শিরোনাম

ফেসবুকে ঘুরছে শ্রীলঙ্কায় নিহত মা-মেয়ের সেলফি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক  |  ১১:৩৫, এপ্রিল ২২, ২০১৯

বিশ্বব্যাপী ‘ইস্টার সানডে’ পালনের দিনে গতকাল (২১ এপ্রিল) সকালে শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বো এবং শহরতলির তিনটি গির্জা ও দেশের বড় চার হোটেলে ভয়াবহ বোমা হামলার চালানো হয়। এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ২৯০–তে পৌঁছেছে।

নিহতের মধ্যে দেশটির জনপ্রিয় টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব শান্তা মায়াদুন ও তার মেয়ে নিশাঙ্গা মায়াদুন মারা গেছেন। শান্তা মায়াদুন শ্রীলঙ্কায় রান্না বিষয়ক অনুষ্ঠান উপস্থাপনার জন্য বিখ্যাত।

এই মা-মেয়েকে বোমা হামলায় নিহতের মধ্যে প্রথম ভিক্টিম হিসেবে বলা হচ্ছে গণমাধ্যমের খবরে। কলম্বোর পাঁচ তারকা হোটেল শাংরি লা-তে ইস্টার সানডের ব্রেকফাস্টে গিয়েছিলেন তারা। পরিবারের সবাইকে নিয়ে সকালের নাস্তার টেবিলে বসা একটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেন মেয়ে নিশাঙ্গা মায়াদুন।

ডেইলি মিররের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট করার কিছুক্ষণের মধ্যে তাদের হোটেলে হামলা হয়। হামলায় মা-মেয়ে মারা যান। পরিবারের বাকি সদস্যদের ভাগ্যে কী ঘটেছে তা এখনও জানা যায়নি।

‘ইস্টার ব্রেকফাস্ট উইথ ফ্যামিলি’ শিরোনামে নিশাঙ্গা মায়াদুনের পোস্ট করা ছবিটি ইতোমধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের ব্যবহারকারীরা ছবিটি শেয়ার করে সমবেদনা জানাচ্ছেন।

শান্তা মায়াদুন শ্রীলংকায় একজন সম্মানীয় এবং অনুকরণীয় বন্ধনশিল্পী ছিলেন। তার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন অনুসারীরা। মেয়ে নিশাঙ্গা মায়াদুন লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন মেধাবী শিক্ষার্থী ছিলেন।

শ্রীলঙ্কায় রোববার তিনটি গির্জা ও চারটি হোটেলে ধারাবাহিক বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে এখন পর্যন্ত ২৯০ জনে পৌঁছেছে। নিহতদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, তুরস্ক, ভারত, চীন, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস এবং পর্তুগিজের নাগরিক রয়েছেন।

বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটির তিনটি গির্জা ও চারটি বিলাসবহুল হোটেলে হামলা হওয়ার পর এখনো কেউ এর দায় স্বীকার না করায় তা রহস্যাবৃতই রয়ে আছে। তবে কারো কারো ধারণা- এই হামলার মধ্য দিয়ে শ্রীলঙ্কায় জাতিগত সংঘাত আবার চাঙ্গা হয়ে উঠতে পারে।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, এমন পরিস্থিতিতে গতকাল সন্ধ্যায় দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে একটি মসজিদে পেট্রোলবোমা ছোড়া হয়েছে এবং পশ্চিমাঞ্চলে মুসলিম মালিকানাধীন দুটি দোকানে আগুন দেয়া হয়েছে।

সরকার ফেসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বন্ধ রেখেছে। তবে দেশটিতে জারি করা কারফিউ আজ (২২ এপ্রিল) সকালে তুলে নেওয়া হয়েছে।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত