শিরোনাম

ভাঙ্গুড়ার সেই ভুয়া চিকিৎসক সৈয়দপুরে গ্রেপ্তার

মোঃ ইকবাল হোসেন, ভাঙ্গুড়া(পাবনা)  |  ২১:৩৬, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯

 

অন্য ব্যক্তির ভুয়া সনদ ও বিএমডিসির নিবন্ধন নম্বর ব্যবহার করে পাবনার ভাঙ্গুড়ায় দীর্ঘ দিন ধরে চিকিৎসা দেয়া আলোচিত সেই ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ করিমকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকালে তাকে তার নিজ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত ভুয়া চিকিৎসকের আসল নাম মাসুদ রানা। পিতার নাম আব্দুল হান্নান। বাড়ি নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার হাতিখানা পাড়া গ্রামে। তিনি ঢাকার বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. মাসুদ করিমের নাম, সনদ ও নিবন্ধন নম্বর নকল করেছিলেন।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস জানান, সৈয়দপুর পুলিশের সহায়তায় তাকে গ্রেপ্তার করে পাবনার পুলিশ। গ্রেপ্তাররের পর তাকে সৈয়দপুর থেকে পাবনায় নিয়ে আসা হয়েছে। তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এরআগে গ্রেপ্তার ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানা দীর্ঘ ৭ বছর ধরে পাবনার ভাঙ্গুড়া হেলথ কেয়ার নামের একটি ক্লিনিকে লক্ষাধিক টাকা বেতনে কর্মরত থেকে চিকিৎসাসেবা দিয়ে আসছিলেন। তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন বিএমএর পাবনা শাখার আজীবন সদস্যও ছিলেন।

ঢাকার ডা. মাসুদ করিমের নাম, বিএমডিসির নিবন্ধন নম্বর ও সনদ ব্যবহার করে চিকিৎসার নামে প্রতারণা করে আসছিলেন মাসুদ রানা। বন্ধু চিকিৎসকের মাধ্যমে ভুয়া চিকিৎসকের বিষয়টি জানতে পেরে পাবনায় আসেন প্রকৃত চিকিৎসক ডা. মাসুদ করিম তার। আর তার আগেই ফেসবুকের মাধ্যমে বিষয়টি জানাজানি হলে গা ঢাকা দেন ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানা।

ডা. মাসুদ করিম গণমাধ্যম ও পুলিশকে জানান, তিনি ১৯৯০-৯১ সেশনে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন। তিনি ছিলেন ২৮তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। এমবিবিএস শেষ করে নিবন্ধন পান বিএমডিসির, যার নিবন্ধন নং ৩৩৩৬০। বর্তমানে ঢাকার খিলগাঁওয়ে নিজস্ব ডক্টরস চেম্বারে প্রাইভেট চিকিৎসা দেন। স্থায়ী ঠিকানা ফেনীর সোনাগাজী। বাবার নাম আব্দুস শাকুর। পরে তিনি বিষয়টি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিভিন্ন শাখায় এবং পাবনা সিভিল সার্জনকে লিখিত অভিযোগ দেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তের মাধ্যমে নীলফামারীর সৈয়দপুর থেকে ভুয়া চিকিৎসক মাসুদ রানাকে গ্রেপ্তার করে পাবনার পুলিশ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত