শিরোনাম

রাবি শিক্ষার্থীদের ভালোবাসার প্যারিস রোড !

প্রিন্ট সংস্করণ॥রাবি প্রতিনিধি  |  ০২:৪৭, মার্চ ১৬, ২০১৯

হাজারো শিক্ষার্থীদের গান, গল্প, প্রেম, ভালোবাসা ও নানা আন্দোলন জড়ানো স্মৃতির নাম ‘প্যারিস রোড’। ফ্রান্সের নয়, এটা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ‘প্যারিস রোড’। দুই ধারের সুউচ্চ গগণশিরিষ গাছ ও পিচঢালা পথ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য। ৫০ বছরের পুরনো এই ‘প্যারিস রোড।ভোরে অলসতার ঘুম এবং একই সময়ে প্রকৃতির প্রথম রূপ দেখা; দুটোই দুই রকমের প্রশান্তি। তবে নগরজীবনের এই নানা ব্যস্ততায় প্রকৃতির অপূর্ব লীলা দেখার সময় মেলে কমই। তারপরও মানুষ প্রকৃতিতে মিশতে চায়, হারিয়ে যেতে চায় তার ভালোবাসায়, একটুখানি ভালো থাকার নেশায়। আমরা সেদিন সূর্য জাগার আগেই খুব ভোরে বেরিয়ে পড়ি প্রথম কিরণ দেখব বলে। হাঁটতে থাকি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর মনোরম সুশ্রী পিচঢালা রাস্তা ধরে। এই পিচঢালা রাস্তার সবই এসে মিলেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান সড়ক ‘প্যারিস রোড’ এ এসে। আমরা তখন এই ‘প্যারিস রোড’ দিয়েই হাঁটছি।এ এক অন্য রকম অনুভূতি। রাস্তার দুই পাশে সুউচ্চ গগণশিরিষ গাছ; যেন রাস্তার দিন-রাত্রীর প্রহরী। অনেকটা উপরে গিয়ে ডালপাল মেলেছে চারপাশে। দু’পাশের গাছের ডালপালা রাস্তার মাঝে শূন্যে আলিঙ্গন হওয়ার নেশায় ব্যকুল। এ যেন প্রকৃতির শরীরি খেলা। গাছের চিরচিরে ঘন পাতা রাস্তায় মেলে ধরেছে এক লম্বা সামিয়ানা। বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা গেট থেকে আবাসিক শের-ই-বাংলা ফজলুল হক হল পযর্ন্ত এই দৃশ্য চোখে পড়ে।নিমর্ল বাতাসে বৃষ্টির মতো গগণশিরিষ গাছের ছোট ছোট চেরা পাতাগুলো যখন ঝরে পড়ে তখন মনে হয়, এ যেন পাতার বৃষ্টি— যে বৃষ্টি দু’হাতে কুড়ানো যায়। ততক্ষণে সূর্যমামা উঁকি দিতে শুরু করেছে। রক্তাক্ত লাল সূর্যেও রশ্মি গাছের ডাল ভেদ করে অল্প অল্প করে পড়ছে রাস্তায়, আমাদের গায়ে। সূর্যের আলো আর পাতার ছোট ছোট ছায়া পিচঢালা রাস্তায় যেন এঁকে দিচ্ছে প্রকৃতির নানা রূপ, নানা সৃষ্টি। কেবল সকালের সূর্য নয়, সূর্য পূর্ব থেকে পশ্চিমে যাওয়া, কিংবা সন্ধ্যার পর থেকে সারি সারি ল্যাম্পপোস্টের আলোয় এই রাস্তা সাজে বাহারি রূপে। শুধু তা-ই নয়, একেক ঋতুতে এই রাস্তার দৃশ্য পাল্টে যায় বারে বারে। বসন্তের ঝরা পাতার বৃষ্টি, বষার্য় পাতা চুঁইয়ে পড়া ফোঁটা ফোঁটা বৃষ্টি পানি কিংবা শীতের সকালে কুয়াশা মোড়ানো রাস্তাটি সত্যিই মন ছুঁয়ে যায়। বৃষ্টির দিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নেচে-গেছে, হৈ-হুল্লোড়, ছুটাছুটি করে নিজেদের ভিজিয়ে নিতে এখনো বেছে নেয় এই প্যারিস রোডকেই। শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, প্রতিবছর প্রচুর দশনার্থী বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসে, কেবল এই প্যারিস রোডে হাঁটবে বলে!প্যারিস রোড সম্পর্কে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী রামপ্রষাদ সেন মন্তব্য করেন এভাবে, এ সেই রাস্তা যেখানে প্রিয়জনের হাতের আঙুল ধরে হাঁটলে মনের আয়নায় ভেসে ওঠে স্বর্ণালি কোনো অতীত, গম্ভীর মনে জেগে ওঠে প্রেম, নিবার্ক শ্রোতা গলা ছেড়ে গেয়ে ওঠে গান। যেখানে বন্ধুদের সাথে হাঁটলে মনে হয়, ‘এই পথ যদি না শেষ হয়/ তবে কেমন হতো ...।’ যেখানে নতুনরা আসার পর বলে, ‘আবার কবে আসবো?’ এটা সেই রাস্তা যার পিচঢালা রাস্তা ধারণ করে নানা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনের প্রতিকৃতি। মন শুধু এটাই চাই, ‘চিরজীবী হোক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোড।’১৯৬৬ সালে বিশ্ববিদ্যালয়কে আরও মনোরোম করে তোলার জন্য তৎকালীন উপাচার্য এম শামসুল হক বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছু গাছ লাগানোর উদ্যোগ নেন। তিনি এ দায়িত্ব দেন উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগকে। বিস্তারিত খোঁজ নিতে সম্মুখীন হই বতর্মান উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মুহাম্মদ নুরুল আমিনের।তার ভাষ্য মতে, ‘উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা এবং তৎকালীন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. আলী মো. ইউনুস পকিস্তানের লাহোর থেকে বিমানয়োগ এই গাছগুলো ঢাকায় নিয়ে আসেন। অধ্যাপক ইউনুসের নেতৃত্বে লাগানো হয় এই গাছগুলো। তবে এ গাছগুলো লাগানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তৎকালীন উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. মো. মোজাহেদ হোসেন ও অধ্যাপক এটিএম নাদেরুজ্জামান। কিন্তু এই রাস্তার নাম ‘প্যারিস রোড’ হলো কেমন করে? দ্বিতীয় প্রশ্নের উত্তরে অধ্যাপক নুরুল আমিন, ‘আসলে প্রথম দিকে এর নাম প্যারিস রোড ছিল না। নামের প্রচলনটা শুরু হয় ৮০-এর দশকের পর থেকে। তবে প্যারিস রোডের দু’পাশ ঠাসা গগণশিরিষ গাছের দৃশ্যের কিছুটা বিপযর্য় ঘটেছে গত কয়েক বছর ধরে। বিভিন্ন সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগে বেশকিছু গাছ ভেঙে পড়ে; বিশ্ববিদ্যালয় কতৃর্পক্ষও নানা অজুহাতে বিভিন্ন সময় গাছ কেটে ফেলেছে। ফলে ঘন আটা পাতার শামিয়ানায় কয়েক জায়গা ছিঁড়ে পড়েছে। যে ঐতিহ্য আমাদেরই রক্ষা করতে হবে। প্যারিস রোড বেঁচে থাকবে অন্ততকাল, আমাদের মনে-প্রাণে, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে।’

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত