ফল : গবেষণায় দেখা গেছে, জয়ফল থেকে এক ধরনের দৈহিক শক্তি নিঃসৃত হয়। সাধারণভাবে এই যৌগটি রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে দৈহিক শক্তি বৃদ্ধি পায়। কফির সাথে মিশিয়ে জয়ফল খেতে পারলে দুইটির কাজ একত্রে পাওয়া সম্ভব।

*মধু : দৈহিক দুর্বলতার সমাধানে মধুর গুণের কথা সবারই কম-বেশি জানা। তাই দৈহিক শক্তি বাড়াতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ১ গ্লাস গরম পানিতে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে পান করুন।

*গরুর মাংস : গরুর মাংসে প্রচুর জিঙ্ক থাকে। তাই দৈহিক শক্তি বাড়াতে কম ফ্যাটযুক্ত গরুর মাংস খান। যেমন গরুর কাঁধের মাংসে, রানের মাংসে কম ফ্যাট থাকে এবং জিঙ্ক বেশি থাকে। এইসব জায়গার মাংসে প্রতি ১০০ গ্রামে ১০ মিলিগ্রাম জিঙ্ক থাকে।

*কফি : কফি দৈহিক শক্তি বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কফিতে যে ক্যাফেইন থাকে তা শক্তি বাড়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

*কলা : কলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম দৈহিক শক্তি বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ানও। যা শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতেও সহায়ক। আর সর্বোপরি কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ শর্করা যা আপনার দেহের শক্তি বৃদ্ধি করে। ফলে ক্লান্তি আসবে না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত