শিরোনাম

যান্ত্রিক ত্রুটি: পদ্মাসেতুর নবম স্প্যান বসছে না আজ

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি  |  ১২:৫৫, মার্চ ২১, ২০১৯

পদ্মাসেতুর নবম স্প্যান বসানোর প্রক্রিয়া শুরু হলেও শেষ পর্যন্ত তা বসানো হয়নি। কিছু যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে স্প্যানটি বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) বসানো হচ্ছে না। তবে স্প্যানটি পিলারের একেবারে কাছাকাছি নিয়ে রাখা হয়েছে। সেতু নির্মাণকারী চায়না মেজর ব্রিজ এর প্রকৌশলীরা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন, শুক্রবার (২২ মার্চ) স্প্যানটি পিলারের উপর বসানো হবে।

এর আগে বুধবার (২০ মার্চ) দুপুর ২টার দিকে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে স্প্যানটি শরিয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে পৌঁছে। শুক্রবার নবম স্প্যানটি বসানোর পরে দৃশ্যমান হবে পদ্মাসেতুর ১ হাজার ৩৫০ মিটার। ৩৪ ও ৩৫ নম্বর খুঁটির ওপর ৬-ডি নম্বর নবম স্প্যানটি বসবে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকেই পিলারের ওপর নবম স্প্যান বসানোর কাজ শুরু হয়। কিন্তু বেলা সোয়া ১১টার দিকে কিছু যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা যাওয়ায় স্প্যান বসানোর প্রক্রিয়া স্থগিত করা হয়।

ক্রেনে উঠেছে পদ্মাসেতুর নবম স্প্যান
নবম স্প্যানটি লম্বায় ১৫০ মিটার। কুমারভোগ স্টক ইয়ার্ডের জেটি থেকে ৩৬শ টন ওজন ক্ষমতাসম্পন্ন ক্রেনবাহী জাহাজ তিয়ান-ই স্প্যানটি বুধবার জাজিরা নিয়ে যায়। পদ্মাসেতুর কাজ শুরু হয়েছিল চার বছর আগে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই সেতুর কাজ শেষ হওয়ার কথা গত বছরের ডিসেম্বরে থাকলেও প্রকৃতির প্রতিকূলতায় তা কিছুটা পিছিয়েছে। বর্তমান হিসাব মতে ২০২০ সালের শেষ নাগাদ যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হতে পারে পদ্মাসেতু।

পদ্মাসেতু বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্মের পর সবচেয়ে বড় কোনো নির্মাণ কাঠামো। যার নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা।

সেতুর যেসব কাজ এগিয়ে চলেছে

পাইল বসানো পুরোপুরি (পানির উপর ও নিচ) শেষ হয়েছে: ২০০টি

স্প্যান বসানো হয়েছে: ৮টি
যেসব পিয়ারে ৬টি করে পাইল বসছে: পি২-পি৫, পি১৩-পি১৪, পি১৬-পি১৮, পি২০-পি২৩, পি৩৭-পি-৪১

যেসব পিয়ারে ৭টি করে পাইল বসছে: পি৬-পি১২, পি১৫, পি১৯, পি২৪-পি৩৬

স্কিন গ্রাউটেড পাইল ৭৭টি। যা বসবে পি৬-পি১১, পি২৬-পি২৭, পি২৯-পি৩২ নম্বর পিয়ারে

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত