শিরোনাম

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর সদস্যদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগে হাইকোর্টের রুল

আদালত প্রতিবেদক  |  ১৯:০২, মার্চ ১৩, ২০১৮

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর কর্মরত সহকারী শিক্ষকদেরকে কেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকের শূন্য পদে নিয়োগ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের শূন্য পদে নিয়োগ দিতে সরকারের নিষ্ক্রিয়তা কেনো অবৈধ ঘোষনা করা হবে না তাও জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

ময়মনসিংহ ও পঞ্চগড় জেলার ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর ২৭ জন সদস্যদের দায়ের করা রিট আবেদনে এই রুল জারি করা হয়েছে। ওই রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে মঙ্গলবার বিচারপতি মোঃ আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি কে.এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হইকোর্ট বেঞ্চ এই রুল জারি করেন।

আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রী পরিষদ সচিব, সংস্থাপন সচিব, শিক্ষা সচিব, যুব ও ক্রীড়া সচিবসহ ৬ জনকে এই রুলের জবাব দিতে আদেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। আদালতে রিট-কারীদের পক্ষে শুনানী করেন সুপ্রিম কোর্ট এর আইনজীবী এ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া ও রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এর্টনি জেনারেল বশির আহমেদ।

ময়মনসিংহ জেলার উপজেলা ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর সদস্য, আকলিমা খাতুন, মোহাম্মদ মোস্তফা, মোঃ আকরাম হোসেন, জেবুন নাহার ও পঞ্চগড় জেলার উপজেলা ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর সদস্য মোঃ আনোয়ার হোসেন সহ ২৭ জন এই রিট দায়ের করেন।

জানা যায়, ২০১৫ সালের ময়মনসিংহ ও পঞ্চগড় জেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর আওতায় বেকার যুবক-যুবতী প্রশিক্ষণ শেষে নভেম্বর মাসে চাকরীতে নিয়োগ প্রদান করা হয়। বর্তমানে কর্মরত আছে। বিগত ২০১৪ সালের ৩ এপ্রিল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয একটি “শিক্ষক পুল নীতিমালা ২০১৪” জারি করে। এতে বলা হয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে পুলভুক্ত শিক্ষক ও ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর সদস্যরা অগ্রাধিকার পাবেন। ওই সময় তাদের সমপর্যায়ের স্বীকৃতি দেয়া হয়।

এর মধ্যে পুলভূক্ত শিক্ষকরা হইকোর্টে রিট দায়ের করলে তাদের শিক্ষক পদে নিয়োগের বিষয়টি সরকার বাস্তবায়ন করে ইতিমধ্যে পুলভুক্ত ১৫০১৮ জনকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শক্ষিক পদে স্থায়ীকরণ করা হয়। কিন্তু ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর সদস্যসরা আজও উপেক্ষিত রয়েছেন। তারা বিদ্যমান শুন্য পদে নিয়োগ না পাওয়ায় এই রীট দায়ের করেন।

রিট-কারীদের পক্ষে আইনজীবী এডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া বলেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালায় পুলভুক্ত শিক্ষকদের মতো ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর সদস্যদের সমপর্যায়ের স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। কিন্তু নিয়োগের ক্ষেত্রে পুলভুক্ত শিক্ষকদের নিয়োগ দেয়া হলেও ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচীর চাকরীজীবীদের সহকারী শিক্ষক হিসাবে শুন্য পদে নিয়োগ দেয়া হয়নি। এটা বৈষম্যমূলক এবং বে-আইনী। তাই আদালত রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে রুল জারি করেছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত