শিরোনাম

বছরের প্রথম বেতন পায়নি ৮ লক্ষ সরকারী মার্কিন কর্মচারী

বিবিসি  |  ১২:২৪, জানুয়ারি ১২, ২০১৯

বছরের প্রথম বেতন পায়নি প্রায় ৮ লক্ষ সরকারী মার্কিন কর্মচারী। সরকারী সেবা আংশিক বন্ধ (গভর্নমেন্ট শাটডাউন) থাকায় বেতন ছাড়াই কাজ করছেন তারা। সরকারী সেবার এক-চতুর্থাংশ বন্ধ থাকায় যুক্তরাষ্ট্রের কারাগার প্রহরী, বিমানবন্দরের কর্মচারী ও এফবিআই এজেন্টরা টানা ২১ দিন ধরে বিনা বেতনে কাজ করে যাচ্ছেন।

গত মাস থেকে আংশিক বন্ধ রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সরকারী সেবা। শনিবার (১২ জানুয়ারি) ২২তম দিনে পদার্পন করেছে এই মার্কিন গভর্নমেন্ট শাটডাউন। চিহ্নিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের সবচেয়ে দীর্ঘতম গভর্নমেন্ট শাটডাউন হিসেবে ।

যুক্তরাষ্ট্র, ট্রাম্প, জরুরী অবস্থা, গভর্নমেন্ট শাটডাউন
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে তার প্রস্তাবিত দেয়াল নির্মাণের জন্য অর্থায়নের অনুমোদন না দেওয়া হলে এই সরকারী সেবা চালু হবে না। কয়েকদিন আগে ডেমোক্র্যাটরা সরকারী সেবা সাময়িকভাবে চালু করার জন্য একটি বিলের প্রস্তাব দেয়। তবে ট্রাম্প জানিয়েছেন, দেয়াল নির্মাণের অর্থায়নের অনুমোদন না পেলে তিনি ওই বিলে স্বাক্ষর করবেন না।

এদিকে বেতন না পেয়ে অনেকেই তাদের ব্যক্তিগত জিনিসপত্র বিক্রি শুরু করেছেন। বিছানা থেকে পুরনো খেলনা প্রায় সবই বিক্রির জন্য অনলাইনে তালিকাভুক্ত হয়েছে। অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে ছুটি নিয়েছেন অনেকে। মিয়ামি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তাদের একটি প্রধান টার্মিনাল কর্মচারীর অভাবে বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে।

সংকট সমাধানে যা করা হচ্ছে…
শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেট শাটডাউন শেষে যাতে কর্মচারীরা তাদের ন্যায্য বেতন পায় তা নিশ্চিত করতে একটি বিল পাশ করেছে। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এখনো ওই বিলে স্বাক্ষর করেননি। যদিও ধারণা করা হচ্ছে তিনি স্বাক্ষর করবেন।

ট্রাম্প তার প্রস্তাবিত দেয়াল নির্মাণে বদ্ধ পরিকর। শুক্রবার তিনি জানিয়েছেন, যদি ডেমোক্র্যাটরা দেয়ালের জন্য অর্থায়নের অনুমোদন না দেয় তাহলে তিনি জাতীয় জরুরি অবস্থা জারি করে দেয়াল নির্মাণ করবেন। পরবর্তীতে অবশ্য তিনি নিজের ঘোষণা থেকে পিছি হটেন। বলেন, আমি খুব শিগগিরই এমন কোন পদক্ষেপ নেবো না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত