শিরোনাম

আজ বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস

নিজস্ব প্রতিবেদক  |  ১২:৪১, মার্চ ১৫, ২০১৯

আজ বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস আজ। নায্যমূল্যে পণ্যপ্রাপ্তির অধিকারে ১৯৮৩ সাল থেকে প্রতি বছর ১৫ মার্চ বিশ্বব্যাপী দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। বিশিষ্ট পরিবেশবাদী ও ভোক্তাদের অধিকার বিষয়ে আন্দোলনে সোচ্চার কর্মী মালয়েশিয়ার আনোয়ার ফজল কর্তৃক এ দিবস পালনের রূপকার হিসেবে পরিচিতি হয়েছেন।

১৫ মার্চ, ১৯৬২ সালে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জন এফ. কেনেডি কংগ্রেসে ভোক্তাদের স্বার্থ রক্ষার বিষয়ে বক্তৃতা দেন। নিরাপত্তার অধিকার, তথ্যপ্রাপ্তির অধিকার, পছন্দের অধিকার এবং অভিযোগ প্রদানের অধিকার - ভোক্তাদের এ চারটি মৌলিক অধিকার সম্পর্কে তিনি আলোকপাত করেন যা পরবর্তীতে ভোক্তা অধিকার আইন নামে পরিচিতি পায়।

১৯৮৫ সালে জাতিসংঘের মাধ্যমে জাতিসংঘ ভোক্তা অধিকার রক্ষার নীতিমালায় কেনেডি বর্ণিত চারটি মৌলিক অধিকারকে আরো বিস্তৃত করে অতিরিক্ত আরো আটটি মৌলিক অধিকার সংযুক্ত করা হয়। এরপর থেকেই কনজুমার্স ইন্টারন্যাশনাল এ সকল অধিকারকে সনদে অন্তর্ভুক্ত করে। কেনেডি'র ভাষণের দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে ১৫ মার্চকে বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস হিসেবে বৈশ্বিকভাবে উদযাপন করে আসছে।

‘নিরাপদ মানসম্মত পণ্য’ প্রতিপাদ্যে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরও দিবসটি পালন করছে। দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, কনজিউমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশসহ (ক্যাব) বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। এর মধ্যে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও ক্যাব যৌথ উদ্যোগে দিবসটি উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন স্থানে সচেতনতামূলক পোস্টার, ব্যানার ও লিফলেট বিতরণ কর্মসূচি পালন করবে।

দিবসটি উপলক্ষে ভোক্তাদের উদ্দেশে বেশকিছু পরামর্শও দিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। এর মধ্যে রয়েছে নির্ধারিত মূল্য অপেক্ষা অধিক মূল্য প্রদান না করা, খুচরা বিক্রয়মূল্য, উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ দেখে খাদ্য, পণ্য বা ওষুধ কেনা, খাদ্যপণ্য কেনার জন্য ওজন বা পরিমাপ সঠিকভাবে বুঝে নেয়া, মিথ্যা ও প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন থেকে সতর্ক থাকা, ভেজাল ও নকল খাদ্য, পণ্য বা ওষুধ প্রস্তুতের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া এবং প্রতারিত হলে ৩০ দিনের মধ্যে অভিযোগ করা।

এদিকে খাদ্যে ভেজালের মাত্রা কমানোর শত চেষ্টা সত্ত্বেও এক্ষেত্রে অগ্রগতি সামান্যই। তবে কয়েক বছর ধরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে নকল ও ভেজালকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর কারণে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়তে শুরু করেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত