শিরোনাম

স্পেন হামলায় জড়িত দুই ভাই, একজন আটক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক  |  ২৩:২২, আগস্ট ১৮, ২০১৭

স্পেনের বার্সেলোনা ও ক্যামব্রিলসে হামলায় জড়িত দুই ভাই। বড় ভাই হামলায় ব্যবহারের জন্য দুটি গাড়ি ভাড়া করেন। আর ছোট ভাই বার্সেলোনায় পথচারীদের ওপর গাড়ি তুলে দিয়ে ১৩ জনকে হত্যা করেন।

স্পেনের গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এখন পর্যন্ত এমন খবরই এসেছে। দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় ড্রিস ওকাবিরকে (২০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ছোট ভাই মওসা ওকাবিরকে (১৮) হন্যে হয়ে খোঁজা হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আরও তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বার্সেলোনায় বৃহস্পতিবার হামলার পর দেশটির গণমাধ্যমে সন্দেহভাজন একজন হামলাকারীর নাম প্রকাশ করা হয়। এমনকি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তার ছবিও ছড়িয়ে পড়ে। স্পেনের গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, সন্দেহভাজন ওই হামলাকারীর নাম মওসা ওকাবির। সে ড্রিস ওকাবিরের ভাই। ড্রিস হামলায় ব্যবহৃত গাড়ি দুটি ভাড়া করে।

স্প্যানিশ গণমাধ্যমকে পুলিশ জানিয়েছে, তারা মওসা ওকাবিরের খোঁজ করছে। কিন্তু পুলিশ সরাসরি বলছে না যে হামলায় ব্যবহৃত গাড়িটিতে চালকের আসনে বসে থাকা ব্যক্তিই সে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে নেওয়া মওসা ওকাবিরের দুটি ছবিও স্প্যানিশ গণমাধ্যমে ব্যবহার করা হয়েছে।

গণমাধ্যমের খবর, বার্সেলোনায় লাস র‍্যামব্লাসে পর্যটক ও স্থানীয় লোকজনের ওপর হামলার পর গাড়ির চালক পালিয়ে যান। কাতালোনিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জোকিম ফোরো অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে বলেন, ‘হামলার সময় ঘটনাস্থলে আমাদের পুলিশ ছিল। কিন্তু পুলিশ তাকে গুলি করতে পারেনি। কারণ, র‍্যামব্লাসের রাস্তায় প্রচুর মানুষ ছিল।’

স্প্যানিশ গণমাধ্যম বলছে, ড্রিস ওকাবির দুটি গাড়ি ভাড়া করেন। তার একটি র‍্যামব্লাসে হামলায় ব্যবহার করা হয়। আর অন্যটি হামলার কয়েক ঘণ্টা পর বার্সেলোনার উত্তরে ভিক শহর থেকে উদ্ধার করা হয়। পরে ড্রিস ওকাবিরকে গ্রেফতার করা হয়। ড্রিস ওকাবির মরক্কোতে জন্মগ্রহণ করেন। ড্রিস পুলিশকে জানান, হামলার ঘটনার সঙ্গে তিনি জড়িত নন। তাঁর প্রয়োজনীয় ব্যক্তিগত কাগজপত্র চুরি হয়ে গেছে।

এ ঘটনায় শুক্রবার পর্যন্ত আরও তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, কিন্তু তাদের নাম প্রকাশ করা হয়নি। তাদের একজন আফ্রিকার উত্তর উপকূলে স্পেনের স্বায়ত্তশাসিত শহর মেলিল্লার বাসিন্দা। বৃহস্পতিবার তাকে গ্রেফতার করা হয়। আরেকজনকে শুক্রবার রিপোল থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। চতুর্থজনকে গ্রেফতার করা হলেও তার বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো তথ্য জানানো হয়নি।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্পেনে বার্সেলোনার জনপ্রিয় পর্যটন এলাকা লাস র‍্যামব্লাসে পথচারীদের ওপর গাড়ি চালিয়ে দিয়ে অন্তত ১৩ জনকে হত্যা করা হয়। ইসলামিক স্টেট (আইএস) ওই হামলার দায় স্বীকার করে। বার্সেলোনায় হামলার কয়েক ঘণ্টা পর দেশটির উপকূলীয় শহর ক্যামব্রিলসে একই কায়দায় আবার হামলা হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন সাতজন। তবে এ সময় সন্দেহভাজন পাঁচজন সন্ত্রাসীকে গুলি চালিয়ে হত্যা করেছে পুলিশ। এই হামলাকারীদের সঙ্গে বার্সেলোনায় হামলাকারীদের যোগসূত্র রয়েছে বলে পুলিশের ধারণা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত