শিরোনাম

ফ্রান্সে ভেঙে পড়ার ঝুঁকিতে ৮৪০ সেতু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক  |  ১৯:৩১, আগস্ট ১৯, ২০১৮

ফ্রান্সে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে প্রায় ৮৪০টি সেতু ভেঙে পড়তে পারে। ফ্রান্সের পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের চালানো এক জরিপে এমন ভয়াবহ তথ্য উঠে এসেছে। খবর টেলিগ্রাফের।ফরাসি পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের নিযুক্ত করা দুটি ব্যক্তিগত পরামর্শক কোম্পানির ওই জরিপের ভিত্তিতে গেলো জুলাইয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। তবে ইতালির জেনোয়া ট্র্যাজেডিতে চারজন ফরাসি নাগরিক নিহত হওয়ার পর ওই প্রতিবেদনটি নতুন করে আলোচনায় এসেছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফ্রান্সের প্রায় ৮৪০টি সেতুতে ত্রুটি পাওয়া গেছে, যেগুলো রিইনফোর্ড বা মজবুত না করা হলে ‘ভেঙে পড়ার মতো’ ঝুঁকি রয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, এই সেতুগুলোর এক তৃতীয়াংশই রক্ষণাবেক্ষণ করে সরকার। ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ফ্রান্সে সেতুতে প্রথমবার কোনো ধরনের ফাটল বা ত্রুটি দেখা দেয়ার গড় ২২ বছর পর সংস্কার করা হয়।

এদিকে ত্রুটিপূর্ণ সেতুর তালিকা এখনো জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয়নি। কিন্তু এরইমধ্যে কোন কোন সেতুতে ত্রুটি রয়েছে সেগুলো নির্দিষ্ট করতে ফ্রান্স সরকারের ওপর চাপ বাড়ছে। তবে দেশটির পরিবহণ মন্ত্রণালয় এরমধ্যে কোনো বিপদ খুঁজে পাচ্ছে না। মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা ফ্রান্স ইনফো রেডিওকে বলেন, এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। ওই কর্মকর্তা বলেন, যখন কোনো সেতুকে ‘খারাপ বা খুব খারাপ অবস্থা’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়, তখন আপনাকে এটা মাথায় রাখতে হবে যে, এটি দীর্ঘমেয়াদি ভঙ্গুরতার কথা বলা হচ্ছে।

তিনি বলেন, কোনো অবকাঠামোই মানুষজনের জন্য উন্মুক্ত করা হবে না যদি সেগুলো পুরোপুরি নিরাপদ না হয়। যদি সেগুলোতে বিন্দুমাত্র ঝুঁকি থাকে, তাহলে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কিন্তু ব্রিটিশ স্থপতি নরম্যান ফস্টারের সঙ্গে ফ্রান্সের চার-লেন মোটরওয়ে মিল্লাও ভিয়াদাক্ট সেতুর নকশা করা ফরাসি প্রকৌশলী মাইকেল ভিরলোগক্স এমনটা মানতে নারাজ। তিনি বলেন, অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণের জন্য অর্থ এবং দক্ষ প্রকৌশলীর দরকার। কিন্তু আমি মনে করি ২০ বছর আগের চেয়ে আমাদের লোকবল এখন অনেক কম।

পরিবহণ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তারা অবকাঠামো সংস্কারের জন্য বরাদ্দ ১৫ শতাংশ বাড়িয়েছে। ফরাসি পরিবহণমন্ত্রী এলিজাবেথ বর্ন বলেন, আমরা বরাদ্দ আরও বাড়ানোর পরিকল্পনা করছি। এই শরতেই পার্লামেন্টে এটি নিয়ে আলোচনা হবে। তবে নিকোলাস সারকোজি প্রশাসনে জুনিয়র পরিবহণমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা ডমিনিক বুসেরো বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণে খুব কম অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে। অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণে আমরা বছরে ৭০ কোটি ইউরো ব্যয় করছি, যা ১৩০ কোটি ইউরো হওয়া উচিত ছিল।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত