শিরোনাম

কার সম্পদ বেশি, সৌদি না ব্রিটিশ রাজবংশের?

সুলাইমান সাদী  |  ২১:১৯, মে ১৭, ২০১৯

সৌদি রাজ পরিবারের সম্পদের সঠিক হিসেব কষা একটু জটিলই বটে। কিন্তু রাজ পরিবার সম্পর্কে তথ্য উদ্ঘাটনকারী ওয়েবসাইট ‘হাউস অব সৌদ’ বিষয়টি বের করার একটা চেষ্টা চালিয়েছে।

‘হাউস অব সৌদ’ সৌদি রাজ পরিবার সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য উদ্ঘাটনকারী একটি ওয়েবসাইট। সাইটটিতে তাদের সম্পদের পরিমাণ সম্পর্কে একটি ধারণা পাওয়া যায়।

সৌদি রাজ পরিবারের সদস্য সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। তবে ওই পরিবারের মোট ২ হাজার লোক মোটা অঙ্কের সম্পদের মালিক বলে জানিয়েছে ‘হাউস অব সৌদ’।

ওয়েবসাইটটির তথ্যমতে, সৌদি রাজ পরিবারে গত কয়েক দশক ধরে তেলের আমদানি-রপ্তানি খাতে বিনিয়োগের ফলে তাদের সম্পদের পরিমাণ এখন ১৪শ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।

সৌদি রাজ পরিবারের সদস্যরা তাদের সম্পদের পরিমাণ বিষয়ক তথ্যাদি যথেষ্ট গোপন রাখার চেষ্টা করে থাকে। কিন্তু তাদের বিলাসী জীবনযাবনের খ্যাতি বিশ্বময়। তারা দামি আসবাব ব্যবহার করেন, ব্যক্তিগত জাহাজে ঘুরে বেড়ান, আড়ম্বরপূর্ণ প্রমোদভ্রমণ, নিজস্ব হেলিকপ্টারে চলাচল, বিভিন্ন ল্যান্ডক্রয় ছাড়াও অনেক শখ লালন করেন তারা।

তবে এমন বিলাসবহুল জীবনযাবপনের পাশাপাশি তারা বিভিন্ন ট্রাস্টের মাধ্যমে দুঃস্থ অসহায়দেরও ব্যাপক হারে সহযোগিতা দিয়ে থাকেন।

সৌদি বাদশাহ সালমান সম্পর্কে বলা হয়ে থাকে, তিনি একাই ১৭ বিলিয়ন ডলারের মালিক, প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সালমান যার স্বগর্ব ঘোষণা দিয়ে থাকেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেন্ডেন্টের ২০১৬ সালের এক রিপোর্টে দেখানো হয়, বাদশাহ সালমান একবার দক্ষিণ ফ্রান্সের এক সফরে একজন রুশ ব্যবসায়ীর জাহাজ পছন্দ করে ফেলেন। তিনি সেটা ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৫০ কোটি ইউরো দিয়ে কিনে নেন।

এমনিভাবে ২০১৭ সালে তিনি ৪৫ কোটি ডলারে লিওনার্দো দ্য ভিঞ্জির একটি চিত্রকর্ম কেনেন এক বেনামি ক্রেতা থেকে। ওই বছরই খবরে প্রকাশ হয়, চিত্রকর্মটির বিক্রেতা আর কেউ নন, তার ছেলে প্রিন্স মুহাম্মদ।

অপর ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দি গার্ডিয়ানের এক রিপোর্ট মতে, বিক্রেতা প্রিন্স মুহাম্মদকে খুঁজ করে আমেরিকান একটি গোয়েন্দা সংস্থা। সংস্থাটি এ বিষয়ক তথ্য খুঁজতে খুঁজতে দেখে, বিক্রেতা স্বয়ং মুহাম্মদ বিন সালমান।

নিউইয়র্ক টাইমসের ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের এক রিপোর্টে দেখানো হয়, সৌদি রাজকুমার মুহাম্মদ বিন সালমান ফ্রান্সের একটি প্রাসাদ কেনেন ৩০ কোটি ডলারের বিনিময়ে।

২০১৫ সালের ডিসেম্বরেও এক রিপোর্টে প্রকাশ পেয়েছিল, মধ্যপ্রাচ্যীয় কোনো এক বেনামি ক্রেতা ওই কেল্লাটি ৩০১ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি বিনিময় দিয়ে ক্রয় করেছিলেন। মুহাম্মদ বিন সালমানের এ প্রাসাদ কেনার মধ্য দিয়ে সর্বোচ্চ মূল্যের প্রাসাদ ক্রয়ের পুরনো সব রেকর্ড ভেঙে যায়।

এর আগে লন্ডনের পেন্টহাউসের পার্শ্ববর্তী একটি প্রাসাদ ২২১ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে বিক্রি হয়েছিল।

পেরিসের কাছেই অবস্থিত সৌদি প্রিন্সের ওই প্রাসাদটি ৫৬ একর ভূমি জুড়ে বিস্তৃত। সতের শতাব্দীর স্থাপত্যশিল্প অনুকরণ করে তৈরি হয়েছে নান্দনিক এ প্রাসাদটি।

সৌদি রাজ পরিবারকে ব্রিটিশ রাজ পরিবারের সঙ্গে তুলনা করলে দারুণ তথ্য বেরিয়ে আসে। আমেরিকান সংবাদমাধ্যম ফোর্বসের তথ্যমতে, ব্রিটিশ রাজ পরিবারের সম্পদের মূল্যমান মাত্র ৮৮ বিলিয়ন ডলার।

হিসেব অনুযায়ী সৌদি রাজ পরিবারের সম্পদের মূল্যমান ব্রিটিশ রাজ পরিবারের সম্পদের তুলনায় ১৬ গুণ বেশি বলে আখ্যা দেয়া যায়।

সূত্র:ডন নিউজ

আরআর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত