শিরোনাম
বিশ্ব মান দিবসের আলোচনা সভায় শিল্পমন্ত্রী

চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের সাথে মান প্রণয়নের নির্দেশ

প্রিন্ট সংস্করণ॥অর্থনৈতিক প্রতিবেদক  |  ০০:৫৭, অক্টোবর ১৬, ২০১৮

গুণগতমানের পণ্য উৎপাদনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক বাজারে দেশিয় পণ্যের অবস্থান শক্তিশালী করতে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সাথে সামঞ্জস্য রেখে বিএসটিআইকে পণ্য ও সেবার জাতীয় মান প্রণয়ন, নির্ধারণ ও সংরক্ষণের দায়িত্ব পালন করার নির্দেশনা দিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। একইসাথে বিএসটিআই কর্মকর্তাদের পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালনেরও পরামর্শ দেন তিনি। গতকাল বিশ্ব মান দিবস-২০১৮ উপলক্ষে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই) আয়োজিত ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক মান? শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন। রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বিএসটিআই মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিবের রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব বেগম পরাগ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএসটিআই’র মহাপরিচালক সরদার আবুল কালাম এবং বিএসটিআই’র পরিচালক (মান) মোঃ সাজ্জাদুল বারী আগত অতিথিদের উদ্দেশ্যে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। শিল্পমন্ত্রী আরও বলেন, বিএসটিআই জাতীয় পর্যায়ে একমাত্র মান নির্ধারণী প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানের কর্মকান্ডের ওপর গুণগত শিল্পায়ন এবং জনগণের জীবনের সুরক্ষার বিষয়টি নির্ভর করে। এ বিবেচনায় আমাদের সরকার বিএসটিআই’র আধুনিকায়ন ও সক্ষমতা বৃদ্ধির বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। জনগণের দোরগোড়ায় বিএসটিআই’র সেবা পৌঁছে দিতে সরকার জেলা পর্যায়ে বিএসটিআই’র কার্যক্রম সম্প্রসরণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এর ফলে জনগণের মাঝে পণ্য ও সেবার মান বিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধি পাবে এবং দেশব্যাপী মান সম্পন্ন পণ্য উৎপাদনে বিএসটিআই’র তদারকি বৃদ্ধি পাবে। ভারপ্রাপ্ত শিল্প সচিব বলেন, পণ্য ও সেবার মান নির্ধারণ এবং নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব বিএসটিআই’র উপর অর্পিত। বিএসটিআই’র কর্মকা- দেশব্যাপী ইতিবাচক সাড়া ফেলেছে। আন্তর্জাতিক মান সংস্থাসমূহের সহায়তায় জাতীয় মান নির্ধারণ এবং জনস্বার্থে ভেজাল ও নি¤œমানের পণ্য উৎপাদন বন্ধ, সঠিক ওজন ও পরিমাপের পণ্য ভোক্তা-সাধারণের কাছে পৌঁছে দিতে বিএসটিআই’র প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। বিএসটিআই’র বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম এবং আন্তর্জাতিক অর্জনের কথা তুলে ধরে সংস্থাটির মহাপরিচালক সরদার আবুল কালাম বলেন, বিএসটিআই’র কয়েকটি ল্যাবরেটরি এবং প্রোডাক্টস সার্টিফিকেশন ও ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সার্টিফিকেশন দেশ ও বিদেশের আন্তর্জাতিক সংস্থা হতে এ্যাক্রিডিটেশন লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। এর ফলে বিদেশে বিএসটিআই’র মানসনদের গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে দেশে উৎপাদিত কৃষিজাত পণ্য ১৪৪টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে। সম্প্রতি ভারত সরকার রপ্তানির উদ্দেশ্যে ২১টি পণ্যের জন্য বিএসটিআই হতে প্রদত্ত সার্টিফিকেটকে গ্রহণযোগ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে বিনা পরীক্ষায় ভারতের বাজারে প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে। আরও ৬টি পণ্যের ক্ষেত্রে এ প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। এছাড়া বিএসটিআইতে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে নতুন নতুন পণ্য পরীক্ষণ সুবিধা চালু করা হচ্ছে বলেও তিনি জানান।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত