শিরোনাম

আপনাদের সকল ক্ষতি পুষিয়ে দিবেন প্রধানমন্ত্রী: সেতুমন্ত্রী

দিনাজপুর প্রতিনিধি  |  ১৬:৩৪, আগস্ট ১৮, ২০১৭

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্দেশে বলেছেন, বন্যায় সহায় সম্বল হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছেন, পথে বসে গেছেন। প্রধানমন্ত্রী আপনাদের সকল ক্ষতি পুষিয়ে দিবেন। আমরা ঘরবাড়ি করে দেব, রাস্তা করে দেব। সব কিছু করবে শেখ হাসিনার সরকার। যতদিন এ এলাকার সব ধরনের পুনর্বাসন না হবে। বন্যার্তরা ঘরবাড়িতে না ফিরে যাবে, ততদিন সার্বিক সকল সহযোগিতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনাদের পাশে থাকবে।

শুক্রবার দুপুরে দিনাজপুরের বিরল উপজেলার রঘুপুর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের বন্যার্ত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। দুপুরের পরে তিনি দিনাজপুর শহরের কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজে আশ্রয় নেয়া বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন। এরপরে তিনি দিনাজপুর-গোবিন্দগঞ্জ মহাসড়কের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত্র এলাকা পরিদর্শন করেন। এর পরে দিনাজপুর সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের উদ্দেশে ব্রিফ করেন মন্ত্রী। এসময় তার সাথে ছিলেন, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি।

তিনি বলেন, ‘শুধু ত্রাণ বিতরণই নয়, বন্যার্তদের পুনর্বাসনে আওয়ামী লীগ সরকার সবসময় পাশে আছে। মনোবল, সাহস যতদিন থাকবে ততদিন আপনাদের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে। কেউ আপনাদের বঞ্চিত করতে পারবেন না। প্রধানমন্ত্রী আসবেন, আপনাদের সুখ-দুঃখ দেখবেন ও বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করবেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা দু-একদিনের জন্য সাহায্য দিতে বা ফটো সেশন করতে আসেনি কিংবা লোক দেখানো রিলিফ দিতে আসিনি। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে এ কথা বলতে এসেছি, যতদিন এই ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় পুনর্বাসন না হবে, অসহায় গরীব মানুষ তাদের ঘর-বাড়িতে ফিরে না যাবে ততদিন সরকার কাজ করবে। এসময় ভেঙে যাওয়া ঘরবাড়ি নতুন করে নির্মাণ করে দেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নির্দেশ দুর্গত মানুষের পাশে দাড়াতে হবে। জনগণের সাথে ক্ষমতার দাপট দেখানো যাবে না। এমন কিছু করবেন না যেন এমপি, মন্ত্রী এবং শেখ হাসিনা সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খালেদা জিয়ার রাজনীতি এখন লন্ডনের টেমস্ নদীর পাড়ে ভ্যানিটি ব্যাগে। বাংলাদেশে তাদের কোনো রাজনীতি নেই। ঈদের আগে আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। আন্দোলনের নামে ৮ বছর চলে গেছে। বিএনপি এখন 'বাংলাদেশ নালিশ পার্টি'।

মন্ত্রী বলেন, বিএনপি'র মরা গাঙ্গে জোয়ার আর আসেনা। ফখরুল ইসলাম সাহেবের তাই কান্নাকাটি। সর্বশেষ সুপ্রিম কোর্টের রায় নিয়ে জড়িয়ে ধরেছে। কিন্তু সেটাও আস্তে আস্তে থেমে গেছে। তাই ফখরুল সাহেবের মন খারাপ। কবে আসবে নেত্রী, কবে আসবে হাওয়া ভবনের যুবরাজ। শুধু অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছেন। আবোল তাবোল বকছেন।

এসময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাবেক মন্ত্রী ও প্রেসিডিয়াম সদস্য সতীশ চন্দ্র রায়, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, দিনাজপুর-৬ আসনের শিবলী সাদিক এমপি, বিরল আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত