শিরোনাম

ঈদের ছুটি ৬ দিন করার প্রস্তাব, সিদ্ধান্ত আজ

০২:৩১, জুন ১৯, ২০১৭

ঈদুল ফিতর এবং ঈদুল আজহার ছুটি বাড়িয়ে ছয়দিন করার প্রস্তাব দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. জহিরউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত ওই প্রস্তাবের সারসংক্ষেপ সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। সারসংক্ষেপটি প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করার পর তা মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করার কথা রয়েছে।

জানা যায়, সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এটি উপস্থাপন করা হবে। মন্ত্রিসভা সায় পেলেই এটি কার্যকর হবে।

প্রস্তাবটি অনুমোদন পেলে এবার ঈদের ছুটি শুরু হবে ২৪ জুন শনিবার থেকে। শেষ হবে ২৯ জুন বৃহস্পতিবার। ছুটির পর দু’দিন সাপ্তাহিক বন্ধ। সবমিলিয়ে এবার ঈদের ছুটি দাঁড়াবে ৯ দিনে। এই ৯ দিন সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

ওই সার সংক্ষেপে বলা হয়, ‘প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ইনোভেশন টিম এর ২৭তম সভায় তিন নম্বর সিদ্ধান্তে পবিত্র ঈদের ছুটির সময় যানবাহনের ওপর মাত্রাতিরিক্ত চাপ, দুর্ঘটনা বৃদ্ধি ও দীর্ঘ ট্রাফিকজামের সৃষ্টি হওয়া এবং ঈদের ছুটির শেষে অফিস খোলার পরবর্তী দুই একদিন কর্মচারীদের উপস্থিতি কম থাকা সত্ত্বেও অফিসের ইউটিলিটি সার্ভিস, লিফট ও গাড়ি চালু রাখতে হয়। এর ফলে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সর্বোচ্চ ব্যবহার হয় না। নৈমিত্তিক ছুটি ২০ দিনের পরিবর্তে ১৪ দিন রেখে বাকি ছয় দিন দুই ঈদের সঙ্গে তিন দিন করে সমন্বয় করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

অর্থাৎ নৈমিত্তিক ছুটি থেকে অতিরিক্ত ৩ দিন করে কেটে নেয়া হবে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বছরে ২০ দিনের নৈমিত্তিক ছুটি থেকে ৩ দিন করে দুই ঈদে মোট ৬ দিন কেটে নিয়ে ঈদের ছুটির সঙ্গে যুক্ত করা হবে।

সার সংক্ষেপে আরো বলা হয়েছে, ‘অন্য ধর্মাবলম্বীরা দুই ঈদের ছুটি ভোগ করলেও তাদের প্রধান দুটি ধর্মীয় উৎসবের সঙ্গে দুইদিন করে চারদিন ঐচ্ছিক ছুটির প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে বিভিন্ন পর্বের জন্য বিদ্যমান ছুটির ভারসাম্য বজায় থাকবে।’

নতুন প্রস্তাবের ব্যাপারে ওই সার সংক্ষেপে আরো বলা হয়, ‘যানবাহনের ওপর চাপ কমবে। দুর্ঘটনা কমবে। ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফিরে আসার প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে। খোলার পর অফিস পুরোদমে চালু হবে।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত