শিরোনাম

সরকারের তিন বছরপূর্তি আজ বিদ্যুতে অভাবনীয় সাফল্য

১১:১৭, জানুয়ারি ১২, ২০১৭

বিদ্যুৎ খাতে অভাবনীয় সাফল্য নিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারের তিন বছরপূর্তি করছে আজ বৃহস্পতিবার। এ উপলক্ষে আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভাষণের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের গত তিন বছরের উন্নয়ন-অগ্রগতি ও সফলতা এবং বাকি দুই বছরে গৃহীত পরিকল্পনা জাতির সামনে তুলে ধরবেন বলে আশা করছেন নীতিনির্ধারকরা। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ১৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে স্বক্ষমতা অর্জন করায় গত ৮ ডিসেম্বর রাজধানীর হাতিরঝিলে এক আলোক উৎসবের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

বর্তমানে দেশের ৭৮ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে। এছাড়া ২০২১ সালের মধ্যেই সকলের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দিতে মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে সরকার। সরকারের মহাপরিকল্পনা অনুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে ২৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা অর্জন করা হবে। ২০৩০ সালের মধ্যে ৪০ হাজার এবং ২০৪১ সালের মধ্যে ৬০ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে ভারত ও ত্রিপুরা থেকে ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করা হচ্ছে। ২০১৭ সালের জুনের মধ্যে আরো ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করা হবে সে দেশ থেকে। ভুটানের জলবিদ্যুৎ প্রকল্পে ২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ। ভারত হয়ে এ বিদ্যুৎ আসবে বাংলাদেশে। গ্যাস স্বল্পতার কারণে ইতোমধ্যেই এলএনজি টার্মিনাল পাইপলাইন নির্মাণের কাজ শেষ করা হয়েছে। ২০১৮ সালের মাঝামাঝি এলএনজি আমদানি করে পাইপলাইনের মাধ্যমে সাপ্লাই দেওয়া হবে। এছাড়া ভোলায় গ্যাসের সন্ধান পাওয়া গেছে। যা আগামীতে উত্তোলন করে গ্যাস সঙ্কট মোকাবেলা করা হবে।

সূত্র মতে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট নিরঙ্কুশ সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেয়ে জয়লাভ করে টানা দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসে। ওই বছরের ১২ জানুয়ারি শেখ হাসিনা তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। সে হিসেবে আজ ১২ জানুয়ারি সরকারের তিন বছরপূর্তি দিবসে সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে এই ভাষণ দেয়ার কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশসহ বেসরকারী টেলিভিশন ও বেতারে সম্প্রচার করা হবে। উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের ৩ বছর এবং আগের ৫ বছরসহ মোট ৮ বছরের সাফল্য এতোদূর এগিয়েছে যে, ২০২১ সালের আগেই মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ। আর এ ধারাবাহিকতায় ২০৪১ সালে হবে উন্নত বাংলাদেশ।

অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, অর্থনীতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যেও বাংলাদেশ ভাল করছে। যা বিশ্ব ব্যাংক, আইএমএফ, বিভিন্ন দাতাদেশ ও সংস্থা, জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিমও এ বছর বাংলাদেশে এসে নিজ চোখে দেখে তা স্বীকার করে গেছেন। তারা এখন বাংলাদেশকে অন্য দৃষ্টিতে দেখে। জিডিপি প্রবৃদ্ধি ২০১৬ সালে ৭ শতাংশের ‘ঘর’ অতিক্রম করেছে। এবছর ৭ দশমিক ২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে বলে আশা করছে সরকার। দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করায় ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের মধ্যে আস্থা ফিরে এসেছে। ফলে দেশের বিনিয়োগ স্থবিরতা অনেকটায় কেটে গেছে। এখন বিদেশিরাও এদেশে বিনিয়োগ করছে। ফলে নতুন নতুন মেগা প্রকল্প হচ্ছে এদেশে।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে রাশিয়ার সহায়তায় ১ লাখ ১৩ হাজার ৯২ কোটি ৯১ লাখ টাকা ব্যয়ে ২৪০০ মেগাওয়াটের রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। যা গত বছরের ৬ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাহী পরিষদে (একনেক) অনুমোদিত হয়। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রকল্প মহেশখালীর মাতারবাড়িতে ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের মোট ব্যয় ৩৬ হাজার কোটি টাকা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা পদ্মাসেতুর রেলসেতু নির্মাণসহ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৪ হাজার কোটি টাকা। রেলসেতুটি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে মাওয়া হয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত যাবে। আর বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের মোট ব্যয় ২৮ হাজার ৬৫১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। প্রকল্পটি এখন ব্যয়ের দিক থেকে চতুর্থ বৃহত্তম প্রকল্প।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত