শিরোনাম

কুর্দি-তুরস্ক যুদ্ধে এবার সিরিয়াও

ডিডাব্লিউ  |  ১৮:৩২, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৮

কুর্দিদের বিরুদ্ধে তুরস্কের যুদ্ধে সরাসরি কুর্দিদের পক্ষ নিলো দামেস্ক৷ সিরিয়া জানিয়ে দিয়েছে আফরিনে সৈন্য পাঠিয়ে কুর্দিদের সাহায্য করা হবে৷ ফলে যুদ্ধ পরিস্থিতি আরো জটিল হলো৷

আবহ প্রস্তুত ছিল৷ যুদ্ধের মঞ্চও তৈরি হয়েই ছিল৷ এবার সরাসরি যুদ্ধের দিকেই এগোচ্ছে সিরিয়া এবং তুরস্ক৷ ঘটনার সূত্রপাত সপ্তাহকয়েক আগে৷ সিরিয়ায় কুর্দি আন্দোলনকারীদের শক্ত ঘাঁটি আফরিনে সৈন্য পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় তুরস্ক৷ তুরস্কের উদ্দেশ্য ছিল, যেনতেনপ্রকারেণ কুর্দি আন্দোলনকারীদের শক্তি ক্ষয় করা৷ সে সময় কুর্দিরা সিরিয়া এবং অ্যামেরিকার কাছে সাহায্য চেয়েছিল৷ তাদের বক্তব্য ছিল, আইএস-এর সঙ্গে লড়াইয়ে কুর্দি আন্দোলনকারীরা সামনে থেকে সাহায্য করেছে আইএসবিরোধী শক্তিকে৷ মার্কিন সেনার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করেছিলেন কুর্দি আন্দোলনকারীরা৷ এখন যখন তাঁদের উপর আক্রমণ নেমে এসেছে, তখন মিত্রশক্তি তাঁদের নিশ্চয়ই সাহায্য করবে৷

কার্যত সেই আবেদনেই সাড়া দিলো সিরিয়া৷ দামেস্ক সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তুরস্কের সঙ্গে কুর্দিদের লড়াইয়ে আফরিনে সৈন্য পাঠাবে সিরিয়া৷ সাহায্য করা হবে কুর্দি আন্দোলনকারীদের৷ শোনা যাচ্ছে, কুর্দি এবং সিরিয়া সরকারের মধ্যে মধ্যস্থতার কাজ করেছে রাশিয়া৷ সিরিয়ার সৈন্য কুর্দিদের সাহায্যে চলে এলে স্বাভাবিকভাবেই লড়াই অন্য মাত্রা পাবে৷ যুদ্ধ আর কেবল আন্দোলনকারীদের সঙ্গে একটি রাষ্ট্রের থাকবে না৷ দু'টি রাষ্ট্রের মধ্যে লড়াই শুরু হবে৷ বিশ্বের শক্তিসাম্যের ক্ষেত্রে যা খুব সুখকর হবে না বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞেরা৷

অ্যামেরিকাও আফরিনে তুরস্কের সৈন্য পাঠানোর বিষয়টি খুব ভালো চোখে দেখেনি৷ প্রকাশ্যেই তুরস্কের সমালোচনা করা হয়েছিল৷ কিন্তু তুরস্ক সরকার কোনো কথাই আমল দেয়নি৷ দীর্ঘদিন ধরেই কুর্দি আন্দোলনকারীরা তাদের টার্গেট৷ শোনা যায়, কুর্দিদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য আইএস জঙ্গিদেরও সাহায্য করেছিল তুরস্ক৷ যদিও শেষপর্যন্ত কূটনীতির চাপে আইএসবিরোধী যুদ্ধে শরিক হতে হয়েছিল তাদের৷ কিন্তু সিরিয়ায় আইএস জঙ্গিরা পরাস্ত হওয়ার পরেই ফের পুরনো শত্রুকে দমনের পথে নেমেছে তারা৷

রাশিয়ার মধ্যস্থতায় সিরিয়া সরকার কুর্দিদের সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ঘটতে চলেছে আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে৷ এক, আরব দুনিয়ার আরো কাছাকাছি চলে গেল তুরস্ক৷ কারণ, একমাত্র আরব দুনিয়াই কুর্দিদের বিরুদ্ধে তুরস্কের যুদ্ধকে মান্যতা দিয়েছে৷ দুই, তুরস্ক প্রশ্নে অ্যামেরিকা আর রাশিয়া আরো কাছাকাছি চলে এলো৷ ভবিষ্যতে এই যুদ্ধ যদি আরো বড় আকার ধারণ করে, তাহলে অ্যামেরিকা এবং রাশিয়া দু দেশই সিরিয়া ও কুর্দ বাহিনীকে সাহায্যের রাস্তা খোলা রেখেছে৷ এবং তিন, কুর্দিদের দীর্ঘদিনের আন্দোলন আন্তর্জাতিক মান্যতা পেলো৷ এখন দেখার, নতুন করে তৈরি হওয়া যুদ্ধ পরিস্থিতিতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন কারও পক্ষ নেয়, নাকি মধ্যপন্থা অবলম্বন করে যুদ্ধ বন্ধের ব্যবস্থা করে৷

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত