শিরোনাম

শোক দিবসে ক্লাস নেয়া শিক্ষককে ছুটি, তদন্ত কমিটি গঠন

মাহফুজ কিশোর, কুবি  |  ২০:০৩, আগস্ট ১৭, ২০১৭

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা উপেক্ষা করে ক্লাস নেয়ার অভিযোগে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রভাষক মাহবুবুল হক ভুঁইয়াকে (তারেক) এক মাসের ছুটি দিয়েছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। একইসঙ্গে ঘটনার তদন্তের জন্য চার সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার মো: মজিবুর রহমান মজুমদার স্বক্ষরিত পৃথক দুটি অফিস আদেশ থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

অফিস আদেশে বলা হয়, জাতীয় শোক দিবস ২০১৭ উপলক্ষে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত কর্মসূচি চলাকালীন সময়ে অভিযুক্ত শিক্ষকের ক্লাস নেয়াকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে ঐ শিক্ষককে আগামী ২০ আগস্ট থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এক মাসের ছুটি প্রদান করা হলো।

অপর আদেশ থেকে জানা যায়, শোক দিবসে ঐ শিক্ষকের ক্লাস নেয়া নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ায় ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. মোসলেহ উদ্দিন আহমেদকে আহ্বায়ক এবং সহকারী রেজিস্ট্রার মো: আমিরুল হক চৌধুরীকে সদস্য সচিব; শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো: আবু তাহের এবং রসায়ন বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সৈয়দুর রহমানকে সদস্য করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতেও বলা হয় অফিস আদেশে বলা হয়।

এদিকে উপাচার্য অফিস সময় শেষে ক্যাম্পাস ত্যাগ করতে চাইলে বেশ কিছুক্ষণ তার গাড়ি আটকিয়ে অবস্থান নেয় শিক্ষক সমিতি। এসময় তাদের মাঝে তুমুল বাকবিতণ্ডা হয়। এই প্রতিবেদন (সন্ধা সাড়ে ৬টা) লেখা পর্যন্ত বাকবিতণ্ডা চলমান ছিলো।

ছাত্রলীগের ২দিনের আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর মিলিয়ে সর্বমোট ২০টি পূর্বনির্ধারিত চূড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে বলে জানান উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নূরুল করিম চৌধুরী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষক মাহবুবুল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি এবং আমার কোন শিক্ষার্থীর সাথে কোন ধরনের আলোচনা বা যোগাযোগ না করে এ শাস্তি দেয়া হয়েছে। যা সম্পূর্ণ অনৈতিক এবং ষড়যন্ত্রমূলক।’

শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ বলেন, ‘অভিযুক্ত শিক্ষক জাতীয় শোক দিবসে ক্লাস নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি যে অশ্রদ্ধা দেখিয়েছেন সেই অপরাধে আমরা আরও বেশি শাস্তির দাবি করেছিলাম। কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থীদের ক্লাস-পরীক্ষার কথা বিবেচনা করে আমরা আন্দোলন প্রত্যাহার করে নিয়েছি।’

প্রসঙ্গত, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত শোক সভার আলোচনা উপেক্ষা করে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রভাষক মাহবুবুল হক ভুঁইয়া (তারেক)। এ ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শাখা ছাত্রলীগ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে এবং প্রশাসনিক ভবনসহ সবকটি অনুষদ ভবনে তালা দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়। এছাড়াও অভিযুক্ত শিক্ষককে বহিষ্কারের দাবি জানিয়ে বিশ^বিদ্যালয় উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেয় শাখা ছাত্রলীগ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত